বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > হাওড়া–কালকা মেলের নাম পালটে ‘নেতাজি এক্সপ্রেস’, জেনে নিন কারণ
হাওড়া–কালকা মেল। (ফাইল ছবি, সৌজন্য এএনআই)
হাওড়া–কালকা মেল। (ফাইল ছবি, সৌজন্য এএনআই)

হাওড়া–কালকা মেলের নাম পালটে ‘নেতাজি এক্সপ্রেস’, জেনে নিন কারণ

  • নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু‌র ১২৫তম জন্মজয়ন্তী উপলক্ষ্যে এই ঘোষণা করেছে রেল মন্ত্রক।

হাওড়া–কালকা মেলের নাম বদল করল ভারতীয় রেল। এই ঐতিহাসিক ট্রেনের নতুন নাম 'নেতাজি এক্সপ্রেস। নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু‌র ১২৫তম জন্মজয়ন্তী উপলক্ষ্যে এই ঘোষণা করেছে রেল মন্ত্রক। এই বিষয়ে রেলমন্ত্রী পীযূষ গোয়েল টুইটে লেখেন, ‘‌নেতাজির পরাক্রমই স্বাধীনতা ও উন্নয়নের রাস্তা তৈরি করে দিয়েছিল। আমি আপ্লুত নেতাজি এক্সপ্রেসের মাধ্যমে তাঁর জন্মজয়ন্তী পালন করতে পারব।’‌

রেলওয়ে বোর্ডের পক্ষ থেকে রেলের সমস্ত বিভাগের জেনারেল ম্যানেজারদের এই তথ্য জানিয়ে দেওয়া হয়। জানানো হয়েছে, গত ১৪ জানুয়ারি হাওড়া–কালকা মেলের নাম বদলের প্রস্তাব আসে রেল মন্ত্রকের কাছে। সেই প্রস্তাব মেনেই হাওড়া-কালকা মেলের নাম বদলে নেতাজি এক্সপ্রেস করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

আগামী ২৩ জানুয়ারি নেতাজির ১২৫ তম জন্মজয়ন্তীর আগেই কালকা মেলের নাম পরিবর্তনের কথা টুইট করে জানায় রেলমন্ত্রী পীযূষ গোয়েল। কেন হঠাৎ কালকা মেলের নাম ‘নেতাজি এক্সপ্রেস’ রাখা হল? জানা গিয়েছে, ১৯৪১ সালে ব্রিটিশদের নজর এড়াতে বিহারের গোমো থেকে কালকা মেল ধরে গিয়েছিলেন নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু। তাই ‘পরাক্রম দিবস’ উপলক্ষ্যে কালকা মেলের নাম বদল করা হল।

উল্লেখ্য, ২০০৯ সালে লালুপ্রসাদ যাদব যখন রেলমন্ত্রী ছিলেন তখন এই স্টেশনটির নামকরণ করা হয়েছিল গোমো জংশন। অধ্যাপক সুগত বসু বলেন, কেন্দ্রের সিদ্ধান্ত। নেতাজির মতো সাহসী নেতা বিশ্বে খুঁজে পাওয়া কঠিন। রাজ্য সরকার দেশনায়ক দিবস হিসেবে পালন করে। নেতাজির ঐক্য ও সাম্যের আদর্শ। সমান নাগরিকত্বের বিশ্বাস, সবাইকে সমান অধিকার, হিন্দু–মুসলমান সবাই আজাদ হিন্দ ফৌজে আজাদির লড়াইয়ে ছিলেন। নেতাজি শুধু যোদ্ধা ছিলেন না। চিন্তা করেছেন, কী ধরনের দেশ গড়ে তুলবেন। তা ভালোভাবে মনে রেখে যেন ২৩ জানুয়ারি পালন করা হয়।

পীযূষ গোয়েল টুইট করে বলেন, ‘১২৩১১/১২৩১২ হাওড়া–কালকা এক্সপ্রেসের নামকরণ নেতাজি এক্সপ্রেস করা হল। এই ঘোষণা করতে পেরে খুশি ভারতীয় রেল।’ নেতাজি এক্সপ্রেস’–এর সূচনার মধ্য দিয়ে পালন করা হবে নেতাজির জন্মজয়ন্তী। এই ট্রেনটি বাণিজ্যিক ট্রেনগুলির মধ্যে অন্যতম।

এদিকে, নেতাজির জন্মজয়ন্তী ‘পরাক্রম দিবস’ হিসেবে পালিত হবে বলে মঙ্গলবার ঘোষণা করে নরেন্দ্র মোদী সরকার। কেন্দ্রীয় সংস্কৃতিমন্ত্রী প্রহ্লাদ সিং প্যাটেল বলেন, ‘‌সরকার ২৩ জানুয়ারি দিনটি পরাক্রম দিবস হিসেবে পালনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।’‌

বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আবার দাবি জানিয়েছেন, ‘দেশনায়ক দিবস হিসেবে দিনটি উদযাপিত হোক! আমরা এটা দেশনায়ক দিবস হিসেবে পালন করব। পরাক্রমের তো অনেক মানে হয়।' ২৩ জানুয়ারিকে জাতীয় ছুটি ঘোষণার দাবিতে ফের সুর চড়ান মুখ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘বারবার বলছি, ২৩ জানুয়ারিকে জাতীয় ছুটি ঘোষণা করতে হবে। সেটা কেন্দ্র করুক।’

বন্ধ করুন