বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > রাশিয়া থেকে গ্যাস আমদানি নিয়ে ইউরোপের উভয় সংকট

রাশিয়া থেকে গ্যাস আমদানি নিয়ে ইউরোপের উভয় সংকট

রাশিয়া থেকে গ্যাস আমদানি নিয়ে ইউরোপের উভয় সংকট। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্যে রয়টার্স)

পোল্যান্ড ও বুলগেরিয়া রাশিয়ার গ্যাস থেকে বিচ্ছিন্ন হলেও আপাতত জার্মানির মতো কিছু দেশ অন্যান্য পাইপলাইনের মাধ্যমে গ্যাস সরবরাহের আশা করতে পারে৷ উল্লেখ্য, রাশিয়া এখনো ইউরোপে প্রায় ৪০ শতাংশ গ্যাস সরবরাহ করে৷

রাশিয়া থেকে ইউরোপে গ্যাস সরবরাহ নিয়ে নতুন অনিশ্চয়তার মুখে ইউরোপীয় ইউনিয়ন ঐক্য বজায় রাখার চেষ্টা করছে৷ কিন্তু অর্থনৈতিক স্বার্থে কিছু ক্ষেত্রে মস্কোর দাবি মেনে নেবার ইঙ্গিতও পাওয়া যাচ্ছে৷

রাশিয়া ইউরোপে গ্যাস সরবরাহ বন্ধ করতে পারে, এমন আশঙ্কা একেবারে অপ্রত্যাশিত ছিল না৷ ইউক্রেনে হামলা শুরু হবার পর থেকেই ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত দেশগুলি রাশিয়ার গ্যাসের উপর নির্ভরতা কমাতে জোরালো তৎপরতা শুরু করেছে, যদিও সেই প্রক্রিয়া যথেষ্ট সময়সাপেক্ষ হবে বলে ধরে নেওয়া হচ্ছে৷

এর মধ্যে মস্কোও আচমকা চলমান চুক্তির পরোয়া না করে একমাত্র রুবলের বিনিময়ে গ্যাস বিক্রির সিদ্ধান্ত নিয়েছে৷ পোল্যান্ড ও বুলগেরিয়া সেই নতুন শর্ত মানছে না, এমন কারণ দেখিয়ে রাশিয়ার গাজপ্রম সংস্থা এই দুই দেশে গ্যাস সরবরাহ রাতারাতি বন্ধ করে দিয়েছে৷ ইউরোপের অন্যান্য দেশেরও একই দশা হতে পারে, এমন আশঙ্কা উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না৷ রাশিয়া ‘বৈরি' দেশগুলির উদ্দেশ্যে এমন হুমকিও দিয়েছে৷ পশ্চিমা বিশ্বের নিষেধাজ্ঞার আওতায় বিদেশে রাশিয়ার মুদ্রা সম্পদ মস্কোর নাগালের বাইরে চলে যাওয়া বাধ্য হয়ে রুবলে লেনদেনের সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে বলে রুশ প্রেসিডেন্টের মুখপাত্র দাবি করেছেন৷

পোল্যান্ড ও বুলগেরিয়া রাশিয়ার গ্যাস থেকে বিচ্ছিন্ন হলেও আপাতত জার্মানির মতো কিছু দেশ অন্যান্য পাইপলাইনের মাধ্যমে গ্যাস সরবরাহের আশা করতে পারে৷ উল্লেখ্য, রাশিয়া এখনো ইউরোপে প্রায় ৪০ শতাংশ গ্যাস সরবরাহ করে৷ তার বিনিময়ে দিনে ৪০ কোটি ইউরো হাতে পায় মস্কো৷ বেপরোয়া সিদ্ধান্ত নিয়ে স্বেচ্ছায় সেই আয় বন্ধ করে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুটিন পশ্চিমা বিশ্বের চলমান নিষেধাজ্ঞার পাশাপাশি আরও ক্ষতি মেনে নিতে প্রস্তুত কিনা, সে বিষয়ে অস্পষ্টতা রয়েছে৷

এমন প্রেক্ষাপটে ইউরোপীয় ইউনিয়ন ঐক্যবদ্ধভাবে জ্বালানি সংকট মোকাবিলার উদ্যোগ নিচ্ছে৷ আগামী সোমবার ইইউ জ্বালানি মন্ত্রীরা এক জরুরি বৈঠকে বসছেন৷ ইউরোপীয় কমিশন মস্কোর বিরুদ্ধে ব্ল্যাকমেলের অভিযোগ করেছে৷ তবে এমন সংকটের মুখে ইইউ কতটা অসহায় অবস্থায় পড়েছে, তাও স্পষ্ট হয়ে উঠছে৷

ইইউ জ্বালানির দায়িত্বপ্রাপ্ত কমিশনর কাডরি সিমসন বলেছেন, যে তিনি ইউরোপের গ্যাস আমদানিকারী কোম্পানিগুলিকে চুক্তির শর্ত মেনে রাশিয়াকে গ্যাসের দাম মেটানোর পরামর্শ দিয়েছেন৷ অর্থাৎ রুবলের বদলে ইউরো বা ডলারেই লেনদেন করতে হবে৷ নিষাধাজ্ঞার শর্তও অমান্য করলে চলবে না৷ তবে কঠিন পরিস্থিতিতে ঘুরপথে রুবলে দাম মেটানোর পথও খোলা রাখা হচ্ছে৷ ব্লুমবার্গ সংস্থার সূত্র অনুযায়ী দশটি ইউরোপীয় কোম্পানি ইতোমধ্যেই মস্কোর দাবি মেনে গাজপ্রম ব্যাংকে রুবল অ্যাকাউন্ট খুলেছে৷

(বিশেষ দ্রষ্টব্য : প্রতিবেদনটি ডয়চে ভেলে থেকে নেওয়া হয়েছে। সেই প্রতিবেদনই তুলে ধরা হয়েছে। হিন্দুস্তান টাইমস বাংলার কোনও প্রতিনিধি এই প্রতিবেদন লেখেননি।)

বন্ধ করুন