বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > করোনা রুখতে না পারায় চিনের উপর গোঁসা, সম্পর্ক ছেদের ইঙ্গিত ট্রাম্পের
মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প (ছবি সৌজন্য রয়টার্স)
মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প (ছবি সৌজন্য রয়টার্স)

করোনা রুখতে না পারায় চিনের উপর গোঁসা, সম্পর্ক ছেদের ইঙ্গিত ট্রাম্পের

  • ট্রাম্প এতই রেগে গিয়েছেন যে চিনা প্রেসিডেন্টের সঙ্গে তিনি ফোনেও কথা বলবেন না।

করোনাভাইরাস নিয়ে চিনের প্রতি 'রাগ' ক্রমশ বাড়ছে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের। এবার চিনের সঙ্গে যাবতীয় সম্পর্ক ছেদের হুঁশিয়ারির পাশাপাশি চিনা পড়ুয়াদের ভিসা না দেওয়ার ইঙ্গিতও দিয়ে রাখলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট।

বুধবার একটি আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্য়মের সাক্ষাৎকারে ক্ষোভ প্রকাশ করে ট্রাম্প জানান, করোনা রুখতে চিনের ব্যর্থতায় তিনি অত্যন্ত হতাশ। মহামারীর জেরে গত জানুয়ারিতে চিনের সঙ্গে স্বাক্ষরিত বাণিজ্য চুক্তির উপরও শঙ্কার কালো মেঘ তৈরি হয়েছে। অথচ একটা সময় সেই বাণিজ্য চুক্তিকে তাঁর প্রশাসনের বড়সড় সাফল্য হিসেবে দেখা হচ্ছিল বলে জানান ট্রাম্প।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘ওদের (চিন) এটা কখনওই হতে দেওয়া উচিত ছিল না। আমি একটা দুর্দান্ত বাণিজ্য চুক্তি করলাম। আর এখন আমি বলছি, আমার সেটা মনে হয় না। কালি শুকনো হতে না হতেই এই মহামারী চলে এল। এটা আমার কাছে একইরকম মনে হয় না।’

চিনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের সঙ্গে তাঁর ব্যক্তিগত সম্পর্ক ভালো বলে বরাবর দাবি করেছেন ট্রাম্প। কিন্তু এবার সেই সম্পর্কেও চোনা পড়তে চলেছে বলে জানান মার্কিন প্রেসিডেন্ট। তিনি বলেন, ‘কিন্তু আমি শুধু - এখন ওঁর (চিনা প্রেসিডেন্ট) সঙ্গে কথা বলতে চাই না।’ 

শুধু ট্রাম্প নয়, চিনের বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপের দাবি জানিয়েছেন রিপাবলিকান সেনেটররাও। সম্প্রতি এক সেনেটর পরামর্শ দেন, জাতীয় সুরক্ষা সংক্রান্ত উচ্চশিক্ষার জন্য মার্কিন মুলুকে চিনা পড়ুয়াদের ভিসার আবেদন নাকচ করে দেওয়া হোক। তা নিয়ে প্রশ্নের জবাবে ট্রাম্প বলেন, ‘অনেক কিছু জিনিস আছে, আমরা যা করতে পারি। আমরা অনেক কিছু করতে পারি। আমরা পুরো সম্পর্ক ছেদ করে দিতে পারি।’ পাশাপাশি ট্রাম্পের দাবি, বাণিজ্য চুক্তি ভেস্তে গেলে আমেরিকার উলটে ৫০০ বিলিয়ন ডলার বেঁচে যাবে। যা চিন থেকে পণ্য আমদানির জন্য আমেরিকার খরচ হয়।

বন্ধ করুন