বাড়ি > ঘরে বাইরে > অযোধ্যায় মসজিদ এবং ২০০ শয্যার মাল্টি স্পেশ্যালিটি হাসপাতাল গড়ছে সুন্নি বোর্ড
ধন্যিপুরের ৫ একর জমির উপরে মসজিদের সঙ্গে ২০০ শয্যার আন্তর্জাতিক মানের মাল্টি স্পেশ্যালিটি হাসপাতাল নির্মাণ করছে IICF।
ধন্যিপুরের ৫ একর জমির উপরে মসজিদের সঙ্গে ২০০ শয্যার আন্তর্জাতিক মানের মাল্টি স্পেশ্যালিটি হাসপাতাল নির্মাণ করছে IICF।

অযোধ্যায় মসজিদ এবং ২০০ শয্যার মাল্টি স্পেশ্যালিটি হাসপাতাল গড়ছে সুন্নি বোর্ড

  • হাসপাতালে থাকবে থাকবে ক্যানসার, অঙ্গ প্রতিস্থাপন, মেরুদণ্ড, হার্ট, রোবোটিকস, অর্থোপেডিক ও এমার্জেন্সি-সহ বিভিন্ন বিভাগ।

অযোধ্যার ধন্যিপুর গ্রামে পাওয়া ৫ একর জমির উপরে মসজিদের সঙ্গে ২০০ শয্যার আন্তর্জাতিক মানের মাল্টি স্পেশ্যালিটি হাসপাতাল নির্মাণ করা হবে, জানাল ইন্দো-ইসলামিক কালচারাল ফাউন্ডেশন (IICF)।

সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে মসজিদ নির্মাণের জন্য উত্তর প্রদেশ সরকারের দেওয়া ওই জমিতে অত্যাধুনিক হাসপাতাল গড়ার কথা আগেই জানিয়েছিল উত্তর প্রদেশ সুন্নি কেন্দ্রীয় ওয়াকফ বোর্ডের এই ট্রাস্ট। ওই জমির উপরে প্রস্তাবিত ইন্দো-ইসলামিক কমপ্লেক্সের অধিকাংশ এলাকাজুড়েই থাকছে হাসপাতাল। এ ছাড়াও কমপ্লেক্সে থাকছে একটি মিউজিয়াম ও গ্রন্থাগার।

মঙ্গলবার IICF মুখপাত্র আতর হুসেন জানিয়েছেন, ‘অত্যাধুনিক পরিষেবাযুক্ত একটি মাল্টি স্পেশ্যালিটি হাসপাতাল গড়ার পরিকল্পনা করা হয়েছে। দুই দফায় সম্পূর্ণ হবে হাসপাতালটি। প্রথম দফায় ১০০ শয্যার ব্যবস্থা করা হবে। বাকি ১০০ শয্যা দ্বিতীয় দফায় স্থাপন করা হবে।’ 

ট্রাস্টের সদস্যরা জানিয়েছেন, হাসপাতালে সুচিকিৎসার জন্য থাকবে ক্যানসার, অঙ্গ প্রতিস্থাপন, মেরুদণ্ড, হার্ট, রোবোটিকস, অর্থোপেডিক ও এমার্জেন্সি-সহ বিভিন্ন বিভাগ। হাসপাতাল সূত্রে সমাজসেবার পাশাপাশি সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষার পরিকল্পনাও করা হয়েছে। 

গত ১ সেপ্টেম্বর সমগ্র কমপ্লেক্স নির্মাণের কাজে জামিয়া মিলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন ডিন অফ ফ্যাকাল্টি তথা লখনউয়ের সুবিখ্যাত এক স্থপতিকে নিযুক্ত করেছে IICF। এ ছাড়া কমপ্লেক্সের ফুড আর্কাইভের কনসাল্ট্যান্ট কিউরেটরের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে শিক্ষাবিদ তথা স্বনামধন্য খাদ্য সমালোচক পুষ্পেশ পন্থের উপরে। 

 

বন্ধ করুন