বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > অসমের ডিটেনশন ক্যাম্পে ৩ বাংলাদেশি সহ মৃত্যু ২৮ জনের, জানালেন মন্ত্রী
ফাইল ছবি (সৌজন্য হিন্দুস্তান টাইমস)

অসমের ডিটেনশন ক্যাম্পে ৩ বাংলাদেশি সহ মৃত্যু ২৮ জনের, জানালেন মন্ত্রী

অসমের চা-উপজাতি সম্প্রদায়েরও ১২ জন ডিটেনশন ক্যাম্পে বন্দি রয়েছেন। তাঁদের মুক্তি নিশ্চিত করতে উপযুক্ত পদক্ষেপ করা হয়েছে বলে জানান মন্ত্রী।

২১ নভেম্বর পর্যন্ত অসমের ডিটেনশন ক্যাম্পে ২৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। তাঁদের মধ্যে তিনজন বাংলাদেশি। গতকাল বিধানসভায় একথা জানান সে রাজ্যের সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী চন্দ্রমোহন পাটোয়ারি।

অসম গণ পরিষদ বিধায়ক উৎপল দত্তের প্রশ্নের জবাবে সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী জানান, বিভিন্ন রোগে মৃত্যু হয়েছে ওই ২৮ জনের। তাঁদের মধ্যে ২৫ জন অসমের বাসিন্দা ছিলেন। বাংলাদেশের ঠিকানা দিয়েছিলেন তিনজন। তাঁরা হলেন - বাসুদেব বিশ্বাস, নগেন দাস ও দুলাল মিঞা।

তাহলে তাঁদের দেহ কোথায় পাঠানো হয়েছে ? একাধিক বিধায়কের প্রশ্নের জবাবে চন্দ্রমোহন বলেন, সেই তথ্য জোগাড় করা হচ্ছে। তবে ডিটেনশন ক্যাম্পে মৃত বন্দিদের পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার ব্যবস্থা নেই বলে সাফ জানিয়ে দেন তিনি।

সরকার জানিয়েছে, বর্তমানে রাজ্যের ছটি ডিটেনশন ক্যাম্পে ৯৮৮ জন বন্দিকে রাখা হয়েছে। তাঁদের মধ্যে ৯৫৭ জনকে বিদেশি বলে ঘোষণা করা হয়েছে। বাকি ৩১ জন হল বন্দিদের ছেলেমেয়ে।

ডিব্রুগড় ক্যাম্পে সবথেকে বেশি ৩১৭ জন বন্দি রয়েছেন। সবথেকে কম ৪০ জন বন্দি রয়েছেন তেজপুর ক্যাম্পে। চন্দ্রমোহন জানান, এখনও পর্যন্ত ৯৩৫ জন বিদেশিকে ডিটেনশন ক্যাম্প থেকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। তাঁদের মধ্যে ৮৬ জন দেশে ফিরে যাওয়ার প্রতীক্ষায় রয়েছেন। সুপ্রিম কোর্টের রায় অনুযায়ী, ডিটেনশন শিবিরগুলিতে তিন বছর বন্দি থাকা ব্যক্তিদের শর্তসাপেক্ষে মুক্তি দিতে হবে।

অসমের চা-উপজাতি সম্প্রদায়েরও ১২ জন ডিটেনশন ক্যাম্পে বন্দি রয়েছেন। তাঁদের মুক্তি নিশ্চিত করতে উপযুক্ত পদক্ষেপ করা হয়েছে বলে জানান মন্ত্রী।

বন্ধ করুন