বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > মহামারী ব্ল্যাক ফাংগাস: লক্ষণ ও চিকিত্সা কী?
ফাইল ছবি : পিটিআই (PTI)
ফাইল ছবি : পিটিআই (PTI)

মহামারী ব্ল্যাক ফাংগাস: লক্ষণ ও চিকিত্সা কী?

পশ্চিমবঙ্গেও একাধিক করোনা রোগী এই রোগে আক্রান্ত হয়েছেন। বিশেষজ্ঞদের মতে, মূলত করোনার কারণেই ক্রমেই বৃদ্ধি পাচ্ছে এই রোগ।

একে করোনা। তার উপর নতুন বিভীষিকা ব্ল্যাক ফাংগাস। মিউকরমাইকোসিস বা ব্ল্যাক ফাংগাসে এখনও পর্যন্ত দেশে মোট ৭,২৫১ জন আক্রান্ত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার দিল্লি হাইকোর্টে দেওয়া তথ্যে এমনটাই জানিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার।

পশ্চিমবঙ্গেও একাধিক করোনা রোগী এই রোগে আক্রান্ত হয়েছেন। বিশেষজ্ঞদের মতে, মূলত করোনার কারণেই ক্রমেই বৃদ্ধি পাচ্ছে এই রোগ। তার আগে যে ব্ল্যাক ফাংগাস আক্রান্ত হওয়ার কথা শোনা যেত না, তা নয়। কিন্তু বর্তমান পরিস্থিতিতে তা আরও বেশি সংখ্যায় দেখা যাচ্ছে।

কীভাবে এই রোগে আক্রান্ত হন কোনও ব্যক্তি?

মিউকর নামে এক ছত্রাকের প্রভাবে এই রোগ হয়। সাধারণত আর্দ্র স্থানে এটি হয়। ভারতের মতো আর্দ্র দেশে এটি অনেক স্থানেই থাকে। সাধারণত শ্বাসের সময়ে বা শরীরে কাটা অংশের মাধ্যমে এটি দেহে প্রবেশ করে। কিন্তু সাধারণত আমাদের দেহের রোগ প্রতিরোধ শক্তি এর বিরুদ্ধে সুরক্ষা প্রদান করে।

কিন্তু বর্তমানে করোনা অতিমারীর কারণে পরিস্থিতি ভিন্ন। বিশেষজ্ঞদের মতে, গুরুতর করোনা আক্রান্তদের সুশ্রষার জন্য স্টেরয়েড প্রয়োগ করা হচ্ছে। সেই স্টেরয়েড রক্তে শর্করার পরিমাণ বৃদ্ধি করে। কিছু ওষুধ রোগীর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার উপরেও প্রভাব ফেলে। আর ডায়াবেটিস আক্রান্ত রোগীদের ক্ষেত্রে এই বৃদ্ধি পাওয়া সুগার লেভেল হতে পারে মারাত্মক।

বিশেষজ্ঞ চিকিত্সক অম্বরীশ মিথলের কথায়, 'একদিকে রক্তে উচ্চ শর্করা। অন্যদিকে অক্সিজেনের মাত্রা কম, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা হ্রাস। ফলে, সবমিলিয়ে এটি ব্ল্যাক ফাংগাস সংক্রমণের সবকটি শর্তই পূরণ করে।' সিংহভাগ ক্ষেত্রেই দেখা যাচ্ছে মূলত ডায়াবেটিসের রোগী যাঁরা করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন, তাঁদেরই ব্ল্যাক ফাংগাসের সংক্রমণ হয়েছে।

লক্ষণ কী?

এর কিছু লক্ষণ হল মাথা যন্ত্রণা, জ্বর, চোখের নিচে ব্যাথা, নাক বা সাইনাস বন্ধ হয়ে আসা, দৃষ্টিশক্তি কমে আসা।

চিকিত্সা কী?

এর চিকিত্সা সাধারণত বিশেষ ইঞ্জেকশন মারফত ওষুধ প্রয়োগের মাধ্যমে হয়। এর আগের মহারাষ্ট্র সরকারের তরফে জানানো হয়, এই রোগের চিকিত্সা অজানা নয়। সঠিক সময়ে চিকিত্সা শুরু হলে, এটি প্রতিরোধ করা সম্ভব। তবে, এর পাশাপাশি ডায়াবেটিস থাকা করোনা আক্রান্তদের চিকিত্সার ক্ষেত্রে আরও সতর্কতা প্রয়োজন বলেও মনে করছেন বিশেষজ্ঞদের একাংশ।

বন্ধ করুন