বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > ফের লাদাখে দখলদারি চিনের? জল্পনার মাঝে সীমান্ত পরিস্থিতি নিয়ে মুখ খুলল সেনা
লাদাখের লুকুং (ফাইল ছবি) (PTI)
লাদাখের লুকুং (ফাইল ছবি) (PTI)

ফের লাদাখে দখলদারি চিনের? জল্পনার মাঝে সীমান্ত পরিস্থিতি নিয়ে মুখ খুলল সেনা

  • সম্প্রতি লাদাখ সীমান্তের পরিস্থিতি নিয়ে জল্পনা বাড়ে।

সম্প্রতি লাদাখ সীমান্তের পরিস্থিতি নিয়ে জল্পনা বাড়ে। বিভিন্ন বিষয়ে অভিযোগ ওঠে। রটে যায় বহু অসত্য খবর। এই বিষয়ে এবার মুখ খুলল সেনা। এই আবহে এবার লাদাখ সীমান্তের পরিস্থিতি নিয়ে মুখ খুলল ভারতীয় সেনা। এদিন সেনার তরফে স্পষ্ট জানিয়ে দেওয়া হয় যে গত ফেব্রুয়ারিতে সীমান্তের যেখানে যেখানে দুই দেশ সেনা প্রত্যাহার করেছিল, সেখানে কোথাওই নতুন করে জমি দখল করার কোনও চেষ্টা কোনও দেশই করেনি।

এদিকে সম্প্রতি সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত খবরে দাবি করা হয়েছিল যে ভারত-চিন আলোচনা আপাতত বন্ধ রয়েছে। সেই দাবিকেও উড়িয়ে দেওয়া হয় সেনার তরফে। সেনার তরফে বলা হয় যে সঠিক তথ্য ছাড়াই সংবাদমাধ্যমে এই খবর প্রকাশ করা হয়েছে।

সেনার তরফে দাবি করা হয়, গত ফেব্রুয়ারি থেকে লাদাখের প্যাংগং সো অঞ্চলে সেনা সরানোর কাজ শুরু হওয়ার পর থেকে ওই অঞ্চলের পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। ভারত ও চিনের মধ্যে সাম্প্রতিক সময়ে যে আলোচনা হয়েছে, তাতে দ্বিপাক্ষিক বিশ্বাস আরও বৃদ্ধি পেয়েছে। চিনের সঙ্গে রাজনৈতিক থেকে কূটনৈতিক সবস্তরেই আলোচনা হয়েছে। সেনাস্তরেও যে সমস্যা মেটানোর চেষ্টা হয়েছে। তবে সূত্রের খবর, সম্প্রতি চিনের তরফে পূর্ব লাদাখ সীমান্তে নতুন করে সেনা মোতায়েনের খবর সামনে এসেছে। সীমান্তের ওপারে তারা পরিকাঠামো তৈরি করছে বলেও খবর।

গত বছর মে মাসের মাঝামাঝি সময় থেকে ভারত ও চিনের মধ্যে উত্তপ্ত পরিস্থিতি তৈরি হয়েছিল। অভিযোগ উঠেছিল যে ভারতের সীমানার মধ্যে ঢুকে পড়েছে চিনের পিপলস লিবারেশ আর্মি বা পিএলএ। গত বছর জুন মাসে দুই দেশের সেনার মধ্যে গালওয়ান উপত্যকায় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষও হয়। তার পর অনেক আলোচনা শেষে চিন সেনা সরাতে রাজি হয়। সেই মতো ক্রমশ দুই দেশ পূর্ব লাদাখ থেকে ক্রমশ সেনা সরানোর প্রক্রিয়া চালাচ্ছে। গত ২৫ জুন এই নিয়ে দুই দেশের কূটনৈতিক স্তরে একটি বৈঠক হয়। সেই বৈঠকে ঠিক হয়েছে যে এই ইস্যুতে খুব শীঘ্রই সেনা পর্যায়ের বৈঠক হবে।

 

বন্ধ করুন