বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > চার বছরে সাতবার বিয়ে, ধনী পরিবারের ডিভোর্সি মহিলাদের ফাঁদে ফেলে বেপাত্তা যুবক
একের পর এক মহিলাদের বিয়ে করে বেপাত্তা যুবক। প্রতীকী ছবি( AFP) (AFP)

চার বছরে সাতবার বিয়ে, ধনী পরিবারের ডিভোর্সি মহিলাদের ফাঁদে ফেলে বেপাত্তা যুবক

  • ওই যুবক নিজেকে ইঞ্জিনিয়ার বলে দাবি করতেন। বিভিন্ন বিবাহ সংক্রান্ত ওয়েবসাইটের মাধ্যমে তিনি মহিলাদের সঙ্গে যোগাযোগ করতেন। মেয়ে তার সঙ্গে থাকে একথা বলে তিনি বিশ্বাস অর্জন করতেন। আইটি কোম্পানিতে ২ লাখ টাকা মাসিক আয় বলেও তিনি মহিলাদের কাছে দাবি করেছেন।

অন্ধ্রপ্রদেশের এক যুবকের অদ্ভূত প্রতারণার নজির সামনে এসেছে এবার। ওই যুবকের নাম বাবু ওরফে আদাপা শিবা ওরফে শঙ্কর বাবু। তিনি বেশিরভাগ ক্ষেত্রে টার্গেট করতেন ধনী ও ডিভোর্সী মহিলাদের। কথার জালে তাঁদেরকে ফাঁসিয়ে বিয়েও করে ফেলতেন। এরপর টাকা পয়সা নিয়ে একটা সময় গা ঢাকা দিতেন তিনি।

 এরপর আবার অন্য় কোনও ডিভোর্সি মহিলাকে টার্গেট করতেন। সব মিলিয়ে চারবছরে অন্তত সাতজন ডিভোর্সি মহিলাকে বিয়ে করেছেন তিনি। সকলেই উচ্চশিক্ষিতা ও কর্মরতা। আর আশ্চর্যজনকভাবে সাতজনের মধ্যে তিনজনই একে অপরের প্রতিবেশী। কিন্তু তাঁরা ঘুণাক্ষরেও জানতে পারেননি ওই যুবকের কীর্তি। ওই যুবক নিজেকে অন্ধ্রপ্রদেশের একাধিক মন্ত্রী ও বিজেপি নেতাদের ঘনিষ্ঠ বলে জাহির করতেন।

পরে জানা যাচ্ছে কাছাকাছি এলাকায় তিনি তিনজন মহিলার সঙ্গে আলাদাভাবে থাকতেন। তবে বর্তমানে তিনি বেপাত্তা। সূত্রের খবর ২০১৮ সালে তিনি প্রথম বিয়ে করেছিলেন। সেই শুরু। তারপর আর থামেননি।ওই যুবক নিজেকে ইঞ্জিনিয়ার বলে দাবি করতেন। বিভিন্ন বিবাহ সংক্রান্ত ওয়েবসাইটের মাধ্যমে তিনি মহিলাদের সঙ্গে যোগাযোগ করতেন। মেয়ে তার সঙ্গে থাকে একথা বলে তিনি বিশ্বাস অর্জন করতেন। আইটি কোম্পানিতে ২ লাখ টাকা মাসিক আয় বলেও তিনি মহিলাদের কাছে দাবি করেছেন।

এমনকী ধনী পরিবারের ডিভোর্সি কন্যাকে বিয়ে করার বিনিময়ে তিনি প্রচুর টাকা পণও নিয়েছিলেন। পরে আবার অন্য একজন মহিলাকে ফাঁসিয়ে তিনি তাঁর সঙ্গেও সম্পর্ক রাখতে শুরু করেন। অন্ধ্রপ্রদেশের একাধিক থানায় তার নামে অভিযোগ দায়ের করেছেন ওই মহিলারা।

 

 

 

 

বন্ধ করুন