বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাক্সিন ভারতে চালু করার আগে তথ্য যাচাইয়ের সময় চাইল বিশেষজ্ঞ কমিটি
ভারতে ব্যবহারের আগে সেরাম ইনস্টিটিউট-এর দেওয়া ভ্যাক্সিন সংক্রান্ত তথ্য বিশ্লেষণের জন্য শুক্রবার বৈঠকে বসছে বিশেষজ্ঞ কমিটি। 
ভারতে ব্যবহারের আগে সেরাম ইনস্টিটিউট-এর দেওয়া ভ্যাক্সিন সংক্রান্ত তথ্য বিশ্লেষণের জন্য শুক্রবার বৈঠকে বসছে বিশেষজ্ঞ কমিটি। 

অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাক্সিন ভারতে চালু করার আগে তথ্য যাচাইয়ের সময় চাইল বিশেষজ্ঞ কমিটি

  • কোভিড ভ্যাক্সিন ভারতে ব্যবহারের আগে সেরাম ইনস্টিটিউট ও ভারত বায়োটেক-এর দেওয়া অতিরিক্ত তথ্য যাচাই করার জন্য শুক্রবার পর্যন্ত সময় চাইল বিশেষজ্ঞ কমিটি।

ব্রিটেনে আপৎকালীন ব্যবহারের জন্য অনুমোদন দেওয়া হলেও অ্যাস্ট্রাজেনেকার তৈরি কোভিড ভ্যাক্সিন ভারতে ব্যবহারের আগে সেরাম ইনস্টিটিউট ও ভারত বায়োটেক-এর দেওয়া অতিরিক্ত তথ্য যাচাই করার জন্য সময় চাইল বিশেষজ্ঞ কমিটি। বুধবার এক বিবৃতিতে এমনই জানিয়েছে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রক।

ভ্যাক্সিন চালু করার প্রস্তাব খতিয়ে দেখতে জাতীয় ড্রাগ কন্ট্রোলার জেনারেল ভি জি সোমানির গড়ে দেওয়া স্বাধীন বিশেষজ্ঞ কমিটি (SEC) এই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে আগামী শুক্রবার বৈঠকে বসছে। সে দিন ফাইজার-এর তৈরি ভ্যাক্সিন সম্পর্কেও প্রস্তাব পর্যালোচনা করবে কমিটি, জানিয়েছে মন্ত্রক। উল্লেখ্য, এর আগে ভারতে তাদের তৈরি কোভিড ভ্যাক্সিন আমদানি করার জন্য আবেদন জানিয়েছিল ফাইজার। সেই সঙ্গে ভারতে ওই টিকার ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল যাতে দিতে না হয়, সেই আবেদনও জানিয়েছে উৎপাদক সংস্থা।

ভ্যাক্সিনের অনুমোদন সংক্রান্ত দুই সংস্থার প্রস্তাব শুক্রবার পর্যন্ত পর্যালোচনার জন্য পিছিয়ে দেওয়ায় সুবিধে হল সেরাম ইনস্টিটিউটের, কারণ এ দিনই ব্রিটেনে আপৎকালীন ব্যবহারের জন্য অনুমোদন পেয়েছে অ্যাস্ট্রাজেনেকার তৈরি ভ্যাক্সিন। 

অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় ও অ্যাস্ট্রাজেনেকার তৈরি এই ভ্যাক্সিন ‘কোভিশিল্ড’ ভারতে উৎপাদন করেছে সেরাম ইনস্টিটিউট। প্রস্তাব অনুযায়ী, চার থেকে বারো সপ্তাহের ব্যবধানে দুটি সম্পূর্ণ ডোজ টিকা কোভিড সংক্রমণ প্রতিরোধে সফল হবে। 

ভারতে কোভিশিল্ড-এর জরুরিভিত্তিক প্রয়োগের জন্য ডিসেম্বরের গোড়ায় SEC-এর কাছে আবেদন জানিয়েছিল সেরাম ইনস্টিটিউট। এর পর ভ্যাক্সিন সংক্রান্ত আরও তথ্য এসআইআই-কে চেয়ে পাঠায় বিশেষজ্ঞ কমিটি। 

এ দিন ব্রিটিশ সরকার অ্যাস্ট্রার ভ্যাক্সিনকে জরুরিভিত্তিক প্রয়োগের অনুমোদন দেওয়ায় ভারতেও তার অনুমোদন সম্পর্কে আশা প্রকাশ করেন এসআইআই প্রধান আদার পুনাওয়ালা। তাঁর মতে, গোড়ায় ছয় মাস চাহিদা অনুযায়ী ভ্যাক্সিন উৎপাদন কিছুকম হলেও পরে টিকা সরবরাহে কোনও অসুবিধা দেখা দেবে না। 

বন্ধ করুন