বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > ‘শাড়ি পরে প্রবেশ নিষিদ্ধ,’ দামি রেস্তোরাঁর নিদানে ক্ষুব্ধ নেটিজেনরা
ছবি : টুইটার  (Twitter)
ছবি : টুইটার  (Twitter)

‘শাড়ি পরে প্রবেশ নিষিদ্ধ,’ দামি রেস্তোরাঁর নিদানে ক্ষুব্ধ নেটিজেনরা

  • পুরো বিষয়টার ভিডিয়ো করেন ওই মহিলা। আর তারপরেই সোশ্যাল মিডিয়ায় রোষের মুখে দিল্লির দামি রেস্তোরাঁ।

'শাড়ি পরে ঢোকা যাবে না। আমাদের এখানে খালি স্মার্ট-ক্যাজুয়াল পরা যায়,' এমনটাই বলে এক মহিলাকে প্রবেশ করতে দিল না দিল্লির অভিজাত রেস্তোরাঁ অ্যাকুইলা(Aquila)। পুরো বিষয়টার ভিডিয়ো করেন ওই মহিলা। আর তারপরেই সোশ্যাল মিডিয়ায় রোষের মুখে দিল্লির দামি রেস্তোরাঁ।

ভারতীয় ভাষা জানা সত্ত্বেও ইংরাজিতে কথা বলা। পোশাক-আশাক নিয়ে নাক উঁচু ভাব। নামি-দামী রেস্তোরাঁর এ সকল কার্যকলাপ নতুন নয়। কিন্তু তাই বলে শাড়ি পরে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা? অ্যাকুইলার এমন 'স্নব' নীতির বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন নেটিজেনরা। অনেকে তো একে পরাধীন ভারতে ইংরেজদের 'কুকুর ও ভারতীয়ের প্রবেশ নিষেধ' লেখা বারের দরজার সঙ্গেও তুলনা করেছেন। ভারতীয় রেস্তোরাঁ হয়েও যেন ইংরেজ সাজার মরিয়া চেষ্টা অ্যাকুইলার।

অ্যাকুইলার এই নীতির সমালোচনা করেছেন সেলিব্রেটিরাও। অভিনেত্রী রিচা চাড্ডা টুইটে লেখেন, 'শাড়ি যথেষ্ট স্মার্ট, আপনাদের নীতি স্মার্ট নয়।'

যদিও এর পাল্টা পোস্ট করেছে অ্যাকুইলাও। তাদের দাবি, শাড়ি পরা নিয়ে কোনও সমস্যা নেই। ওই মহিলা খারাপ ব্যবহার করছিলেন। কর্মীদের গায়ে হাত তুলেছিলেন। সেই জন্যই তাঁদের প্রবেশ করতে দেওয়া হয়নি। রেস্তোরাঁয় বহু অতিথিই শাড়ি পরে প্রবেশ করেন বলে জানায় কর্তৃপক্ষ। প্রমাণ করতে তার ভিডিয়োও দেওয়া হয়। 

তবে টুইটারে অনেকেই এমন অভিজাত রেস্তোরাঁর লোক দেখানো নাক-উঁচু ভাবের সমালোচনা করেছেন। অনেকের এ প্রসঙ্গে কলকাতার এক নামী রেস্তোরাঁর কথাও মনে পড়ে যাচ্ছে। বছর কয়েক আগেই কলকাতার পার্ক স্ট্রিটের এক নামী রেস্তোরাঁয় এক ব্যক্তিকে 'কম দামী পোশাক' পরায় প্রবেশ করতে দেওয়া হয়নি। সেই সময়ে ওই রেস্তোরাঁর বিরুদ্ধে প্রতিবাদের ঝড় উঠলেও এখনও তা বহাল তবিয়তে চলছে। সম্প্রতি পেয়েছে হেরিটেজের তকমাও।

বন্ধ করুন