বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > মাসি নয়, দাদুর হাতেই অনাথ নাতির দায়িত্ব দিল সুপ্রিম কোর্ট, কারণটা জেনে নিন
দাদু ও নাতি নাতনির মধ্যে আবেগের বন্ধন থাকে। (প্রতীকী ছবি)

মাসি নয়, দাদুর হাতেই অনাথ নাতির দায়িত্ব দিল সুপ্রিম কোর্ট, কারণটা জেনে নিন

  • সুপ্রিম কোর্টের তরফে বলা হয়েছে, এর মানে এটা নয় যে মাসি শিশুটির দায়িত্ব নিতে পারবেন না।আমাদের সমাজে দাদু, ঠাকুমারা সবসময় নাতি নাতনিদের ভালো যত্ন করতে পারেন। এনিয়ে কারোর সংশয় থাকা উচিত নয়

আব্রাহাম থমাস

কোভিডে বাবা ও মা উভয়কেই হারিয়েছিল আমেদাবাদের ৫ বছরের এক শিশু। এদিকে সেই শিশুর ভার কাকে দেওয়া হবে? দাদুকে নাকি মাসিকে? এনিয়ে জল গড়িয়েছিল সুপ্রিম কোর্ট পর্যন্ত। এদিন শীর্ষ আদালত জানিয়ে দিয়েছে দাদু, ঠাকুমারা নাতি, নাতনিদের যত্ন করবেন যথাযথভাবে এনিয়ে কোনও সংশয় নেই।মাসি নয়, দাদুর হাতেই ওই শিশুকে তুলে দিল সুপ্রিম কোর্ট।

এদিকে গত ২মে ৪৬ বছর বয়সী মাসির হাতে শিশুর দায়িত্ব তুলে দিয়েছিল গুজরাত হাইকোর্ট। সেই সময় যুক্তি দেওয়া হয়েছিল তিনি অবিবাহিত। তিনি কেন্দ্রীয় সরকারি চাকরি করেন। তিনি দাহুদে যৌথ পরিবারে থাকেন।

সেই নির্দেশকে খারিজ করে বিচারপতি এম আর শাহ, ও বিচারপতি অনুরুদ্ধ বোসের বেঞ্চ জানিয়েছে, আয়, বয়স, অথবা বড় পরিবারটাই সব নয়। এভাবে নাতির ভরণপোষনের দায়িত্ব থেকে দাদু ঠাকুমাকে সরিয়ে দেওয়া যায় না।

এর সঙ্গেই সুপ্রিম কোর্টের তরফে বলা হয়েছে, এর মানে এটা নয় যে মাসি শিশুটির দায়িত্ব নিতে পারবেন না।আমাদের সমাজে দাদু, ঠাকুমারা সবসময় নাতি নাতনিদের ভালো যত্ন করতে পারেন। এনিয়ে কারোর সংশয় থাকা উচিত নয়। দাদু ঠাকুমারা নাতি নাতনিদের সঙ্গে আবেগের বন্ধনে যুক্ত থাকেন। প্রসঙ্গত ৭১ বছর বয়সী দাদু স্বামীনাথন কুঞ্চু আচার্য একজন অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মী। তিনিই নাতির দায়িত্ব চেয়েছিলেন। 

 

বন্ধ করুন