বাড়ি > ঘরে বাইরে > ‘ফেয়ার অ্যান্ড লাভলি’ থেকে বাদ পড়ছে 'ফেয়ার',বড় সিদ্ধান্ত বহুজাতিক সংস্থার
ফেয়ার অ্যান্ড লাভলি থেকে বাদ পড়ছে ফেয়ার!  (REUTERS)
ফেয়ার অ্যান্ড লাভলি থেকে বাদ পড়ছে ফেয়ার!  (REUTERS)

‘ফেয়ার অ্যান্ড লাভলি’ থেকে বাদ পড়ছে 'ফেয়ার',বড় সিদ্ধান্ত বহুজাতিক সংস্থার

  • বর্ণবিদ্বেষমূলক তকমা ঝেড়ে ফেলতে এবার নাম পরিবর্তন করছে ফেয়ারনেস ক্রিম- ‘ফেয়ার অ্যান্ড লাভলি’।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে শ্বেতাঙ্গ পুলিশ কর্মীর হাতে কৃষ্ণাঙ্গ জর্জ ফ্লয়েডের হত্যার পর থেকে গোটা বিশ্বে বর্ণবিদ্বেষবিরোধী আন্দোলন জোরালো হয়েছে। আর সেই আন্দোলনের আঁচ থেকে রক্ষা পায়নি দেশ-বিদেশের ফেয়ারনেস ক্রিম প্রস্তুতকারক সংস্থাগুলি। ‘ফেয়ার অ্যান্ড লাভলি’-র নামের মধ্যেই বর্ণবিদ্বেষী মনোভাব খুঁজে পেয়েছিলেন নেটিজেনরা। সেই নিয়ে ব্যাপক শোরগোল শুরু হয় নেটদুনিয়ায়। এবার কনসিউমার জায়েন্ট ইউনিলিভারের ভারতীয় শাখা হিন্দুস্তান ইউনিলিভার বৃহস্পতিবার ঘোষণা করল ফেয়ার অ্যান্ড লাভলির নতুন করে ব্র্যান্ডিং করা হবে তাঁদের তরফে। এবং নাম থেকে বাদ দেওয়া হবে ‘ফেয়ার’ শব্দটা। 

হিন্দুস্তান ইউনিলিভারের তরফে জারি আনুষ্ঠানিক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, 'কোম্পানির স্কিনকেয়ার পোর্টফোলিও বা ত্বকের যত্নে ব্যবহৃত প্রসাধন পণ্য সব রঙের স্কিন টোনের জন্য এবং সৌন্দর্যের প্রতিটি বৈচিত্রই অনন্য। এরই ধারাবাহিকতায় কোম্পানির ফ্ল্যাগশিপ ব্র্যান্ড ‘ফেয়ার অ্যান্ড লাভলি’র নাম পরিবর্তন করতে যাচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি।

ইউনিলিভারের তরফে এই ঘোষণা আসবার দিনকয়েক আগে অপর এক প্রসাধনী কোম্পানি জনসন অ্যান্ড জনসন তাঁদের স্ক্রিন হোয়াইটনিং ক্রিম বা রঙ ফর্সা হওয়ার ক্রিম বিক্রি বন্ধের কথা ঘোষণা করেছে।

সংবাদ সংস্থা রয়টার্সের মতো সোশ্যাল মিডিয়ায় ফেয়ার অ্যান্ড লাভলির বিরুদ্ধে জনগনের গর্জে উঠবার ভিত্তিতেই এই সিদ্ধান্ত। তবে এটি সহজ প্রতিক্রিয়া নয়, ফেয়ার অ্যান্ড লাভলির নতুন নাম অনুমোদনের জন্য গিয়েছে। সেই প্রক্রিয়া শেষ হলেই নতুন নামে ও নতুন রূপে সামনে আসবে ফেয়ার অ্যান্ড লাভলি, জানিয়েছেন হিন্দুস্তান ইউনিলিভার লিমিটেডের চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক সঞ্জীব মেহতা।

এখন থেকে ফেয়ার অ্যান্ড লাভলির বিজ্ঞাপনেও স্ক্রিন হোয়াটইনিং বা ত্বকের রঙ উজ্জ্বল করার বিষয়টি বাদ পড়ছে,তার বদলে স্ক্রিন ডিটক্স, স্ক্রিন রেজুভেনেশনের মতো বিষয়গুলি মাথায় রেখে নতুন অবতারে সামনে আনা হবে এই ক্রিমকে। অর্থাত্ এখন থেকে প্রোডাক্ট বিক্রির ক্ষেত্রে ত্বকের স্বাস্থ্যের দিকে নজর দিতে চায় হিন্দুস্তান ইউনিলিভার লিমিটেড।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্য অনুসারে, সারা বিশ্বেই রঙ ফর্সাকারি ক্রিমের ব্যবহার রয়েছে, তবে দক্ষিন এশিয়ায় এর দেশগুলিতে এগুলির ব্যবহার সবচেয়ে বেশি। চিন, ভারতসহ এশিয়ার দেশগুলির প্রায় ৪০ শতাংশ নারী এই ধরনের  তথাকথিত ‘ফেয়ারনেস ক্রিম’ ব্যবহার করেন। জানা গিয়েছে ফেয়ার অ্যান্ড লাভলির নামে পাল্টে- 'কেয়ার অ্যান্ড লাভলি, ফ্রেস অ্যান্ড লাভলি অথবা  ডেয়ার অ্যান্ড লাভলি-এই নামগুলির মধ্যে থেকে একটিকে বেছে নেওয়া হতে পার, তবেএখনও চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়নি। 

বন্ধ করুন