নির্ভয়ার ৪ ধর্ষক
নির্ভয়ার ৪ ধর্ষক

তিহাড়ে হল ফাঁসির দড়ির শক্তিপরীক্ষা, ১ ফেব্রুয়ারির জন্য প্রস্তুতি শেষের দিকে

  • আসামীদের সঙ্গে শেষ বার দেখা করার ইচ্ছা থাকলে জেলে আসার আবেদন জানিয়ে চিঠি গিয়েছে ৪ অপরাধীর বাড়িতে।

নির্ভয়ার ধর্ষক ও খুনিদের ফাঁসিতে ঝোলাতে সোমবার গুরুত্বপূর্ণ পরীক্ষা করা হল তিহাড় জেলে। এদিন ৪টি ফাঁসিকাঠেরই শক্তিপরীক্ষা করেন ফাঁসুড়ে পবন জল্লাদ। পরীক্ষা সফল হয়েছে বলে জেলসূত্রের খবর।

ফাঁসির আগে ফাঁসির দড়ির শক্তি পরীক্ষা পুরনো প্রথা। সেজন্য প্রথমে চার জন আসামীরই ওজন নেওয়া হয়। এর পর প্রত্যেকের ওজনের দেড় গুণ ওজনের বালি বস্তায় ভরে ঝুলিয়ে দেওয়া হয় ফাঁসির দড়িতে। দড়ি অক্ষত থাকলে পরীক্ষা সফল বলে ধরা হয়। এদিন সেই পরীক্ষাই হয় তিহাড়ের ফাঁসিকাঠে।

ওদিকে জেলসূত্রের খবর, আগামী ১ ফেব্রুয়ারি সকালে ফাঁসির যাবতীয় আয়োজন প্রায় শেষ। জেলে কড়া নজরদারিতে আলাদা আলাদা সেলে রাখা হয়েছে ৪ অপরাধীকে। ২৪ ঘণ্টা তাদের ওপর নজর রেখেছেন জেলকর্মীরা।

আসামীদের সঙ্গে শেষ বার দেখা করার ইচ্ছা থাকলে জেলে আসার আবেদন জানিয়ে চিঠি গিয়েছে ৪ অপরাধীর বাড়িতে। এর মধ্যে বিনয় শর্মার সঙ্গে শুক্রবার দেখা করেন তাঁর পরিবারের লোকেরা। প্রায় দেড় ঘণ্টা কথা হয় তাদের।

অপরাধী মুকেশ সিং জেলে নিজের সেল থেকে বেরোতেই চায় না। তবে খাওয়াদাওয়ায় অরুচি নেই তার। অপরাধী বিনয় শর্মা জেলে অন্য সেলে থাকা তার বন্ধুর সঙ্গে দেখা করতে চেয়ে মাঝে মাঝেই চিৎকার শুরু করে। তবে কিছু খেতে চায় না সে। বেশি করে বললে ফের চিৎকার করে ওঠে জেলকর্মীদের ওপর।

এরই মধ্যে ফাঁসি মুকুবের দাবিতে ফের সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছে মুকেশ সিং। সোমবার এই নিয়ে প্রধান বিচারপতি শরদ বোবদে বলেন, ১ ফেব্রুয়ারি ফাঁসির দিন ঠিক হলে বিষয়টি যত দ্রুত সম্ভব নিষ্পত্তি করা উচিত।

সব ঠিক থাকলে আগামী ১ ফেব্রুয়ারি ফাঁসিতে ঝুলতে চলেছে নির্ভয়ার ধর্ষক বিনয় শর্মা, মুকেশ সিং, অক্ষয় ঠাকুর ও পবন গুপ্তা।

বন্ধ করুন