পুরীর মন্দির চত্বরে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়
পুরীর মন্দির চত্বরে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

পুরীর মন্দিরে পুজো দিতে গেলেন মমতা, বৈদিক মন্ত্রে স্বাগত জানালেন সেবায়েতরা

  • বিকেল ৪.১৫ মিনিট নাগাদ মুখ্যমন্ত্রী সেখানে পৌঁছেল তাঁকে ফুলমালায় স্বাগত জানান সেবায়েতরা। বৈদিক মন্ত্রোচ্চারণের মধ্যে দিয়ে মুখ্যমন্ত্রীকে প্রবেশ করানো হয় মন্দিরের ভিতরে।

ভুবনেশ্বরে ইস্টার্ন জোনাল কাউন্সিলের বৈঠকে যোগ দিতে গিয়ে পুরীর জগন্নাথ মন্দিরে পুজো দিলেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বুধবার বেলা সওয়া চারটে নাগাদ পুরুষোত্তম ধামে পৌঁছন তিনি। তাঁকে প্রথামাফিক স্বাগত জানান মন্দিরের প্রধান পুরোহিত। এদিন মুখ্যমন্ত্রীর সফর ঘিরে বিশেষ নিরাপত্তার ব্যবস্থা করেছিল ওড়িশা পুলিশ।

আড়াই বছর আগে মমতার জগন্নাথ ধাম সফর ঘিরে চরম বিতর্ক হয়েছিল। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে মন্দিরে ঢুকতে দেওয়া উচিত কি না তা নিয়ে বিতর্কে জাড়ান সেবায়েতরা। এবার অবশ্য তেমন কিছু ঘটেনি। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আসার খবর পেয়েই ফুল মালা নিয়ে মন্দিরের প্রধান দ্বারে হাজির হন প্রধান পুরোহিত।

বিকেল ৪.১৫ মিনিট নাগাদ মুখ্যমন্ত্রী সেখানে পৌঁছেল তাঁকে ফুলমালায় স্বাগত জানান সেবায়েতরা। বৈদিক মন্ত্রোচ্চারণের মধ্যে দিয়ে মুখ্যমন্ত্রীকে প্রবেশ করানো হয় মন্দিরের ভিতরে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে দেখতে এদিন সাধারণ মানুষের উৎসাহও ছিল চোখে পড়ার মতো।

রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মতে, সম্প্রতি গেরুয়া হাওয়ায় গা ভাসিয়ে নির্বাচনের আগে মন্দিরে যাওয়ার প্রবণতা বেড়েছে রাজনৈতিক দলের শীর্ষনেতাদের। ২০১৯ লোকসভা নির্বাচনের আগে পৈতে পরে মন্দিরে মন্দিরে মাথা ঠুকেও শেষ রক্ষা হয়নি রাহুল গান্ধীর। তবে সম্প্রতি একই টোটকা কাজে লাগিয়ে বাজিমাত করেছেন কেজরিওয়াল। মমতাও সেই ধারাতেই সামিল হয়েছেন বলে দাবি বিশেষজ্ঞদের।



বন্ধ করুন