বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > Pregnant Dog Killed: গর্ভবতী কুকুরকে নৃশংসভাবে মারধর করে খুন! ভিডিয়ো ভাইরল হতেই এফআইআর দায়ের

Pregnant Dog Killed: গর্ভবতী কুকুরকে নৃশংসভাবে মারধর করে খুন! ভিডিয়ো ভাইরল হতেই এফআইআর দায়ের

গর্ভবতী কুকুরকে মারধর করে হত্যা পড়ুয়ার।

শনিবার থেকে ভাইরাল হওয়া এই ভিডিয়োয় দেখা যাচ্ছে কয়েকজন কম বয়সী প্রথমে একটি গর্ভবতী কুকুরকে মারধর করছে। পরে তাকে হত্যা করে তারা। দেহ টেনে নিয়ে একটি মাঠে রেখে দেয় তারা। যে মাঠে রাখা হয় এই দেহ, সেইটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব মাঠ বলে মনে করা হচ্ছে। সন্দেহ করা হচ্ছে যে, এই ঘটনায় শুধু পড়ুয়ারাই নয়, সঙ্গে জড়িত রয়েছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কর্মীরাও।

সদ্য এক কুকুরকে ঝুলিয়ে দিয়ে তাকে ফাঁস আটকে হত্যার নৃশংস ভিডিয়ো প্রকাশ্যে এসেছিল। সেই ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতে আরও এক ঘটনায় নারকীয়ভাবে কুকুরকে হত্যার আরও একটি ঘটনা প্রকাশ্যে আসতে থাকে। ভিডিয়োয় দেখা যাচ্ছে, এক গর্ভবতী কুকুরকে মেরে তার দেহ টেনে একটি মাঠে নিয়ে যাচ্ছে কিছু পড়ুয়া। মনে করা হচ্ছে দক্ষিণ পূর্ব দিল্রির কোনও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে তাঁরা পড়ে।

শনিবার থেকে ভাইরাল হওয়া এই ভিডিয়োয় দেখা যাচ্ছে কয়েকজন কম বয়সী প্রথমে একটি গর্ভবতী কুকুরকে মারধর করছে। পরে তাকে হত্যা করে তারা। দেহ টেনে নিয়ে একটি মাঠে রেখে দেয় তারা। যে মাঠে রাখা হয় এই দেহ, সেইটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব মাঠ বলে মনে করা হচ্ছে। সন্দেহ করা হচ্ছে যে, এই ঘটনায় শুধু পড়ুয়ারাই নয়, সঙ্গে জড়িত রয়েছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কর্মীরাও। ভয়ঙ্কর এক ভিডিয়োয় দেখা যাচ্ছে, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে একটি বেসবল ব্যাট দিয়ে হামলা চালানো হচ্ছে ওই গর্ভবতী কুকুরের ওপর। (গোটা ঘটনার যে ভিডিয়ো ভাইরাল হয়েছে তার সত্য়তা যাচাই করেনি হিন্দুস্তান টাইমস বাংলা। ভিডিয়ো বিচলিত করার মতো, তাই তা শেয়ার করা হল না।)

এদিকে, এই ভিডিয়ো সোশ্যাল মিডিয়ায় আসতেই তা নিয়ে দিল্লির নিউ ফ্রেন্ডস কলোনি পুলিশ স্টেশনে এফআইআর দায়ের করা হয়েছে। এর আগে গাজিয়াবাদে সদ্য তিনজনে মিলে একটি কুকুরকে হত্যা করার ভিডিয়ো সামনে আসে। সেখানে একটি চেন থেকে কুকুরটিকে ঝুলিয়ে দিয়ে তাকে হত্যা করা হয়। সেই ভয়ানক ভিডিয়ো ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়িয়ে ছিল। সেই ঘটনায় অভিযুক্তরা আটক হয়েছে সদ্য।  এই ধরনের পর পর ঘটনায় ইতিমধ্যেই উদ্বেগ প্রকাশ করেছে পশুকল্যাণ মূলক সংস্থা পেটা। পেটা-র ট্রাস্টি অম্বিকা শুক্লা বলছেন, এই ধরনের ঘটনা বেড়ে যাওয়া সমাজে হিংসা ছড়ানোর ক্ষেত্রেও প্রভাব ফেলে। 

 

 

 

 

 

বন্ধ করুন