বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > স্বামীজি সিপাহি বিদ্রোহে অনুপ্রেরণা দিয়েছিলেন, সরকারি ‘তথ্যে’ কটাক্ষ তৃণমূলের
স্বামী বিবেকানন্দ
স্বামী বিবেকানন্দ

স্বামীজি সিপাহি বিদ্রোহে অনুপ্রেরণা দিয়েছিলেন, সরকারি ‘তথ্যে’ কটাক্ষ তৃণমূলের

  • পিআইবিকে উদ্দেশ্য করেই তৃণমূলের খোঁচা, ‘‌এই ব্যাপারে আপনারা কোনও সাহায্য করতে পারবেন।’‌

বুধবার স্বামী বিবেকানন্দের জন্মবার্ষিকী। তার আগে কেন্দ্রীয় সরকারি সংস্থা প্রেস ইনফরমেশন ব্যুরোর (‌পিআইবি)‌ ওয়েবসাইটে স্বামীজিকে নিয়ে ভুল তথ্য প্রকাশিত হয়েছে। যা নিয়ে নতুন করে বিতর্ক দানা বেঁধেছে। ইতিমধ্যে কেন্দ্রীয় সরকারি সংস্থার এই ভুল তথ্য পরিবেশন নিয়ে কটাক্ষ করতে ছাড়েনি তৃণমূল।

সারা দেশ ব্যপী অমৃত মহোৎসব পালন করছে কেন্দ্রীয় সরকার। নিউ ইন্ডিয়া সমাচার নামে একটি ই ম্যাগাজিন প্রকাশ করেছে কেন্দ্রীয় সরকারি সংস্থা পিআইবি। ম্যাগাজিনটির মূল উদ্দেশ্যই হল কীভাবে বদলেছে ভারত সেই বিষয়টিকে তুলে ধরা। উঠে এসেছে ভক্তি আন্দোলনের প্রসঙ্গও। এই প্রসঙ্গে কেন্দ্রীয় সংস্থা পিআইবি লিখেছে, দেশের বিভিন্ন প্রান্তে ভক্তি আন্দোলনে সাধু সন্তরা অংশ নিয়েছিলেন। অংশ নিয়েছিলেন স্বামী বিবেকানন্দ ও শ্রীচৈতন্যদেব। আর আন্দোলন ১৮৫৭ সালের সিপাহি বিদ্রোহে অনুপ্রেরণা জুগিয়েছিল। বিতর্ক তৈরি হয়েছে এই লেখা থেকেই। ইতিহাস বলছে, স্বামী বিবেকানন্দের জন্ম হয়েছিল ১৮৬৩ সালে। প্রশ্ন উঠছে, ১৮৫৭ সালের সিপাহি বিদ্রোহে তিনি কীভাবে অনুপ্রেরণা জোগাবেন।

ইতিমধ্যে পিআইবির এই তথ্যের টুইটার হ্যান্ডেল পোস্ট করে টিপ্পনি কাটতে শুরু করেছে তৃণমূল। এই প্রসঙ্গে তৃণমূলের তরফে বলা হয়েছে, ‘‌স্বামীজির জন্ম হয়েছে ১৮৬৩ সালে। আর সিপাহি বিদ্রোহ হয়েছে ১৮৫৭ সালে। তিনি কীভাবে বিদ্রোহে অনুপ্রেরণা দিলেন, এটা বোঝার চেষ্টা করছি।’‌ এরপরই পিআইবিকে উদ্দেশ্য করেই তৃণমূলের খোঁচা, ‘‌এই ব্যাপারে আপনারা কোনও সাহায্য করতে পারবেন।’‌

তবে এখনও পর্যন্ত পিআইবির তরফে কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি। বলা বাহুল্য আগামিদিনে এটা রাজনৈতিক ভাবে হাতিয়ার হিসাবে ব্যবহার করবে রাজ্যের শাসক দল। 

বন্ধ করুন