হায়দরাবাদে বিক্ষোভরত আইসিস-এর শাখা সংগঠনের সদস্যরা।
হায়দরাবাদে বিক্ষোভরত আইসিস-এর শাখা সংগঠনের সদস্যরা।

ঘরে ফিরতে চান কেরালা থেকে পালিয়ে IS-এ যোগ দেওয়া ২ যুবতী

আদতে তিরুবনন্তপুরমের বাসিন্দা নিমিষা ওরফে ফতিমা এবং এর্নাকুলমবাসী সোনিয়া সেবাস্টিয়ান ওরফে আয়েশা আফগানিস্তানে পালিয়ে গিয়ে আইসিস-এ যোগ দিয়েছিলেন।

বাড়ি ফিরতে চান আফগানিস্তানে পালিয়ে আইএস-এ যোগ দেওয়া কেরালার দুই যুবতী। তাঁদের শর্ত, দেশে ফিরলে তাঁদের গ্রেফতার করা যাবে না এবং পরিবারের সঙ্গে মেলামেশা করার অনুমতি দিতে হবে।

আদতে তিরুবনন্তপুরমের বাসিন্দা নিমিষা ওরফে ফতিমা এবং এর্নাকুলমবাসী সোনিয়া সেবাস্টিয়ান ওরফে আয়েশা আফগানিস্তানে পালিয়ে গিয়ে আইসিস-এ যোগ দিয়েছিলেন। সম্প্রতি তাঁরা দেশে ফিরতে চেয়ে ভিডিয়ো ক্লিপিং মারফত্ আবেদন জানিয়েছেন।

স্ট্র্যাটনিউজগ্লোবাল নামে একটি ওয়েবসাইটে প্রকাশিত ভিডিয়ো ক্লিপিংয়ে দুই যুবতী জানিয়েছেন, আইসিস সদস্য তাঁদের দুই সন্ত্রাসবাদী স্বামী মারা গিয়েছেন।

সোনিয়া ওরফে আয়েশা জানিয়েছেন, তিনি আফগানিস্তানের জীবন সম্পর্কে হতাশ এবং ভারতে তাঁর শ্বশুরবাড়িতে ফিরতে চান। নিমিষা ওরফে ফতিমাও তাঁর মা বিন্দু সম্পতের কাছে ফিরতে ব্যাকুল।

আদতে খ্রিস্টান পরিবারের মেয়ে সোনিয়া সেবাস্টিয়ান কলেজে পড়ার সময় ধর্মান্তরিত হলে আয়েশা হিসেবে পরিচিতি পান। এমবিএ ডিগে্রি অর্জন করার পরে তিনি কাসারগোডে আইএস-এর শাখা সংগঠন প্রধান পেশায় কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার আবদুল রশিদকে বিয়ে করেন।

হিন্দু পরিবারের মেয়ে নিমিষা ইসলামে ধর্মান্তরিত হওয়ার পরে ফতিমা নামে পরিচিত হন। তিনি ধর্মান্তরিত খ্রিস্টান বেক্সিন ওরফে ঈসাকে বিয়ে করেন।

ডেন্টাল ছাত্রী নিমিষা তাঁর মা-কে না জানিয়েই বেক্সিনকে বিয়ে করেন। পরে এই দম্পতিকে মগজধোলাই করে সোনিয়ার স্বামী আবদুল রশিদ। তারপরেই তাঁরা আইসিস-এ যোগ দেন বলে গোয়েন্দাদের ধারণা।

বন্ধ করুন