বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > জঙ্গলের কোর এরিয়ায় মহিলা বনরক্ষীকে টেনে নিয়ে গেল 'মায়া', ফিরল রক্তাক্ত নিথর দেহ
বনরক্ষী স্বাতী ধুমানে
বনরক্ষী স্বাতী ধুমানে

জঙ্গলের কোর এরিয়ায় মহিলা বনরক্ষীকে টেনে নিয়ে গেল 'মায়া', ফিরল রক্তাক্ত নিথর দেহ

  • অভিজ্ঞ মহলের মতে জঙ্গলের পাতার আওয়াজে টের পেয়ে গিয়েছিল বাঘিনী। তারপরই ঝাঁপিয়ে পড়ে। 

মহারাষ্ট্রের তাদোবা-আন্ধারি সংরক্ষিত বনাঞ্চল। তারই কোর এরিয়ায় গিয়েছিলেন ৪৬ বছর বয়সী মহিলা বনরক্ষী স্বাতী ধুমানে। এই জঙ্গল তাঁর চেনা। তবুও নিয়ম মেনে তিনজন বন শ্রমিককে নিয়েই তিনি কোর এরিয়ায় ঢুকেছিলেন। অল ইন্ডিয়া টাইগার এসটিমেশন ২০২২ এর সমীক্ষা করতেই এদিন জঙ্গলে গিয়েছিলেন তিনি। শনিবারই ছিল এই সমীক্ষার প্রথম দিন। সকালই সকালই বেরিয়ে পড়েছিলেন ফরেস্ট গার্ড স্বাতী।

 সকাল প্রায় ৭টা। কালোরা গেট থেকে প্রায় ৪ কিলোমিটার ভেতরে গভীর জঙ্গলে হেঁটে ঢুকেছিলেন তাঁরা। জঙ্গলের ভেতরের রাস্তাতেই বাঘিনীকে দেখতে পান তাঁরা। এই বাঘিনীকে চেনেন বনরক্ষীরা। সবার কাছে মায়া বলেই পরিচিত। বয়স ১০ বছর। প্রায় ২০০ মিটার দূরে ছিল সেটি। বাঘিনীটি চলে যাওয়ার জন্য অপেক্ষা করছিলেন স্বাতীরা। প্রায় আধঘন্টা তাঁরা অপেক্ষা করেন। এদিকে ওই বাঘিনী দীর্ঘক্ষণ ওই রাস্তাতেই বসেছিল। এরপর কিছুটা ঘুরপথে জঙ্গলের মধ্যে দিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন স্বাতী। তখনও সেটি বসেছিল রাস্তার উপর। 

 

বনকর্তাদের অনুমান জঙ্গলের ভেতর ওরা ঢোকার পর তা টের পেয়ে যায় বাঘিনী। এদিকে সামনে যাচ্ছিলেন তিনজন বন শ্রমিক। পেছনে ছিলেন স্বাতী। আচমকাই পেছন থেকে এসে হামলা চালায় মায়া। চোখের নিমেষে তাকে জঙ্গলে টেনে নিয়ে যায় । 

ডেপুটি কনসারভেটর অফ ফরেস্ট নন্দকিশোর কালে বলেন, পর্যটকদের কিছু গাড়িও ছিল রাস্তায়। স্বাতী ও তাঁর সঙ্গীরা চারকিলোমিটার সার্ভে করে, বাকি ৫ কিমি শেষ করতে চাইছিলেন। এদিকে বাঘিনীটি বসে থাকায় তাঁরা জঙ্গলের ভেতর দিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেছিলেন। তবে এই সময় ফিরে এলেই ভালো করতেন। অপর তিনজন বাঁচানোর চেষ্টা করেও পারেননি। বর্তমান পরিস্থিতিতে ওই সাইন সার্ভে আপাতত স্থগিত রাখা হচ্ছে। জঙ্গলের মধ্যে হেঁটে যাওয়াও আপাতত বন্ধ। 

 

বন্ধ করুন