বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > সারারাত ফ্রিজারে থেকে সৎকারের আগে ‘প্রাণ’ ফিরল বৃদ্ধের দেহে
মারা গিয়েছেন ভেবে এমনই ফ্রিজারে রাতভর রাখা ছিল ৭৪ বছরের বৃদ্ধের দেহ।
মারা গিয়েছেন ভেবে এমনই ফ্রিজারে রাতভর রাখা ছিল ৭৪ বছরের বৃদ্ধের দেহ।

সারারাত ফ্রিজারে থেকে সৎকারের আগে ‘প্রাণ’ ফিরল বৃদ্ধের দেহে

  • ফ্রিজার থেকে দেহ বের করার সময় কুমারের হাতের আঙুল নড়াচড়া করতে দেখা যায়।

মৃত ভেবে ফ্রিজারে দেহ রেখে দেওয়ার একদিন পরে উদ্ধার করা হল ৭৪ বছরের বৃদ্ধকে। তামিল নাডুর সালেমে এমনই চাঞ্চল্যকর ঘটনা ঘটল।

বুধবার পুলিশ জানিয়েছে, সালেম জেলার কান্দামপট্টি গ্রামে ৭০ বছর বয়েসি ভাই সর্বাননের সঙ্গে বসবাস করেন কুমার বালাসুব্রহ্মিয়ম। গত দুই মাস ধরে তিনি বার্ধক্যজনিত বিবিধ সমস্যায় ভুগে শয্যাশায়ী হয়ে পড়েন। 

সুরামঙ্গলম থানার পুলিশে জানিয়েছে, গত সোমবার সন্ধ্যায় অনেক ডেকেও দাদার থেকে কোনও সাড়া পাননি সর্বানন। শরীরে ধাক্কা দিলেও সাড় না পেয়ে তিনি মনে করেন, দাদা মারা গিয়েছেন। 

এই ভেবে তিনি এক অন্ত্যেষ্টি আয়োজক সংস্থাকে দাদার অন্তিম সৎকার করার আগে একটি ফ্রিজার চেয়ে পাঠান সর্বানন। পরের দিন আত্মীয়দের কাছে দাদার মৃত্যুসংবাদ দিতে এবং তাঁরা এসে শেষ দেখা সাঙ্গ করার জন্য সময় চেয়েছিলেন বলেই এই ব্যবস্থা করেন বৃদ্ধ। তাঁর কথা অনুযায়ী রাতেই বাড়িতে একটি ফ্রিজার পৌঁছে দেয় ওই সংস্থা।

সমস্যা দেখা দেয় মঙ্গলবার সংস্থার প্রতিনিধিরা ফ্রিজার নিতে সর্বাননের বাড়ি পৌঁছলে। ফ্রিজার থেকে দেহ বের করার সময় তাঁরা কুমারের হাতের আঙুল নড়াচড়া করতে দেখে চমকে ওঠেন। তাঁদের ডাকে ছুটে এসে সর্বানন সব শুনে বলেন, তাঁর দাদা মৃগি রোগী ছিলেন বলে মাঝেমাঝেই মূর্চ্ছা যেতেন। তবে তিনি দাবি করেন, তখনও তাঁর ‘দাদার আত্মা দেহ ছেড়ে যায়নি।’ 

এ দিকে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছে কুমারকে দ্রুত স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে যায়। চিকিৎসকরা পরীক্ষা করে তাঁকে জীবিত ঘোষণা করেন। ঘটনায় হতভম্ব হয়ে যান সর্বাননও।

তিনি জেনেবুঝে কিছু না করলেও পুলিশ ভারতীয় দণ্ডবিধির ২৮৭ ও ৩৩৬ ধারায় একটি স্বতঃপ্রণোদিত মামলাদায়ের করেছে।

বন্ধ করুন