বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > ভোট প্রচারে বেরিয়ে দেদার প্রতিশ্রুতি রাজনৈতিক দলের, রাশ টানতে বড় রায় আদালতের
ভোট প্রচারে বেরিয়ে দেদার প্রতিশ্রুতি দেয় একাধিক রাজনৈতিক দল। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)

ভোট প্রচারে বেরিয়ে দেদার প্রতিশ্রুতি রাজনৈতিক দলের, রাশ টানতে বড় রায় আদালতের

  • সুপ্রিম কোর্টের কাছে আবেদনে জানানো হয়েছিল, পাবলিক ফান্ড নিয়ে ভোটের সময় যা খুশি প্রতিশ্রুতি দেওয়া হচ্ছে। এরকম করলে রাজনৈতিক দলগুলির প্রতীক কেড়ে নেওয়া দরকার। এরপরই এনিয়ে পর্যবেক্ষণের কথা জানিয়েছে আদালত।

ভোটের প্রচারে বেরিয়ে দেদারে নানা প্রতিশ্রুতি বিলিয়ে বেড়ায় রাজনৈতিক দলগুলি। মূলত ভোটারদের প্রলোভিত করতে এই পথ নেয় রাজনৈতিক দলগুলি। এবার এনিয়ে সুপ্রিম কোর্টের পর্যবেক্ষণ, যে ধরনের লোভনীয় প্রতিশ্রুতি ভোট প্রচারে বেরিয়ে করা হচ্ছে তা একটি গুরুত্বপূর্ণ অর্থনৈতিক ইস্যু। এনিয়ে খতিয়ে দেখার জন্য কমিটি তৈরি করা দরকার বলেও উল্লেখ করেছে আদালত।

প্রধান বিচারপতি এনভি রামানা, বিচারপতি কৃষ্ণ মুরারি ও হিমা কোহলি জানিয়েছেন, একটা অ্যাপেক্স বডি দরকার। সেখানে নীতি আয়োগ, ফিনান্স কমিশন, শাসক ও বিরোধী দলের প্রতিনিধি, রিজার্ভ ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়া সহ অন্যান্য প্রতিনিধিদের থাকা দরকার। মূলত এই প্রতিশ্রুতি নিয়ে রাজনৈতিক দলগুলিকে নিয়ন্ত্রণের জন্য় এই কমিটি দরকার।

যারা এই উপটৌকন দিতে চাইছেন ও যারা বিরোধিতা করছেন যেমন আরবিআই, নীতি আয়োগ, বিরোধী রাজনৈতিক দল সকলের থাকা দরকার। কেন্দ্রীয় সরকার, ইলেকশন কমিশন সিনিয়র অ্যাডভোকেট তথা রাজ্যসভার সদস্য কপিল সিবালকে সাতদিনের মধ্যে পরামর্শ দেওয়ার কথা জানানো হয়েছে। মূলত একটি এক্সপার্ট কমিটি তৈরির ব্যাপারে তাদের কাছ থেকে রিপোর্ট চাওয়া হয়েছে।

কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে সলিসিটর জেনারেল তুষার মেহেতা জানিয়েছেন, এই ধরনের প্রতিশ্রুতি অর্থনৈতিক বিপর্যয়ের দিকে দেশকে নিয়ে যেতে পারে। এই মন ভরানো প্রতিশ্রুতি ভোটারদের মধ্যে প্রভাব তৈরি করে।

সুপ্রিম কোর্টের কাছে আবেদনে জানানো হয়েছিল, পাবলিক ফান্ড নিয়ে ভোটের সময় যা খুশি প্রতিশ্রুতি দেওয়া হচ্ছে। এরকম করলে রাজনৈতিক দলগুলির প্রতীক কেড়ে নেওয়া দরকার।  এরপরই এনিয়ে পর্যবেক্ষণের কথা জানিয়েছে আদালত। 

বন্ধ করুন