বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > পাক সেনার মদতে হায়দরাবাদের লস্কর ক্যাম্পে প্রশিক্ষণ নিচ্ছে তালিবানরা!
পাকিস্তানে প্রশিক্ষণ নিচ্ছে তালিবান জঙ্গিরা (ছবি : রয়টার্স) (REUTERS)
পাকিস্তানে প্রশিক্ষণ নিচ্ছে তালিবান জঙ্গিরা (ছবি : রয়টার্স) (REUTERS)

পাক সেনার মদতে হায়দরাবাদের লস্কর ক্যাম্পে প্রশিক্ষণ নিচ্ছে তালিবানরা!

  • ইতিমধ্যেই আফগানিস্তানের প্রায় ২৫০টি জেলা চলে গিয়েছে তালিবানের দখলে।

আফগানিস্তানের তালিবান জঙ্গি গোষ্ঠীকে হায়দরাবাদে নিজেদের ক্যাম্পে প্রশিক্ষণ দিচ্ছে লস্কর-ই-তৈবা সদস্যরা। না, এই হায়দরাবাদ ভারতের তেলাঙ্গানা প্রদেশের রাজধানী নয়। এটি পাকিস্তানের একটি শহরের নাম। পাকিস্তানের পঞ্জাব প্রদেশের ফয়সালাবাদ এবং খআইবার পাখতুনওয়া প্রদেশের দেরা ইসমাইল খানের মাঝামাঝি একটি জায়গায় অবস্থিত হায়দরাবাদ। সেখানেই পাক সেনার মদতে নাকি তালিবান যোদ্ধাদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে।

আফগানিস্তান থেকে আমেরিকা সেনা প্রত্যাহার প্রক্রিয়া সম্পন্ন করার আগের থেকেই তালিবানরা দেশটির দখল নিচ্ছে। ইতিমধ্যেই প্রায় ২৫০টির বেশি জেলা চলে গিয়েছে তালিবানদের দখলে। এই পরিস্থিতে আফগানিস্তানের দখল যাতে পুরোপুরি ভাবে তালিবানদের হাতে চলে যায়, সেই চেষ্টা যাচ্ছে পাক মদতপুষ্ট জঙ্গি সংগঠন লস্কর। একসময়ে জানা গিয়েছে যে পাকিস্তানি জঙ্গিরা দক্ষিণ আফগানিস্তানের তালিবান ক্যাম্বে জঙ্গি প্রশিক্ষণ পেত। সেই পরিস্থিতি বদলে এখন পাক জঙ্গিরা প্রশিক্ষণ দিচ্ছে তালিবান জঙ্গিদের।

শুধু প্রশিক্ষণ দেওয়াই নয়, পাক জঙ্গি গোষ্ঠী নিজেদের যোদ্ধা পাঠআচ্ছে আফগানিস্তানে। সেখানে তালিবানদের সঙ্গে মিলে জইশ এবং লস্কর জঙ্গিরা আফগান সেনার বিরুদ্ধে লড়ছে। দোহায় স্বাক্ষরিত শান্তি চুক্তির লঙ্ঘন হচ্ছে আফগানিস্তানে। পাক সীমান্ত লাগোয়া ৪টি আফগান প্রদেশে পাক জঙ্গিদের উপস্থিতি খুব বেশি। লস্কর-ই-তৈবার প্রায় ৭২০০ জঙ্গি এই মূহুর্তে লড়াই করছে আফগানিস্তানে। লস্কর জঙ্গিদের প্রশাসক, উপদেষ্টা এবং কমান্ডার হিসেবে নিয়োগ করছে তালিবানরা।

সূত্রের খবর, মৃত তালিবান প্রধান মোল্লা মহম্মদ ওমরের ছেলে মোল্লা মহম্মদ ইয়াকুব লস্করদের সঙ্গে খুব ঘনিষ্ঠ ভাবে কাজ করছে আফগানিস্তানের দখল নেওয়ার লক্ষ্যে। এদিকে আল-কায়েদার সঙ্গেও নিজেদের সম্পর্ক ছিন্ন করেনি তালিবানরা। এদিকে এই গোষ্ঠীগুলিকে এক টেবিলে বসানোর নেপথ্যে নাকি রয়েছে হাক্কানি নেটওয়ার্ক। উল্লেখ্য, হাক্কানি গোষ্ঠীকে সরাসরি মদত দেয় পাক সেনা। এই পরিস্থিতিতে মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের সঙ্গে সঙ্গে আফগানিস্তানে বাড়ছে পাক জঙ্গিদের উপস্থিতি।

এদিকে তাজিকিস্তান সীমান্ত এলাকা দখলের পর চিন সীমান্তের শহর ওয়াখান দখল করে তালিবানরা। আফগানিস্তানের বাদাখশান প্রদেশে তালিবান তাদের হামলা অব্যাহত রেখেছে এবং তারা চিনের সিন কিয়াং প্রদেশের সীমান্তবর্তী এলাকায় পৌঁছে গিয়েছে। ওয়াখান জেলায় মোতায়েন আফগান সরকারি সেনারা তাজিকিস্তানে পালিয়ে গিয়েছে। বিনা যুদ্ধেই ওয়াখান দখল করে তালিবান। পাশাপাশি দখল হয়েছে ওয়াখজির পাস। আফগানিস্তান এবং চিনের মধ্যে যাতায়াতের একমাত্র পথ এই পাস।

বন্ধ করুন