বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > করোনা আবহে বকরি ইদে ছাড় কেন? সুপ্রিম ভর্ৎসনার মুখে কেরলের বিজয়ন সরকার
ইদে বিধিনিষেধে ছাড় দেওয়ায় সুপ্রিম কোর্টের প্রশ্নের মুখে কেরল সরকার (প্রতীকী ছবি, সৌজন্যে পিটিআই) (PTI)
ইদে বিধিনিষেধে ছাড় দেওয়ায় সুপ্রিম কোর্টের প্রশ্নের মুখে কেরল সরকার (প্রতীকী ছবি, সৌজন্যে পিটিআই) (PTI)

করোনা আবহে বকরি ইদে ছাড় কেন? সুপ্রিম ভর্ৎসনার মুখে কেরলের বিজয়ন সরকার

  • সুপ্রিম কোর্টের তরফে বলা হয়েছে, এই সিদ্ধান্ত খুবই উদ্বেগের। এভাবে মানুষের বেঁচে থাকা অধিকারে হস্তক্ষেপ করা হচ্ছে।

করোনা আবহেও ইদে বিধিনিষেধের উপর ছাড় দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছিল কেরল সরকার। তবে এই সিদ্ধান্তের জন্য এবার সুপ্রিম কোর্টের ভর্ৎসনার মুখে পড়তে হল পিনারাই বিজয়নের সরকারকে। সুপ্রিম কোর্টের তরফে বলা হয়েছে, এই সিদ্ধান্ত খুবই উদ্বেগের। এভাবে মানুষের বেঁচে থাকা অধিকারে হস্তক্ষেপ করা হচ্ছে।

এই বিষয়ে সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি আরএফ নরিম্যান ও বিচারপতি বিআর গাবাইয়ের ডিভিশন বেঞ্চ কেরল সরকারকে বলে, 'এমন সময়ে এই ধরনের সিদ্ধান্ত (লকডাউন শিথিল) রাজ্যের পক্ষে উদ্বেগজনক। চাপ দিয়ে কোনও ঘোষণা করে তা আরোপ করা উচিত নয়। মানুষের জীবন সব থেকে দামী। বেঁচে থাকার অধিকারে হস্তক্ষেপ করা উচিত নয়। যদি এই বিধিনিষেধে ছাড়ের ফলে কোনও খারাপ ঘটনা ঘটে, যদি সাধারণ মানুষ আমাদের কাছে সেই ঘটনা তুলে ধরেন, তা হলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।'

এই প্রসঙ্গে কাঁওয়ার যাত্রা বন্ধের পক্ষে সুপ্রিম কোর্টের সিদ্ধান্তের কথা তুলে ধরেন বিচারপতিরা। তাঁদের যুক্তি করোনা আবহে ধর্মীয় অনুষ্ঠান হলে তাতে মানুষের ক্ষতি হলে তা ধর্ম পালন হতে পারে না। উল্লেখ্য, এর আগে রথযাত্রাও সীমীত পরিসরে হয়েছিল সুপ্রিম বিধিনিষেধকে মাথায় রেখে। সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশের পরে কাঁওয়ার যাত্রা বন্ধ করতে হয়েছে উত্তরপ্রদেশ সরকারকেও। করোনা আবহে উচ্চ আদালতের নির্দেশে চার ধাম যাত্রাও বন্ধ করতে বাধ্য হয়েছে উত্তরাখণ্ড সরকারও।

 

বন্ধ করুন