বাড়ি > ঘরে বাইরে > সুপ্রিম কোর্টে খারিজ ২০১৭ সালের অবমাননা রায় নিয়ে বিজয় মালিয়ার রিভিউ পিটিশন
বিজয় মালিয়া (ফাইল ছবি, সৌজন্য পিটিআই)
বিজয় মালিয়া (ফাইল ছবি, সৌজন্য পিটিআই)

সুপ্রিম কোর্টে খারিজ ২০১৭ সালের অবমাননা রায় নিয়ে বিজয় মালিয়ার রিভিউ পিটিশন

  • ৯,০০০ কোটি টাকার বেশি ঋণ শোধ না করেই বিদেশে পালিয়ে যাওয়ার অভিযোগ আছে মালিয়ার বিরুদ্ধে।

সুপ্রিম কোর্টে ছিঁটেফোটাও স্বস্তি পেলেন না বিজয় মালিয়া। অবমাননার দায়ে দোষী সাব্যস্ত করার বিরুদ্ধে যে আর্জি জানিয়েছিলেন কিংফিশারের কর্ণধার, তা খারিজ করে দিল শীর্ষ আদালত।

সোমবার বিচারপতি ইউইউ ললিত এবং অশোক ভূষণের বেঞ্চ বলে, ‘রিভিউ পিটিশনে আমরা কোনও ভিত্তি খুঁজে পাচ্ছি না। রিভিউ পিটিশন খারিজ করা হল।’

স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়ার  নেতৃত্বে ব্যাঙ্কগুলির কনসোর্টিয়াম থেকে ৯,০০০ কোটি টাকার বেশি ঋণ শোধ না করেই বিদেশে পালিয়ে যাওয়ার অভিযোগ আছে মালিয়ার বিরুদ্ধে। কিন্তু ৪০ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের (বর্তমান হারে ভারতীয় মুদ্রায় ২৯৮.৫৮ কোটি টাকার মতো) একটি লেনদেনের বিষয়ে না জানানোয় তাঁর বিরুদ্ধে অবমাননার পিটিশন দাখিল করেছিল এসবিআই। দিয়েগো থেকে প্রাপ্ত সেই ৪০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার নিজের সন্তানদের অ্যাকাউন্টে পাচার করেছিলেন মালিয়া। সেজন্য ২০১৭ সালের ৯ মে সুপ্রিম কোর্টে দোষী সাব্যস্ত হয়েছিলেন তিনি। ব্যাঙ্কে অর্থ জমা না দিয়ে টাকা সরিয়ে দেওয়ার জন্য তাঁকে দোষী সাব্যস্ত করেছিল শীর্ষ আদালত।

তার পরিপ্রেক্ষিতে রিভিউ পিটিশন দাখিল করে কিংফিশারের কর্ণধার দাবি করেছিলেন, সেই অর্থ তাঁর সম্পত্তির অন্তর্ভুক্ত নয়। একইসঙ্গে সুপ্রিম কোর্টে দোষী সাব্যস্ত হলে আর্জির ক্ষমতাও হারাবেন বলে দাবি করেন মালিয়া।

গত জুনে যখন মামলাটির শুনানি হয়েছিল, তখন অযথা দেরির জন্য রেজিস্ট্রি আধিকারিকদের ব্যাখ্যা চেয়েছিল সুপ্রিম কোর্ট। কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ নথি না পাওয়ায় ৬ অগস্ট ফের স্থগিত হয়ে যায় শুনানি। অবশেষে বৃহস্পতিবার শুনানি হয় এবং রায়দান স্থগিত রাখে ডিভিশন বেঞ্চ।

বন্ধ করুন