বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > Supreme Court on Demonetisation: ‘RBI কী জানিয়েছিল?’ নোট বাতিলের প্রভাব নিয়ে কেন্দ্রকে প্রশ্ন সুপ্রিম কোর্টের

Supreme Court on Demonetisation: ‘RBI কী জানিয়েছিল?’ নোট বাতিলের প্রভাব নিয়ে কেন্দ্রকে প্রশ্ন সুপ্রিম কোর্টের

নোট বাতিলের প্রভাব নিয়ে কেন্দ্রকে প্রশ্ন সুপ্রিম কোর্টের

নোট বাতিলের সময় ১৭.৯৭ লক্ষ কোটি টাকা মূল্যের নোট ছিল বাজারে। এর মধ্যে ৫০০ ও ১০০০ টাকার নোটের মূল্য ছিল ১৫.৪৪ লক্ষ কোটি টাকা। সেই টাকার ৯৮.৯ শতাংশ বা ১৫.৩১ লক্ষ কোটি টাকার নোটই ফিরে আসে ব্যাঙ্কগুলির কাছে।

নোট বাতিল সংক্রান্ত মামলার শুনানি চলছে সুপ্রিম কোর্টে। সেই শুনানি চলাকালীনই এবার কেন্দ্রের উদ্দেশে সুপ্রিম কোর্টের তরফে প্রশ্ন করা হল, নোট বাতিলের প্রভাব সম্পর্কে সরকারকে অবগত করা হয়েছিল কি না। শুক্রবার সুপ্রিম কোর্ট প্রশ্ন করে, আরবআই কিসরকারকে জানিয়েছিল যে নোট বাতিলের ফলে দেশের ৮৬ শতাংশ নোটই বাতিল হবে? এদিকে নোট বাতিলের প্রক্রিয়া নিয়েই শুক্রবার প্রশ্ন তুলে দেন বর্ষীয়ান আইনজীবী তথা কংগ্রেস নেতা পি চিদাম্বরম। তিনি বলেন, ‘কেন্দ্রীয় সরকার নিজেদের উদ্যোগে ব্যাঙ্কনোট বাতিলের প্রস্তাব করতে পারে না। এমন পদক্ষেপ একমাত্র রিজার্ভ ব্যাঙ্কের সুপারিশের ভিত্তিতে হতে পারে।’

সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি সৈয়দ আবদুল নাজিরের নেতৃত্বাধীন ৫ বিচারপতির সাংবিধানিক বেঞ্চে কেন্দ্রের নোট বাতিল সংক্রান্ত মামলার শুনানি চলছে। এই বেঞ্চে রয়েছেন বিচারপতি বিআর গাভাই, বিচারপতি এএস বোপান্না, বিচারপতি ভি রামাসুব্রাহ্মাণিয়ান এবং বিচারপতি বিভি নাগারত্না। নোট বাতিল সংক্রান্ত ৫৮টি আবেদনের প্রেক্ষিতে মামলার শুনানি হচ্ছে। এই আবহে সুপ্রিম কোর্টের সাংবিধানিক বেঞ্চ সরকারের কাছে জানতে চেয়েছে, ‘আরবিআই যদি সরকারকে নোট বাতিল সংক্রান্ত যাবতী তথ্য দিয়ে থাকত, তাহলেও কি সরকার এই পদক্ষেপ করত?’

প্রসঙ্গত, নোট বাতিলের সময় ১৭.৯৭ লক্ষ কোটি টাকা মূল্যের নোট ছিল বাজারে। এর মধ্যে ৫০০ ও ১০০০ টাকার নোটের মূল্য ছিল ১৫.৪৪ লক্ষ কোটি টাকা। সেই টাকার ৯৮.৯ শতাংশ বা ১৫.৩১ লক্ষ কোটি টাকার নোটই ফিরে আসে ব্যাঙ্কগুলির কাছে। ২০১৬ সালের ৮ নভেম্বর ১০০০ টাকা এবং ৫০০ টাকার নোট রাতারাতি বাতিল করে দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। কালো টাকা রোধ করতেই সেই পদক্ষেপ করা হয়েছিল। তবে সরকারের সেই পদক্ষেপের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে দায়ের হয়েছিল জনস্বার্থ মামলা। এর প্রেক্ষিতে আরবিআই এবং কেন্দ্রের থেকে হলফনামা চেয়েছিল শীর্ষ আদালত।

বন্ধ করুন