বাড়ি > ঘরে বাইরে > চাহিদা কম, তাই নতুন ২০০০ টাকার নোট ছাপতে দেয়নি রিজার্ভ ব্যাঙ্ক
২০১৯-২০ অর্থবর্ষে ছাপানো হয়নি ২০০০ টাকার নোট, বলছে আরবিআই রিপোর্ট।
২০১৯-২০ অর্থবর্ষে ছাপানো হয়নি ২০০০ টাকার নোট, বলছে আরবিআই রিপোর্ট।

চাহিদা কম, তাই নতুন ২০০০ টাকার নোট ছাপতে দেয়নি রিজার্ভ ব্যাঙ্ক

  • এই কয়েক বছরে ৫০০ ও ২০০ টাকার নোট অনেক বেশি ছাড়া হয়েছে বলে জানিয়েছে আরবিআই।

২০১৯-২০ অর্থবর্ষে ছাপানো হয়নি ২০০০ টাকার নোট। গত কয়েক বছরে এই নোটের চলনও অনেকটাই কমেছে। এই তথ্য জানা গিয়েছে রিজার্ভ ব্যাঙ্ক প্রকাশিত বার্ষিক রিপোর্টে।

রিপোর্টে বলা হয়েছে, ২০১৮ সালের মার্চ মাসের শেষে ২০০০ টাকার নোট ৩৩,৬৩২ পিস ছাড়া হয়েছিল, যা ২০১৯ সালে মার্চের শেষে কমে ৩২,৯১০ পিসে দাঁড়ায় এবং ২০২০ সালের মার্চ মাসের শেষে এই সংখ্যা দাঁড়ায় ২৭,৩৯৮ পিসে। চলতি বছরের মার্চ মাসের শেষে বাজারে ছাড়া এই নোটের সংখ্যা ২.৪% এসে দাঁড়ায়, যা আগের দুই বছরে যথাক্রমে ৩ ও ৩.৩ শতংশ ছিল।

অন্য দিকে, এই কয়েক বছরে ৫০০ ও ২০০ টাকার নোট অনেক বেশি ছাড়া হয়েছে বলে জানিয়েছে আরবিআই। 

শীর্ষ ব্যাঙ্কের তরফে জানানো হয়েছে, ২০১৯-২০ অর্থবর্ষে ২০০০ টাকার নোট ছাপানোর কোনও পরিকল্পনা করা হয়নি। এমনকি ভারতীয় রিজার্ভ ব্যাঙ্ক নোট মুদ্রণ প্রাইভেট লিমিটেড বা সিকিউরিটি প্রিন্টিং অ্যান্ড মিন্টিং কর্পোরেশ অফ ইন্ডিয়া লিমিটেড সংস্থা দুটিও ওই নোট ছাপানোর কোনও উদ্যোগ নেয়নি। আরবিআই-এর মতে, এর পিছনে রয়েছে কোভিড অতিমারীর আত্মপ্রকাশ ও তার জেরে দেশব্যাপী লকডাউন।

তবে রিপোর্ট অনুযায়ী, ২০১৯-২০ অর্থবর্ষে ১,৪৬৩ পিস ৫০০ টাকার নোট ছাপাইয়ের অর্ডার দেওয়া হয়েছিল এবং ১,২০০ পিস নোট বাজারে ছাড়া হয়।

পাশাপাশি ওই রিপোর্ট অনুযায়ী, ২০১৯-২০ অর্থবর্ষে ভারতে ধরা পড়া জালনোটের মধ্যে ৪.৬% চিহ্নিত করে আরবিআই এবং ৯৫.৪% অন্যান্য ব্যাঙ্কের কাছে ধরা পড়ে। মোট ২,৯৬,৬৯৫টি জালনোট ধরা পড়ে ওই অর্থবর্ষে।

সেই সঙ্গে, উধাও হয়ে যাওয়া ১০০ টাকার নোটের হদিশ পেতে বিশেষ অভিযান চালানো হবে বলেও জানিয়েছে রিজার্ভ ব্যাঙ্ক। 

 

বন্ধ করুন