বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > ধর্মীয় স্থানে লাউডস্পিকার ব্যবহারে বিধিনিষেধ,আজান বিতর্কের মাঝে মহারাষ্ট্রে জারি নির্দেশিকা
আজান বিতর্কের মাঝে লাউডস্পিকার ব্যবহার নিয়ে নির্দেশিকা জারি মহারাষ্ট্রে (এএনআই) (Ishant Kumar)

ধর্মীয় স্থানে লাউডস্পিকার ব্যবহারে বিধিনিষেধ,আজান বিতর্কের মাঝে মহারাষ্ট্রে জারি নির্দেশিকা

  • আজান বিতর্কের মাঝে লাউডস্পিকার ব্যবহার নিয়ে নির্দেশিকা জারি করল মহারাষ্ট্র সরকার।

লাউডস্পিকারে আজান বাজা নিয়ে সম্প্রতি কড়া হুঁশিয়ারি দিয়েছিলেন এমএনএস প্রধান রাজ ঠাকরে। এরই মাঝে আজকে এক ঘোষণা করে মহারাষ্ট্র সরকার জানিয়েছে ধর্মীয় স্থানগুলিতে লাউডস্পিকার ব্যবহারের জন্য অনুমতি নেওয়া বাধ্যতামূলক৷ মহারাষ্ট্রের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী দিলীপ ওয়ালসে পাতিল আজ পুলিশের মহাপরিচালকের সঙ্গে এই সংক্রান্ত একটি বৈঠক করেন বলে জানা গিয়েছে৷ এএনআই সূত্রে খবর, বৈঠকে ডিজিপিকে এই সিদ্ধান্তের বিষয়ে সমস্ত পুলিশ কমিশনার এবং অফিসারদের নির্দেশ সম্পর্কে অবগত করার নির্দেশ দেওয়া হয়।

এএনআই-এর খবর অনুসারে, মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পাতিল রাজ্যের আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি এবং লাউডস্পিকার ব্যবহারের বিষয়ে আলোচনা করতে দেখা করবেন। উল্লেখ্য, এর আগে মহারাষ্ট্র নবনির্মাণ সেনার নেতা রাজ ঠাকরে হিন্দুত্বের পক্ষে সুর চড়িয়েছিলেন। লাউডস্পিকার ব্যবহার নিয়ে বিতর্ক বেড়ে যায় এরপরই। যদি ৩ মে-এর মধ্যে মসজিদ থেকে লাউডস্পিকারগুলি সরানো না হয় তবে ‘হিন্দু ভাইদের প্রস্তুত থাকার’ আহ্বান জানিয়েছিলেন রাজ ঠাকরে। সেই হুঁশিয়ারির মাঝেই এবার লাউডস্পিকার নিয়ে নির্দেশিকা দারি করল মহারাষ্ট্র সরকার।

রাজ ঠাকরে বলেছিলেন, ‘৩ মে পর্যন্ত অপেক্ষা করুন সবাই। দেশের সমস্ত হিন্দু ভাইদের কাছে আমার আহ্বান, আপনারা তৈরি হন। ৩ মে-এর পরেও যদি দেশের কোনও মসজিদে লাউডস্পিকার বাজে, তাহলে মসজিদের সামনেই আমরা লাউডস্পিকারে হনুমান চালিশা পড়ব।’ রাজ ঠাকরের বক্তব্য, তাঁরা কোনও ধর্মের প্রার্থনার অধিকার কেড়ে নিতে চান না। তবে মসজিদে জোরে লাউডস্পিকার বাজানোর বিরোধী তাঁরা।

বন্ধ করুন