বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > Udaipur Killing: না জেনেই পোস্ট ফরোয়ার্ড কানাহাইয়ার ৮ বছরের ছেলের, সামনে ISIS-র ঢঙে হত্যার কাহিনি
না জেনেই পোস্ট ফরোয়ার্ড কানাহাইয়ার ৮ বছরের ছেলের, সামনে ISIS-র ঢঙে হত্যার কাহিনি। (ছবি সৌজন্যে লাইভ হিন্দুস্তান এবং পিটিআই)

Udaipur Killing: না জেনেই পোস্ট ফরোয়ার্ড কানাহাইয়ার ৮ বছরের ছেলের, সামনে ISIS-র ঢঙে হত্যার কাহিনি

  • Udaipur Killing: নূপুর শর্মা সংক্রান্ত একটি পোস্ট হোয়্যাটসঅ্যাপে ফরোয়ার্ড করেছিল কানাহাইয়া লালের আট বছরের ছেলে। কয়েকজন কট্টরপন্থীর চোখে পড়ে সেই পোস্ট। তারপরই কট্টরপন্থীদের রোষানলে পড়েন কানাহাইয়া লাল।

পয়গম্বর নিয়ে মন্তব্যে বিতর্কে নূপুর শর্মার সমর্থনে পোস্ট করেছিলেন। পরিবার সূত্রে খবর, কিছু না জেনেই সেই পোস্ট হোয়্যাটসঅ্যাপে ফরোয়ার্ড করেছিল কানাহাইয়া লালের আট বছরের ছেলে। তারপরই উদয়পুরে আইসিস জঙ্গিদের মতো ধারালো অস্ত্র দিয়ে কানাহাইয়ালারের মুণ্ডচ্ছেদ করে দুই ব্যক্তি। এমনটাই জানানো হয়েছে ‘লাইভ হিন্দুস্তান’-র প্রতিবেদনে।

‘হিন্দুস্তান টাইমস’ গ্রুপের ‘লাইভ হিন্দুস্তান’-র প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, কানাহাইয়ালারের পরিবারের সদস্য জানিয়েছেন, নূপুর শর্মা সংক্রান্ত যে পোস্ট করেছিলেন ওই ব্যক্তি, তা কিছু না জেনেই হোয়্যাটসঅ্যাপে ফরোয়ার্ড করেছিল আট বছরের ছেলে। কয়েকজন কট্টরপন্থীর চোখে পড়ে সেই পোস্ট। তারপরই কট্টরপন্থীদের রোষানলে পড়েন কানাহাইয়া লাল। 

(Udaipur Crime Live Updates: উদয়পুরে নৃশংস হত্যা সংক্রান্ত লাইভ আপডেট দেখুন এখানে)

গত ১৭ জুন কানাহাইয়া লালকে খুনের হুমকি দিয়ে ভিডিয়ো প্রকাশ করে এক অভিযুক্ত রিয়াজ আটারি। সেই ভিডিয়োটি ফেসবুক এবং উদয়পুরের বিভিন্ন হোয়্যাটসঅ্যাপ গ্রুপে ভাইরাল হয়ে গিয়েছিল। ‘লাইভ হিন্দুস্তান’-র প্রতিবেদন অনুযায়ী, সেই ভিডিয়োর প্রেক্ষিতে পুলিশে অভিযোগ দায়ের করেছিলেন কানাহাইয়া লাল। পুলিশি নিরাপত্তা চেয়েছিলেন। হুমকি পাওয়ার পর ছয়দিন দোকানও খোলেননি। মঙ্গলবারই প্রথম দোকান খুলেছিলেন। সেদিনই তাঁকে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়।

আরও পড়ুন: Mamata Banerjee on Udaipur Killing: ‘উগ্রপন্থা গ্রহণযোগ্য নয়’, নূপুর শর্মা বিতর্কে উদয়পুরে গলা কেটে খুনে বললেন মমতা

কীভাবে হত্যা করা হয়েছিল? 

কাপড় তৈরির বাহানায় মঙ্গলবার দুপুরে কানাহাইয়া লালের দোকানে আসে রিয়াজ এবং ঘাউস মহম্মদ। একজন ভিডিয়ো করছিল। অপরজনের পোশাকের মাপ নিচ্ছিলেন কানাহাইয়া লাল। তারপরই কানাহাইয়া লালের উপর হামলা চালায় কট্টরপন্থীরা। চিৎকার করে দোকান থেকে বেরিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেছিলেন কানাহাইয়া লাল। কিন্তু তাতে লাভ হয়নি। ধারালো অস্ত্র দিয়ে কানাহাইয়া লালের গলা কেটে দেয় কট্টরবাদীরা।

বন্ধ করুন