বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে উপযোগী এই ৬টি খাদ্যবস্তু

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে উপযোগী এই ৬টি খাদ্যবস্তু

শীতকালে কোভিড-১৯-এর প্রকোপ বাড়ার সতর্কতা আগেই জারি করা হয়েছে। আবার এমনিতেই শীতকালে সর্দি-কাশির সম্ভাবনা বেশি। স্বাভাবিক ভাবেই সেই সময় রোগ প্রতিরোধ গুরুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠে। এখানে এমন কয়েকটি খাদ্যবস্তুর উল্লেখ করা হল, যা সর্দি-কাশি দূর করতে ও রোগ প্রতিরোধ গড়ে তুলতে সহায়ক।

গোলমরিচ- এটি প্রাকৃতিক ভাবেই অনাক্রম্যতা গড়ে তোলে। ভিটামিন সি সমৃদ্ধ এই মশলাটি একধারে অ্যান্টিব্যক্টেরিয়াল, আবার অন্যদিকে টক্সিনকেও দূরে সরিয়ে রাখে।
1/6গোলমরিচ- এটি প্রাকৃতিক ভাবেই অনাক্রম্যতা গড়ে তোলে। ভিটামিন সি সমৃদ্ধ এই মশলাটি একধারে অ্যান্টিব্যক্টেরিয়াল, আবার অন্যদিকে টক্সিনকেও দূরে সরিয়ে রাখে।
রসুন- সর্দি-কাশি তো দূরে রাখেই, পাশাপাশি অনাক্রম্যতা বৃদ্ধিতেও রসুন সহায়ক বটে। জীবাণু ও ভাইরাসের সঙ্গে লড়তে রসুনে উপস্থিত যৌগিক উপাদানগুলি সাহায্য করে।
2/6রসুন- সর্দি-কাশি তো দূরে রাখেই, পাশাপাশি অনাক্রম্যতা বৃদ্ধিতেও রসুন সহায়ক বটে। জীবাণু ও ভাইরাসের সঙ্গে লড়তে রসুনে উপস্থিত যৌগিক উপাদানগুলি সাহায্য করে।
আদা- সর্দি-কাশি ও এর ফলে বুকের ভারি ভাব কাটিয়ে তুলতে আদার জুরি মেলা ভার। এর পাশাপাশি এতে উপস্থিত অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটারি উপাদানগুলি রোগ প্রতিরোধক শক্তি বৃদ্ধিতেও সহায়ক।
3/6আদা- সর্দি-কাশি ও এর ফলে বুকের ভারি ভাব কাটিয়ে তুলতে আদার জুরি মেলা ভার। এর পাশাপাশি এতে উপস্থিত অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটারি উপাদানগুলি রোগ প্রতিরোধক শক্তি বৃদ্ধিতেও সহায়ক।
লেবু- এটি অ্যান্টিফাঙ্গাল ও অ্যান্টিসেপ্টিক। লেবুর সাহায্যেও সাধারণ সর্দি দূর করা যায়। আবার এতে উপস্থিত ভিটামিব সি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সহায়ক।
4/6লেবু- এটি অ্যান্টিফাঙ্গাল ও অ্যান্টিসেপ্টিক। লেবুর সাহায্যেও সাধারণ সর্দি দূর করা যায়। আবার এতে উপস্থিত ভিটামিব সি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সহায়ক।
হলুদ- রোগ নিরাময়ে হলুদের গুণাগুণ বহু যুগ ধরে প্রশংসিত। এতে উপস্থিত অ্যান্টিফাঙ্গাল ও অ্যান্টিব্যাক্টেরিয়াল উপাদানগুলি ব্যাক্টিরিয়া ও ভাইরাস জনিত রোগ প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে।
5/6হলুদ- রোগ নিরাময়ে হলুদের গুণাগুণ বহু যুগ ধরে প্রশংসিত। এতে উপস্থিত অ্যান্টিফাঙ্গাল ও অ্যান্টিব্যাক্টেরিয়াল উপাদানগুলি ব্যাক্টিরিয়া ও ভাইরাস জনিত রোগ প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে।
মধু- আবহাওয়া পরিবর্তনের সময় মধুর ব্যবহার চোখে পড়ার মতো। এতে উপস্থিত হাইড্রোজেন পারঅক্সাইড ও পোলেন একে অ্যান্টিসেপ্টিক করে তোলে। পাশাপাশি এর ব্যবহারের ফলে মরশুমি অ্যালার্জি থেকেও মুক্তি পাওয়া যায়। 
6/6মধু- আবহাওয়া পরিবর্তনের সময় মধুর ব্যবহার চোখে পড়ার মতো। এতে উপস্থিত হাইড্রোজেন পারঅক্সাইড ও পোলেন একে অ্যান্টিসেপ্টিক করে তোলে। পাশাপাশি এর ব্যবহারের ফলে মরশুমি অ্যালার্জি থেকেও মুক্তি পাওয়া যায়। 
অন্য গ্যালারিগুলি