বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > ২০ বছরের যুদ্ধের অবসান, মধ্যরাতে তালিবানি উল্লাসের মাঝে কাবুল ছাড়ল মার্কিন সেনা
কাবুল ছাড়া শেষ মার্কিন সেনা - মেজর জেনারেল ক্রিস ডোনাহু (ছবি সৌজন্যে রয়টার্স) (via REUTERS)
কাবুল ছাড়া শেষ মার্কিন সেনা - মেজর জেনারেল ক্রিস ডোনাহু (ছবি সৌজন্যে রয়টার্স) (via REUTERS)

২০ বছরের যুদ্ধের অবসান, মধ্যরাতে তালিবানি উল্লাসের মাঝে কাবুল ছাড়ল মার্কিন সেনা

  • দীর্ঘ ২০ বছরের যুদ্ধের অবসান ঘটিয়ে ৩০ অগস্ট রাতে মার্কিন সেনার শেষ উদ্ধারকারী বিমান কাবুলের মাটি ছেড়ে আকাশে উড়ে যায়।

দীর্ঘ ২০ বছরের যুদ্ধের অবসান ঘটিয়ে ৩০ অগস্ট রাতে মার্কিন সেনার শেষ উদ্ধারকারী বিমান কাবুলের মাটি ছেড়ে আকাশে উড়ে যায়। আফগানিস্তানের মাটি ছাড়া শেষ মার্কিন সেনা ছিলেন মেজর জেনারেল ক্রিস ডোনাহু। এক কথা জানিয়ে একটি টুইট করেন মার্কিন প্রতিরক্ষা দফতর। টুইটে লেখা হয়, আফগানিস্তান ত্যাগ করা সর্বশেষ আমেরিকান সৈনিক- মেজর জেনারেল ক্রিস ডোনাহু, কাবুলে মার্কিন মিশনের সমাপ্তি ঘটিয়ে ৩০ অগস্ট সি-১৭ বিমানে চড়েন তিনি।

এদিকে মধ্যরাতে মার্কিন সেনার শেষ বিমান কাবুল ছাড়তেই গুলির শব্দে কেঁপে ওঠে আফগান রাজধানী। তবে সেটা হামলার শব্দ ছিল না। তালিবানি উল্লাশের বহিঃপ্রকাশ ছিল। এদিকে শেষ মার্কিন বিমান কাবুলের মাটি ছাড়তেই আমেরিকার প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন একটি টুইটে দাবি করেন, 'গত ১৭ দিনে আমেরিকার ইতিহাসে সবচেয়ে বড় এয়ারলিফ্ট সম্পন্ন করেছে আমাদের সেনা। তুলনাহীন সাহস, পেশাদারিত্ব, সঙ্কল্পের সঙ্গে তারা এই কাজ করেছে। এবার আফগানিস্তানে ২০ বছরের সেনা-অবস্থানের অবসান হল।'

জানা গিয়েছে, আফগানিস্তানে নিযুক্ত প্রায় ৬০০০ মার্কিন সেনাকে ৩০ অগস্ট রাতে সরিয়ে নিয়েছে আমেরিকা। সঙ্গে এক বিবৃতিতে মার্কিন ডিফেন্স সেক্রেটারি লয়েড অস্টিন দাবি করেন যে বিগত কয়েকদিনে মার্কিন সামরিক বিমান প্রায় ১ লক্ষ ২৩ হাজার জনকে কাবুল থেকে উড়িয়ে নিরাপদ স্থানে নিয়ে গিয়েছে। উদ্ধারকৃত ব্যক্তিদের অধিকাংশ আফগান বলে দাবি করা হয়।

আফগানিস্তানে গত ২০ বছরের যুদ্ধে আমেরিকার ২ হাজার ৪৬১ জন সেনা জওয়ান প্রাণ হারিয়েছেন বলে পেন্টাগন সূত্রে জানানো হয়েছে। এর মধ্যে সম্প্রতি কাবুল বিমানবন্দরে এক আত্মঘাতী বিস্ফোরণে প্রাণ হারান ১৩ মার্কিন সেনা। তাছাড়া ১০ হাজারের বেশি সেনা গত ২০ বছরে জখম হয়েছেন। এদিকে মার্কিন ডিফেন্স সেক্রেটারি দাবি করেন যে মার্কিন নাগরিকদের জঙ্গি হামলা থেকে নিরাপদে রাখতে মার্কিন সেনা বিশ্বের যেকোনও প্রান্তে তত্পরতা দেখাতে পারে।

বন্ধ করুন