বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > ৫.৯৩ কোটি টাকার বিদ্যুৎ চুরির অভিযোগ বাবা-ছেলের বিরুদ্ধে, কীভাবে ফাঁকি দিত তারা?
২৯ মাস ধরে বাবা -ছেলে বিদ্যুৎ চুরি করছিল বলে অভিযোগ। ফাইল ছবি : রয়টার্স (REUTERS)

৫.৯৩ কোটি টাকার বিদ্যুৎ চুরির অভিযোগ বাবা-ছেলের বিরুদ্ধে, কীভাবে ফাঁকি দিত তারা?

  • সূত্রের খবর,গত ৫ মে ফালেগাঁওতে একটি পাথর ভাঙার কলে অভিযানে নামে মহারাষ্ট্র স্টেট ইলেকট্রিসিটি ডিসট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড(MSEDCL)। আর তখনই ভয়াবহ বিদ্যুৎ চুরির বিষয়টি সামনে আসে। বিদ্যুৎ দফতরের আধিকারিকরা বুঝতে পারেন, বিদ্যুৎ চুরির এই বিষয়টি ওপর থেকে দেখে একেবারেই বোঝার উপায় নেই।

যেমন বাবা তেমনই তার ছেলে। মহারাষ্ট্রের থানে জেলার মুরবাদ এলাকায় বাবা ছেলে উভয়ের বিরুদ্ধে প্রায় ৫.৯৩ কোটি টাকার বিদ্যুৎ চুরির অভিযোগ। দুজনের বিরুদ্ধে পুলিশ মামলা রুজু করেছে। কিন্তু ঠিক কী করেছেন তাঁরা? কীভাবেই বা তাদের এই অপকর্মের অভিযোগটি সামনে এল?

সূত্রের খবর,গত ৫ মে ফালেগাঁওতে একটি পাথর ভাঙার কলে অভিযানে নামে মহারাষ্ট্র স্টেট ইলেকট্রিসিটি ডিসট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড(MSEDCL)। আর তখনই ভয়াবহ বিদ্যুৎ চুরির বিষয়টি সামনে আসে। বিদ্যুৎ দফতরের আধিকারিকরা বুঝতে পারেন, বিদ্যুৎ চুরির এই বিষয়টি ওপর থেকে দেখে একেবারেই বোঝার উপায় নেই। কিন্তু একটু তলিয়ে দেখার পরেই আসল বিষয়টি সামনে আসে। দেখা যায় একটি গেজেটের মাধ্যমে বিদ্যুৎ চুরি করা হচ্ছে। কিন্তু মিটার রিডিংয়ে সেটি উঠছে না। অর্থাৎ বিপুল বিদ্যুৎ ব্যবহার করা হচ্ছে কিন্তু মিটার রিডিংয়ে তা উঠছে না।

বিদ্যুৎ দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে, গত ২৯ মাসে প্রায় ৩৪,০৯, ৯০১ ইউনিট বিদ্যুৎ চুরি করা হয়েছে। যার মূল্য প্রায় ৫.৯৩ কোটি টাকা। ইতিমধ্যেই চন্দ্রকান্ত ভাম্ব্রে ও তার ছেলে শচিনের বিরুদ্ধে ইলেকট্রিসি অ্যাক্টে মামলা করা হয়েছে। মুরবাদের এক পুলিশ আধিকারিক একথা জানিয়েছেন। 

বন্ধ করুন