বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > আমেরিকার চেয়ে ভারতে বেশি কর দিয়েছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প!
ডোনাল্ড ট্রাম্প (REUTERS)
ডোনাল্ড ট্রাম্প (REUTERS)

আমেরিকার চেয়ে ভারতে বেশি কর দিয়েছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প!

  • গত ১৫ বছরের মধ্যে ১০ বছর কর দেননি তিনি

মার্কিন রাষ্ট্রপতি ডোনাল্ড ট্রাম্পের ট্যাক্স রেকর্ড প্রকাশ করেছে নিউ ইয়র্ক টাইমস। সেখান থেকে উঠে এসেছে চাঞ্চল্যকর তথ্য। গত ১৫ বছরের মধ্যে ১০ বছর ট্যাক্স দেননি তিনি। যখন দিয়েছেন, তখনও খুবই সামান্য টাকা জমা করেছেন। টাইমসের তদন্ত উঠে এসেছে যে ভারতে বেশি কর দিয়েছেন ট্রাম্প আমেরিকার তুলনায়। নিজের স্বভাবসিদ্ধ ভঙ্গিতে অবশ্য পুরো রিপোর্টটিকে ফেক নিউজ বলে উড়িয়ে দিয়েছেন মার্কিন রাষ্ট্রপতি। 

ডোনাল্ড ট্রাম্প শুধু সফল রাজনীতিবিদ নন, তিনি একজন ধনকুবেরও বটে। সেই হিসেবে এটা প্রত্যাশিত যে তিনি বিপুল পরিমাণ কর দেবেন। কিন্তু দেখা যাচ্ছে যে খুব কম টাকা ট্রাম্প কর বাবদ দিয়েছেন। ২০১৭ সালে মাত্র ৭৫০ ডলার ট্য়াক্স দিয়েছিলেন তিনি আমেরিকায়। অন্যদিকে ১৪৫৪০০ ডলার ভারতে কর ভরেছিল তাঁর সংস্থা। পানামা ও ফিলিপিন্সেও অনেক টাকা কর দিয়েছিল তাঁর সংস্থা। 

২০১৬ সালে যে বছর তিনি রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হয়েছিলেন, সেবারও মাত্র ৭৫০ ডলার কর চুকিয়েছিলেন তিনি। গত ১৫ বছরের মধ্যে ১০ বছর কর দেননি তিনি। কর প্রক্রিয়ায় ফাঁক ব্যবহার করে তিনি দেখিয়েছেন যে যত টাকা রোজগার হচ্ছে তার চেয়ে অনেক বেশি ক্ষতি হচ্ছে। 

একই সঙ্গে খাওয়া দাওয়া, হেয়ার স্টাইলিং ও বিমান সংক্রান্ত খরচার ওপর কর মুকুব করিয়ে নিয়েছেন তিনি। মেয়ে ইভাঙ্কার হেয়ার স্টাইলিংয়ের বিপুল বিল পুরোটাই ট্যাক্স-ফ্রি। এই রিপোর্ট নিয়ে উত্তাল এখন মার্কিন মুলুক। প্রসঙ্গত, অন্য রাষ্ট্রপতিরা নিজেদের ট্যাক্স স্টেটমেন্ট প্রকাশ করলেও ট্রাম্প কখনো করেননি এই দাবি করে যে অডিট চলছে, হয়ে গেলে দিয়ে দেবেন! 

নিউ ইয়র্ক টাইমস জানিয়েছে যে রাষ্ট্রপতি হওয়ার পর প্রথম দুই বছরে ভারত থেকে ২৩ লাখ ডলার রোজগার হয়ে ট্রাম্পের। তবে অধিকাংশ অর্থ ডোনাল্ড ট্রাম্প আয় করেছেন তাঁর স্কটল্যান্ড ও আয়ার্ল্যান্ডের রিয়েল এস্টেট থেকে। 

তবে নিউ ইয়র্ক টাইমসের রিপোর্ট থেকে মূলত যেটি উঠে এসেছে যে সফল ব্যবসায়ী হওয়ার দাবি করলেও ট্রাম্পের অধিকাংশ ব্যবসা থকেই কোনও লাভ হচ্ছেনা। গল্ফ কোর্স থেকে বিলাসবহুল হোটেল, সবই ধুঁকছে। 

তবে এই সব দাবি খণ্ডন করেছে ট্রাম্প অর্গানাইজেশন। তারা বলছে অধিকাংশ তথ্যই বেঠিক। ট্রাম্প বলেছেন যে এটি ফেক নিউজ। তিনি দাবি করেছেন যে ধারাবাহিক ভাবে কর দেন তিনি। কিন্তু আপাতত সেটির অডিট চলছে। তিনি বলেন যে আইআরএস ( আমেরিকার ট্যাক্স দফতর) তাঁর সঙ্গে ভালো ব্যবহার করে না। প্রসঙ্গত, অডিট চলছে বলে করের হিসেব দেওয়া যাবে না, গত চার বছর ধরেই এই অজুহাত দিয়ে চলেছেন তিনি। 

দুই দিন বাদেই ডেমোক্র্যাট রাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থী জো বাইডেনের সঙ্গে প্রথম প্রেসিডেন্সিয়াল ডিবেট। তার আগেই পুননিবর্বাচিত হওয়ার দৌড়ে অনেকটা পিছিয়ে থাকা ডোনাল্ড ট্রাম্প বড় ধাক্কা খেলেন। 

বন্ধ করুন