বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > Shraddha Murder Case: ‘বিছানা থেকে ওঠার শক্তি নেই’, ধারাবাহিক ভাবে আফতাবের হিংসার শিকার হতেন শ্রদ্ধা!

Shraddha Murder Case: ‘বিছানা থেকে ওঠার শক্তি নেই’, ধারাবাহিক ভাবে আফতাবের হিংসার শিকার হতেন শ্রদ্ধা!

শ্রদ্ধা ওয়াকর।

শ্রদ্ধার ওপর আফতাবের অকথ্য অত্যাচার নিয়ে এবার মুখ খুললেন মৃত তরুণীর প্রাক্তন সহকর্মী। 

শ্রদ্ধা ওয়াকরকে খুন করা হয় চলতি বছরের ১৮ মে। তবে তার বহু আগের থেকেই শ্রদ্ধার ওপর অকথ্য অত্যাচার চালাত আফতাব আমিন পুনাওয়ালা। আফতাবের ভয়ঙ্কর আচরণের উদাহরণ ক্রমেই প্রকাশ্যে আসছে। আফতাব কথায় কথায় শ্রদ্ধা মারধর করত বলে অভিযোগ করেন শ্রদ্ধার ম্যানেজার তথা বন্ধ করণ। সংবাদমাধ্যমকে করণ জানান, শ্রদ্ধা নিজেই মারধোরের কথা জানিয়েছিলেন তাঁকে। এর আগে শ্রদ্ধার বন্ধু এবং পরিবারও অত্যাচারের অভিযোগ তুলেছিলেন।

করণ জানান, তিনি শ্রদ্ধাকে সাহায্য করার চেষ্টা করতেন এবং নিয়মিত খোঁজখবর নিতেন। শ্রদ্ধা এবং করণের একটি হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাটের ছবি ফাঁস হয়েছে। তাতে দেখা যাচ্ছে শ্রদ্ধা জানাচ্ছেন যে তাঁকে আফতাব মেরেছে এবং তাঁর গোটা শরীরে প্রচণ্ড ব্যাথা। এই কারণে তিনি অফিস থেকে একদিনের ছুটি চান। চ্যাটের স্ক্রিনশট অনুযায়ী, আফতাবের মা-বাবার সঙ্গে কথা বলে শ্রদ্ধা সমস্যার সমাধান সূত্র খুঁজে বের করার চেষ্টা করেন। তিনি করণকে আরও জানিয়েছিলেন যে আফতাবকে বাড়ি ছাড়তে বলেন তিনি।

শ্রদ্ধার প্রাক্তন সহকর্মী করণ জানান, ২০২০ সালের নভেম্বর মাসে তিনি প্রথমবার শ্রদ্ধার ওপর হওয়া অত্যাচারের কথা জানতে পেরেছিলেন। তিনি আরও জানান, শ্রদ্ধা তার আগেও অসুস্থতার কারণে ছুটি নিতেন। সংবাদমাধ্যমকে করণ বলেন, ‘হোয়াটসঅ্যাপে একদিন আমাকে শ্রদ্ধা নিজের একটা ছবি পাঠিয়েছিল। শ্রদ্ধার ডান চোখে আঘাত ছিল, গলায় আঘাতের চিহ্ন ছিল। সেই ছবি দেখে আমি ভেঙে পড়েছিলাম। আমি অবাক হয়ে গিয়েছিলাম যে কেউ কী করে এমন অত্যাচার করতে পারে।’ করণ জানান, শ্রদ্ধার এক বন্ধুর থেকে জানতে পেরেছিলেন যে তাঁর পেটে পোড়া দাগ ছিল।

বন্ধ করুন