বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > নির্বাচন পরবর্তী বাংলায় পুলিশি অত্যাচারের অভিযোগ, মুখ খুললেন ক্ষতিগ্রস্তরা
কোচবিহারে ভোটপরবর্তী হিংসায় আক্রান্ত একটি পরিবার। 
কোচবিহারে ভোটপরবর্তী হিংসায় আক্রান্ত একটি পরিবার। 

নির্বাচন পরবর্তী বাংলায় পুলিশি অত্যাচারের অভিযোগ, মুখ খুললেন ক্ষতিগ্রস্তরা

  • ভোট পরবর্তী হিংসা সংক্রান্ত একাধিক মামলা দায়ের হয়েছে সুপ্রিম কোর্টে। সেই তালিকায় জুড়ল আরও একটি মামলা

রাজ্যে শান্তি বিরাজ করছে। এরকমই দাবি করেছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার। তবে সেই দাবিকে উড়িয়ে দিয়ে ক্ষতিপূরণের দাবিতে সুপ্রিমকোর্টের দ্বারস্থ হয়েছেন নির্বাচন পরবর্তী হিংসার শিকার ব্যক্তিরা। অরুণ মুখোপাধ্যায় সহ চারজন অভিযোগকারী একটি জনস্বার্থ মামলা দায়ের করেছেন এই প্রেক্ষিতে। মামলাকারীদের অভিযোগ, কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশএর পর ঘরছাড়াদের ফেরানো হলেও তাদের সঙ্গে স্থানীয় পুলিশ ভালো ব্যবহার করছে না বরং প্রতিহিংসাপরায়ণ হয়ে আচরণ করছে। তাছাড়া ত্রাণও পাচ্ছেন না তাঁরা।

ভোট পরবর্তী হিংসা সংক্রান্ত একাধিক মামলা দায়ের হয়েছে সুপ্রিম কোর্টে। খুনের অভিযোগের মামলায় সুপ্রিম কোর্ট রাজ্যের বক্তব্য জানতে চেয়ে নোটিসও জারি করেছিল। যদিও রাজ্য জানিয়েছে, কলকাতা হাইকোর্টে ভোট পরবর্তী হিংসার অভিযোগের শুনানি হচ্ছে। ফলে সুপ্রিম কোর্টের এই বিষয়ে আলাদা করে হস্তক্ষেপের প্রয়োজন নেই।

এদিকে রাজ্যের ভোট পরবর্তী হিংসায় ধর্ষণের অভিযোগ তুলে মামলা করেছেন এক বৃদ্ধা এবং এক তরুণী। ঘটনার তদন্তে সিবিআই কিংবা কোনও বিশেষ তদন্তকারী দলের আবেদন করে সুপ্রিম কোর্টে দ্বারস্থ হয়েছিলেন তাঁরা।

পূর্ব মেদিনীপুরের খেজুরি এলাকার ৬০ বছরের বৃদ্ধা সুপ্রিম কোর্টে মামলা করে জানিয়েছেন, তৃণমূলের কর্মীরা গত ৪ মে তাঁর বাড়িতে ঢুকে ছয় বছরের নাতির সামনে তাঁকে ধর্ষণ করে। বাড়িতে লুটপাট চালানো হয়। যদিও পুলিশ এফআইআর নেয়নি। অন্যদিকে, মুর্শিদাবাদের নাবালিকার অভিযোগ, বিজেপি করায় তাঁকে শাস্তি দিতে গত ৭ মে তারিখে ৪ জন তৃণমূল কর্মী তাঁকে ধর্ষণ করে৷ পুলিশে অভিযোগ না-জানানোর জন্য বাড়িতে এসে হুমকি পর্যন্ত দেওয়া হয়। তাঁর মামলার শুনানি রাজ্যের বাইরে নিয়ে যাওয়ার আর্জি জানিয়েছেন তরুণী। আজ দুই মামলা শোনেন শীর্ষ আদালতের বিচারপতিরা।

 

বন্ধ করুন