শবরীমালা মন্দিরে মহিলা ভক্তদের প্রবেশ নিয়ে যাবতীয় মামলা বৃহত্তর বেঞ্চে পাঠানোর সিদ্ধান্তে অটল সুপ্রিম কোর্ট।
শবরীমালা মন্দিরে মহিলা ভক্তদের প্রবেশ নিয়ে যাবতীয় মামলা বৃহত্তর বেঞ্চে পাঠানোর সিদ্ধান্তে অটল সুপ্রিম কোর্ট।

শবরীমালা মামলার শুনানি বৃহত্তর বেঞ্চে পাঠানোর সিদ্ধান্ত বহাল সুপ্রিম কোর্টে

  • ধর্মীয় রীতি বনাম নারীর অধিকার সংক্রান্ত দায়ের হওয়া মামলাগুলি সুপ্রিম কোর্টের বৃহত্তর বেঞ্চে শুনানির জন্য রেফার করল শীর্ষ আদালত।

শবরীমালা মন্দিরে মহিলা ভক্তদের প্রবেশ নিয়ে যাবতীয় মামলা বৃহত্তর বেঞ্চে পাঠানোর সিদ্ধান্ত বহাল রাখল সুপ্রিম কোর্ট।

সোমবার প্রধান বিচারপতি এস এ বোবডের নেতৃত্বাধীন নয় সদস্যের সুপ্রিম কোর্টের বেঞ্চ জানায়, শবরীমালা মন্দিরে মহিলা ভক্তদের প্রবেশ সংক্রান্ত পূর্বতন রায় পুনর্বিবেচনার জন্য আইনি প্রশ্নাবলী তৈরি করে তা বৃহত্তর বেঞ্চে পাঠানোর ক্ষমতা রয়েছে শীর্ষ আদালতের। সেই সঙ্গে বৃহত্তর বেঞ্চে শুনানির জন্য নতুন করে আইনি প্রশ্নাবলীও প্রস্তুত করেছে সুরপ্রিম কোর্ট।

২০১৯ সালের ১৪ নভেম্বর শবরীমালা রিভিউ পিটিশন সংক্রান্ত শুনানির পরে বৃহত্তর বেঞ্চে শুনানির জন্য মোট ৭টি প্রশ্ন তৈরি করে দেয় শীর্ষ আদালতের পাঁচ সদস্যের বেঞ্চ। এর মধ্যে ছিল সংবিধানের ২৫ ও ২৬ ধারার অন্তর্গত ধর্ম পালনের স্বাধীনতা-সহ একাধিক মৌলিক অধিকার এবং সংবিধানের ১৪ ধারা অনুসারে সাম্যের অধিকার। সেই সঙ্গে ছিল ধর্মবিশ্বাসের অন্তর্নিহিত কোনও বিশেষ আচরণ বা রীতিতে আদালতের হস্তক্ষেপ করার অধিকারের মতো গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।

আদালত তার রায়ে জানায়, ধর্মস্থানে নারীর প্রবেশ নিষিদ্ধ করার ঘটনা শুধুমাত্র শবরীমালা মন্দিরেই সীমাবদ্ধ নেই। আরও তিনটি মামলায় এই বিষয়ে অভিযোগ জানানো হয়েছে বলে জানায় আদালত। এর মধ্যে একটি অভিযোগ ছিল দরগা বা মসজিদে মুসলিম মহিলাদের প্রবেশের অনুমতি না দেওয়া নিয়ে। অন্য এক মামলায় পার্সিদের পবিত্র অগ্নিস্থলে অ-পার্সি পুরুষে সঙ্গে বিবাহসূত্রে আবদ্ধ নারীর প্রবেশেও নিষেধাজ্ঞা জারি নিয়ে প্রশ্ন তোলা হয়েছে। তৃতীয় মামলায় দায়ুদি বোহরা সম্প্রদায়ের নারীর যৌনাঙ্গ ছেদনের প্রথার বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

শীর্ষ আদালত জানিয়েছে, নারীর অধিকার বনাম ধর্মীয় রীতি-বিশ্বাস সংক্রান্ত মামলাগুলি অন্তত সাত সদস্যেক বৃহত্তর বেঞ্চে শুনানির প্রয়োজন রয়েছে। এই নির্দেশের জেরেই গঠন করা হয় ৯ সদস্যের সুপ্রিম কোর্ট বেঞ্চ। যদিও সেই সিদ্ধান্তকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে পালটা আবেদন করে কেরালা সরকার-সহ একাধিক পক্ষ।

গত ৬ ফেব্রুয়ারি ৯ সদস্যের বেঞ্চে মামলার শুনানির আগে সুপ্রিম কোর্টের এই সিদ্ধান্ত ঘিরে তৈরি বিতর্ক অবসানে উদ্যোগী হয় বৃহত্তর বেঞ্চ।

দক্ষিণ ভারতের জনপ্রিয়তম তীর্থস্থানগুলির অন্যতম শবরীমালার আয়াপ্পা মন্দিরের খ্যাতি সুবিদিত। ভক্তবিশ্বাসে এই মন্দিরের বিগ্রহটি ব্রহ্মচারী। এই কারণেই ঋতুমতী মহিলাদের এই মন্দিরে প্রবেশ নিষেধ।

গত ২০১৮ সালের রায়ে কেরালা হিন্দু তীর্থস্থান আইনে ১০ থেকে ৫০ বছর বয়েসি মহিলাদের শবরীমালা মন্দিরে প্রবেশের উপর থাকা নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয় কেন্দ্র। তার জেরে ৬০টি আবেদনের ভিত্তিতে সুপ্রিম কোর্টের রায়কে চ্যালেঞ্জ জানান ভক্তরা।

বন্ধ করুন