বাদুড়ের দেহ থেকে সংগহীত সোয়্যাবে ৯৩.৬৯% থেকে ৯৩.৯০% করোনাভাইরাসের উপস্থিতি রয়েছে।
বাদুড়ের দেহ থেকে সংগহীত সোয়্যাবে ৯৩.৬৯% থেকে ৯৩.৯০% করোনাভাইরাসের উপস্থিতি রয়েছে।

দেশের দুই প্রজাতির বাদুড়ের দেহে মিলল করোনাভাইরাসের উপস্থিতি

  • বিশ্বের বেশ কিছু বিজ্ঞানী ইতিমধ্যে বাদুড়বাহিত জীবাণু হিসেবে করোনাভাইরাসকে চিহ্নিত করেছেন।

ভারতের দুটি বাদুড় প্রজাতির মধ্যে করোনাভাইরাসের উপস্থিতি খুঁজে পাওয়া গেল। সম্প্রতি এই তথ্য জানিয়েছেন আইসিএমআর-এর গবেষকরা।

সাধারণত বেশ কিছু রোগের জীবাণু বহন করে বাদুড়ের শরীর। এর আগে নিপা, ইবোলা, হেনড্রা, মারবার্গ ও জলাতঙ্ক সৃষ্টিকারী ভাইরাসের সন্ধান মিলেছে তাদের শরীরে।

এই রোগগুলির বেশ কয়েকটিই পরে মহামারীর রূপ নিয়েছে। বিশ্বের বেশ কিছু বিজ্ঞানী ইতিমধ্যে বাদুড়বাহিত জীবাণু হিসেবে করোনাভাইরাসকে চিহ্নিত করেছেন।

ভারতে প্রায় ১১৭ প্রজাতির বাদুড় দেখা যায়। তাদের মধ্যে আবার ১০০টি উপপ্রজাতির সন্ধান মেলে।

গত ১৩ এপ্রিল প্রকাশিত ইন্ডিয়ান জার্নাল অফ মেডিক্যাল রিসার্চ পত্রিকায় প্রকাশিত গবেষণাপত্রে বলা হয়েছে, ‘বাদুড়ের দেহে করোনাভাইরাসের সন্ধান করতে আমরা ২০১৮ ও ২০১৯ সালে পি. মেডিয়াস ও রুসেটাস প্রজাতির বাদুড়দের বেছে নিই ভারতের বিভিন্ন রাজ্য থেকে।’

জানা গিয়েছে, কেরালা, কর্নাটক, চণ্ডীগড়, গুজরাট, ওডিশা, পঞ্জাব ও তেলাঙ্গনা থেকে Pteropus spp. প্রজাতির বাদুড়ের দেহ থেকে নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পরীক্ষা করে দেখা যায়, বাদুড়ের দেহ থেকে সংগহীত সোয়্যাবে ৯৩.৬৯% থেকে ৯৩.৯০% করোনাভাইরাসের উপস্থিতি রয়েছে।

দেখা গিয়েছে, দুই প্রজাতি মিলিয়ে প্রায় ২৫টি বাদুড়ের মধ্যে এই ভাইরাসের উপস্থিতি রয়েছে।

বন্ধ করুন