বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > SC Observation on Parole Verdict By HC: বাবা হতে চাওয়ায় HC-র প্যারোলের নির্দেশ নজির হতে পারে না, পর্যবেক্ষণ SC-র
 প্রতীকী ছবি ; এএনআই (ANI)

SC Observation on Parole Verdict By HC: বাবা হতে চাওয়ায় HC-র প্যারোলের নির্দেশ নজির হতে পারে না, পর্যবেক্ষণ SC-র

  • নন্দলাল নামে ৩৪ বছর বয়সি এক বন্দিকে রাজস্থান হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চ গত ৫ এপ্রিল প্যারোলে মুক্তি দিয়েছে। ১৫ দিনের জন্য সে প্যারোলে মুক্তি পায়। খুনের দায়ে সে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত। সে বাবা হতে চেয়ে ১৫ দিনের মুক্তি চেয়েছিল। এরপরই সেই যুক্তি দেখিয়ে পরপর বন্দিরা ‘বাবা হওয়ার ইচ্ছা’ প্রকাশ করে প্যারোলে মুক্তির আবেদন করছে।

উৎকর্ষ আনন্দ

বাবা হতে চেয়ে স্ত্রীর কাছে যেতে চেয়েছিলেন। আর তাই বন্দিকে প্যারোলে মুক্তি দিয়েছিল রাজস্থান হাই কোর্ট। তবে সেই রায়কে নজির হিসেবে ধরা যায় না। অর্থাৎ, আগামীতে কোনও মামলার ক্ষেত্রে এই উদাহরণ দেখিয়ে যুক্তি সাজানো যাবে না। এমনই পর্যবেক্ষণ দিল সুপ্রিম কোর্ট। এই আবহে অন্য কোনও বন্দি যদি বাবা হতে চেয়ে মুক্তি চায়, সেক্ষেত্রে জেল কর্তৃপক্ষ বা রাজ্য সরকার বিরোধ জানাতে পারে বলেও জানিয়েছ সুপ্রিম কোর্ট। 

উল্লেখ্য, প্যারোল অর্থ যখন কোনও বন্দিকে তাঁর সাজার মেয়াদ পূরণের আগেই সাময়িক ভাবে বা পাকাপাকি ভাবে মুক্তি দেওয়া হয়। সাধারণত ভালো আচরণের জন্য বন্দিদের আগে ছেড়ে দেওয়া হতে পারে। সেটাকেই প্যারোল বলে। তবে সম্প্রতি রাজস্থান হাই কোর্টের এক নির্দেশের পর ‘বাবা হওয়ার ইচ্ছে’ জেগেছে বহু বন্দির মনে। 

আরও পড়ুন: ‘বিশেষ ২ অগস্ট’-এ ‘প্রফাইল পিকচার’ বদলালেন মোদী, অনুসরণ শাহ-হিমন্তদের

উল্লেখ্য, নন্দলাল নামে ৩৪ বছর বয়সি এক বন্দিকে রাজস্থান হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চ গত ৫ এপ্রিল প্যারোলে মুক্তি দিয়েছে। ১৫ দিনের জন্য সে প্যারোলে মুক্তি পায়। খুনের দায়ে সে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত। সে বাবা হতে চেয়ে ১৫ দিনের মুক্তি চেয়েছিল। এরপরই সেই যুক্তি দেখিয়ে পরপর বন্দিরা ‘বাবা হওয়ার ইচ্ছা’ প্রকাশ করে প্যারোলে মুক্তির আবেদন করছে। রাজস্থান হাই কোর্টের বিচারপতি সন্দীপ মেহতা ও ফরজান্দ আলি নন্দলালের মামলায় জানিয়েছিলেন বংশরক্ষার জন্য সন্তানধারনের অধিকার ধর্মীয়ক্ষেত্রে, ভারতীয় সংস্কৃতিতে ও একাধিক রায়ে উল্লেখ করা আছে। দোষীর স্ত্রী কোনও দোষ করেননি। সেক্ষেত্রে তাঁর স্ত্রীর অধিকার কেড়ে নেওয়া যায় না। এদিকে নন্দলাল প্যারোলে স্ত্রীর কাছে যাওয়ার অনুমতি পেতেই একাধিক বন্দি প্য়ারোলে মুক্তির জন্য আবেদন করা শুরু করে। এই আবহে সুপ্রিন কোর্টের এই পর্যবেক্ষণ বেশ তাৎপর্যপূর্ণ।

আরও পড়ুন: মূল্যবৃদ্ধি নিয়ে ভাষণ কাকলির, ২ লাখের ব্যাগ লুকিয়ে দিলেন মহুয়া, অভিযোগ নেটপাড়ার

সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি সঞ্জীব খান্না এবং বিচারপতি বেলা এম ত্রিবেদীর বেঞ্চ বলে, ‘উচ্চ আদালতের আদেশে করা কিছু পর্যবেক্ষণের বিরুদ্ধে আমাদের কিছু আপত্তি আছে। যাইহোক, আমরা এই মামলায় হস্তক্ষেপ করতে আগ্রহী নই। যেহেতু আদেশটি কার্যকর হয়েছে৷ তবে অন্য কোনও আসামি যদি এই যুক্তিতে প্যারোল বা ফার্লো চায় তবে রাজ্যের বিরোধিতা করতে পারবে।’

 

 

 

 

বন্ধ করুন