বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > Karnataka Hijab Row in Supreme Court: ‘পরীক্ষার সময় যেন হিজাব পরতে পারি’, সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ কর্ণাটকের ছাত্রীরা

Karnataka Hijab Row in Supreme Court: ‘পরীক্ষার সময় যেন হিজাব পরতে পারি’, সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ কর্ণাটকের ছাত্রীরা

প্রতীকী ছবি (এএনআই) (Imran Nissar)

Karnataka Hijab Row in SC: রাজ্যের সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলিতে হিজাব পরে পরীক্ষায় বসার অনুমতি চেয়ে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হলেন কর্ণাটকের একাধিক ছাত্রী।

রাজ্যের সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলিতে হিজাব পরে পরীক্ষায় বসার অনুমতি চেয়ে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হলেন কর্ণাটকের একাধিক ছাত্রী। এদিকে সর্বোচ্চ আদালতে আবেদনটি উল্লেখ করার পরে ভারতের প্রধান বিচারপতি ধনঞ্জয় ওয়াই চন্দ্রচূড় আজ বলেন, ২০২২ সালের অক্টোবরে পূর্ববর্তী বেঞ্চের দুই বিচারপতির বিভক্ত রায় দিয়েছিলেন। এই পরিপ্রেক্ষিতে বিষয়টি তিন বিচারপতির বৃহত্তর বেঞ্চে পাঠানো হবে। আর তাই নতুন বেঞ্চ গঠনের বিষয়ে বিবেচনা করবেন তিনি। মামলাকারীকে রেজিস্ট্রারের কাছে একটি নোট জমা দিতে বলেন প্রধান বিচারপতি। জাস্টিস চন্দ্রচূড় জানান, তিনি এই মামলার একটি দিন নির্ধারণ করে দেবেন। (আরও পড়ুন: 'ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে যুদ্ধে নামার সাহস দেখিয়ে ছিলেন একজনই',নেতাজি বন্দনা ভাগবতের)

মামলাকারীর বক্তব্য, সরকারি প্রতিষ্ঠানে হিজাব পরার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করার জেরে অনেকেই বেসরকারি কলেজে চলে গিয়েছেন। তবে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হতে পারে শুধুমাত্র সরকারি কলেজেই। তাই পরীক্ষার সময় হিজাব পরার অন্তর্বর্তীকালীন রায়ের দাবিতে এই মামলা করা হয়। প্রসঙ্গত, হিজাব বিতর্ক নিয়ে কর্ণাটক হাই কোর্টের রায়ে অসন্তুষ্ট হয়ে সুপ্রিম কোর্টে দ্বারস্থ হয়েছিলেন মামলাকারীরা। কর্ণাটক হাই কোর্ট এর আগে রায় দেয়, হিজাব মুসলিমদের জন্য বাধ্যতামূলক নয়। সেই ক্ষেত্রে স্কুল বা কলেজের ইউনিফর্ম মেনেই পড়ুয়াকে শ্রেণিকক্ষে ঢুকতে হবে। এই রায়কে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে পড়ুয়ারা শীর্ষ আদালতের দ্বারস্থ হন। সেই আবেদনের প্রেক্ষিতে ভিন্নমত পোষণ করেন সুপ্রিম কোর্টের দুই বিচারপতির বেঞ্চ। বিচারপতি হেমন্ত গুপ্ত আবেদন খারিজ করার পক্ষে রায় দেন এবং হিজাবের উপর নিষেধাজ্ঞা বহাল রাখেন। এদিকে বিচারপতি শুধাংশু ধুলিয়াঁ আবেদন অনুযায়ী হিজাবের উপর থেকে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের পক্ষে রায় দেন।

এর আগে কর্ণাটক হাই কোর্টের পূর্ণ বেঞ্চ রায় দেয়, মুসলিম নারীদের হিজাব পরা বাধ্যতামূলক নয়। এর ফলে রাজ্য সরকারের তরফে জারি করা নিষেধাজ্ঞা বহাল রাখার পক্ষেই রায় দেয় উচ্চ আদালত। এই রায়দানের কয়েক ঘণ্টা পরই সুপ্রিম কোর্টে মামলা দায়ের করেন এক পড়ুয়া। তাঁর বক্তব্য, উচ্চ আদালত ধর্মের স্বাধীনতা এবং বিবেকের স্বাধীনতার মধ্যকার দ্বিধাবিভক্তি বুঝতে ভুল করেছে। এখানে আদালত অনুমান করেছে যে যারা ধর্ম অনুসরণ করে তাদের বিবেকের অধিকার থাকতে পারে না।

এই খবরটি আপনি পড়তে পারেন HT App থেকেও। এবার HT App বাংলায়। HT App ডাউনলোড করার লিঙ্ক https://htipad.onelink.me/277p/p7me4aup

বন্ধ করুন