বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > তবলিগি জামাতের বিদেশিদের কেন কালো তালিকায় ফেললেন? সরকারকে প্রশ্ন আদালতের

তবলিগি জামাতের বিদেশিদের কেন কালো তালিকায় ফেললেন? সরকারকে প্রশ্ন আদালতের

তবলিগি জামাতে অংশগ্রহণকারী বহু বিদেশির প্রবেশ নিষিদ্ধ করা হয়েছে। প্রতীকী ছবি

বিচারপতি এএম খানউইলকার, এএস ওকা ও সিটি রবিকুমার জানিয়েছেন, কোনও বিদেশিকে গুপ্তচর বলে সন্দেহ হলে সরকার ভিসা না দিতে পারে। কিন্তু যদি আপনি ভিসা দেন তবে কি তাকে কোনও সুযোগ না দিয়ে তা বাতিল করতে পারেন? এমনকী আগাম নোটিশ না দিয়ে তাকে কি ব্ল্যাকলিস্ট করতে পারেন?

আব্রাহাম থমাস

২০২০ সালের মার্চ মাসে তবলিগি জামাতে অংশ নিয়েছিলেন প্রচুর বিদেশি। কোভিড পরিস্থিতিতে রাজধানীতে এভাবে জমায়েতকে ঘিরে প্রশ্ন উঠেছিল। আর তার জেরে আগামী ১০ বছরের জন্য ৩৫টি দেশের ৯৬০জন বিদেশিকে ভারতে আসা নিষিদ্ধ করেছে সরকার। এমনকী এব্যাপারে তাঁদের কথাও শোনা হয়নি বলে অভিযোগ। আর এই পদক্ষেপের পেছনে সরকার কতটা যুক্তিপূর্ণ কাজ করেছে তা আগামী সপ্তাহে খতিয়ে দেখবে সুপ্রিম কোর্ট।

বিচারপতি এএম খানউইলকার, এএস ওকা ও সিটি রবিকুমার জানিয়েছেন, কোনও বিদেশিকে গুপ্তচর বলে সন্দেহ হলে সরকার ভিসা না দিতে পারে। কিন্তু যদি আপনি ভিসা দেন তবে কি তাকে কোনও সুযোগ না দিয়ে তা বাতিল করতে পারেন? এমনকী আগাম নোটিশ না দিয়ে তাকে কি ব্ল্যাকলিস্ট করতে পারেন? 

এদিকে ৩৫জন বিদেশি এনিয়ে আবেদন করেছিলেন। তাঁদের দাবি, বৈধ ভিসা নিয়ে তারা এসেছিলেন ভারতে। তবলিগি জামাতে অংশ নিয়েছিলেন। কিন্তু তাদের কালো তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। এমনকী তাঁদের বিরুদ্ধে অপরাধের অভিযোগও আনা হয়েছে।

এদিকে সলিসিটর জেনারেল তুষার মেহেতা জানিয়েছেন, আইন মেনেই করা হয়েছে। দেশের সার্বভৌম অধিকার আছে যে দেশ কাউকে ঢুকতে দিতে না পারে। ভিসা দেশে ঢোকার ছাড়পত্র। তবলিগির কথা ভুলে যান, বড় ইস্যুতেও এই প্রশ্ন উঠতে পারত।

এদিকে বিচারপতিদের বেঞ্চ জানিয়েছে, তিনি যদি আবার আসার জন্য় আবেদন করতেন তবে একটা কথা হত। কিন্তু একতরফাভাবে কি কালো তালিকাভুক্ত করা যায়?  ওরা যদি গ্রুপে আসতেন তবে গ্রুপ লিডারকে নোটিশ দিতেন। এককভাবেও নোটিশ দেওয়া উচিত ছিল। এনিয়ে সরকারকে সোমবার লিখিত হলফনামা জমা দিতে বলেছে আদালত।

বন্ধ করুন