বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > পঞ্চায়েতের বাধা, এক পরিবারের আপত্তি কাটিয়ে শেষপর্যন্ত বিয়ে করলেন দিদি ও বোন
প্রতীকী ছবি
প্রতীকী ছবি

পঞ্চায়েতের বাধা, এক পরিবারের আপত্তি কাটিয়ে শেষপর্যন্ত বিয়ে করলেন দিদি ও বোন

মঙ্গলসূত্র পরানো থেকে শুরু করে সিঁদুর দান সবকিছুই হয়েছে রীতিনীতি মেনে। সামনে দাঁড়িয়ে বিয়ে দিয়েছেন তাঁদেরই এক দাদা।

অনেকদিন ধরেই দুজনের মধ্যে প্রেম চলছিল। পরিবারের অমতে এতদিন হয়নি। তবে এবার চার হাত এক হয়ে গেল। বোনকে বিয়ে করলেন দিদি।এই ঘটনার সাক্ষী থাকল পঞ্জাবের লুধিয়ানা।

দেশের শীর্ষ আদালত সমকামীদের মধ্যে বিবাহে স্বীকৃতি দিয়েছে। কিন্তু সমাজ এখনও তা পুরোপুরি মেনে নিতে পারেনি। কিন্তু পঞ্জাবের লুধিয়ানার স্বাদ্দি পশ্চিম গ্রাম যে এসবের থেকে অনেক এগিয়ে সেই দৃষ্টান্তই স্থাপন করল। শুধু স্বাদ্দি পশ্চিম গ্রামই বা কেন, স্বাদ্দি কালান গ্রামের কথাও না বললেই নয়। দিদি ও বোন দুজনই লুধিয়ানার দুই আলাদা আলাদা গ্রামের মেয়ে। গত মঙ্গলবার গ্রামবাসীদের পূর্ণ সমর্থনে দুজনের মধ্যে বিবাহ হয়। সমস্ত সামাজিক রীতিনীতি মেনেই মন্ত্র উচ্চারণের মাধ্যমে বিবাহ হয়েছে। সেই বিবাহ অনুষ্ঠান ভিডিওতে আপলোড করা হয় ও তা ভাইরালও হয়ে যায়। মঙ্গলসূত্র পরানো থেকে শুরু করে সিঁদুর দান সবকিছুই হয়েছে রীতিনীতি মেনে। সামনে দাঁড়িয়ে বিয়ে দিয়েছেন তাঁদেরই এক দাদা। দুই বোনের মধ্যে মালাদানের ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে গিয়েছে।

এক গ্রামের পঞ্চায়েত প্রধান লাল সিং জানান, ‘‌দুই পরিবার যখন এই বিয়ে মেনে নিয়েছে, তখন আর তাঁদের কিছু বলার নেই। দু'বছর আগেই এরা দুজনে বিয়ে করার চেষ্টা করেছিল। তখন অবশ্য পঞ্চায়েত থেকে এই বিয়েতে বাধা দানের চেষ্টা হয়েছিল।’‌ জানা গিয়েছে, দুই বোনের মধ্যে একজনের পরিবারের থেকে জানানো হয়েছে, তাঁরা তাঁদের মেয়ের মুখ আর ভবিষ্যতে দেখতে চান না। 

উল্লেখ্য, যে দুজনের মধ্যে বিবাহ সম্পন্ন হয়েছে, তাঁরা তুতো সম্পর্কের। নিজের বোন বা দিদি নন। গোটা ঘটনাটি পুলিশকেও জানানো হয়। যদিও লুধিয়ানা গ্রামীণের পুলিশ সুপার চিরঞ্জিৎ সিং জানিয়েছেন, যখন দু'জন প্রাপ্তবয়স্ক একে অপরের সঙ্গে বিবাহ সম্পর্কে লিপ্ত হচ্ছে, সেখানে পুলিশের কিছু করার থাকে না।

বন্ধ করুন