বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > সামনেই লোকসভার অধ্যক্ষ পদের নির্বাচন, অতীতের ট্রেন্ড কি বজায় থাকবে এবার?

সামনেই লোকসভার অধ্যক্ষ পদের নির্বাচন, অতীতের ট্রেন্ড কি বজায় থাকবে এবার?

এবারও কি স্পিকার হবেন ওম বিড়লা (Om Birla-X)

কেন্দ্রীয় আইনসভার অধ্যক্ষ পদে ১৯২৫ থেকে ১৯৪৬ সালের মধ্যে ৬ বার প্রতিদ্বন্দ্বিতা হয়েছিল। বিট্ ঠলভাই প্যাটেল তাঁর প্রথম মেয়াদ শেষ হওয়ার পরে ১৯২৭ সালে সর্বসম্মতিক্রমে এই পদে পুনরায় নির্বাচিত হন। মহাত্মা গান্ধীর আইন অমান্য আন্দোলনের আহ্বানের পর ১৯৩০ সালের ২৮ এপ্রিল প্যাটেল পদত্যাগ করেন।

স্বাধীনতার পর থেকে লোকসভার স্পিকার বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। সুতরাং, বিরোধী দল ইন্ডিয়া ব্লক যদি ২৬ জুন ১৮ তম লোকসভার অধ্যক্ষ নির্বাচন করতে বাধ্য করে, তবে এটি স্বাধীন ভারতের ইতিহাসে প্রথম দৃষ্টান্ত হবে কারণ সংসদের নিম্নকক্ষের গুরুত্বপূর্ণ চেয়ারটি সর্বদা ক্ষমতাসীন এবং বিরোধী দল বা জোটের মধ্যে ঐকমত্যের ভিত্তিতে নির্বাচিত হয়েছে। স্বাধীনতার পর থেকে এই ট্রেন্ডই বজায় রয়েছে।

 ১৯২৫ সালে, তৎকালীন ইম্পেরিয়াল লেজিসলেটিভ কাউন্সিলের নিম্নকক্ষ - ব্রিটিশ ভারতের আইনসভার নিম্নকক্ষ কেন্দ্রীয় আইনসভার স্পিকার নির্বাচনের জন্য ২৪ অগস্ট প্রথমবারের মতো নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছিল। স্বরাজ পার্টির নেতা বিট্ঠলভাই জে প্যাটেল টি রাঙ্গাচারিয়ারের বিরুদ্ধে নির্বাচনে জয়ী হন। স্পিকার হিসাবে নির্বাচিত প্যাটেল দুটি ভোটের স্বল্প ব্যবধানে জিতেছিলেন। প্যাটেল রাঙ্গাচারিয়ারের প্রাপ্ত ৫৬ ভোটের বিপরীতে ৫৮ টি ভোট তিনি পেয়েছিলেন। 

এবারের লোকসভায় বিরোধী ইন্ডিয়া ব্লক ডেপুটি স্পিকারের পদ চাইছে। প্রথা অনুযায়ী শাসক দল বা জোট স্পিকারের পদ পেলে ডেপুটি স্পিকার আসেন লোকসভায় বিরোধী দল বা জোট থেকে। অষ্টাদশ লোকসভার প্রথম অধিবেশন ২৪ শে জুন শুরু হবে, এই সময়ে নিম্নকক্ষের নতুন সদস্যরা শপথ নেবেন এবং স্পিকার নির্বাচিত হবেন। আগামী ২৬ জুন নির্বাচনের তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে।

লোকসভা নির্বাচনে ভারতীয় জোট ২৩৩টি আসন জিতেছে এবং ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) নেতৃত্বাধীন ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক অ্যালায়েন্স (এনডিএ) ২৯৩টি আসন জিতে টানা তৃতীয়বারের মতো ক্ষমতা ধরে রেখেছে। তেলুগু দেশম পার্টি (টিডিপি) ১৬টি আসন এবং জনতা দল (ইউ) ১২টি আসন নিয়ে বিজেপির সবচেয়ে বড় জোটসঙ্গী, যারা ২৪০টি আসন পেয়েছে। স্পিকার পদ চায় টিডিপি এমন খবর হাওয়ায় ভাসছে। যদিও প্রকাশ্যে কিছু বিবৃতি আসেনি। বিরোধী উদ্ধব শিবসেনা বলেছে যে টিডিপি প্রার্থী দিলে তারা সমর্থন করবে। এনডিএ সরকারের আরেক শরিক জেডিইউ লোকসভার অধ্যক্ষ পদে সম্ভাব্য বিজেপি প্রার্থীকে সমর্থন করার কথা ঘোষণা করেছে।

১৯২৫ সাল থেকে স্পিকারের জন্য ছয়টি প্রতিযোগিতা-

 

কেন্দ্রীয়আইনসভার অধ্যক্ষের পদটি ১৯২৫ থেকে ১৯৪৬ সালের মধ্যে ছয়বার প্রতিযোগিতার সাক্ষী ছিল। প্যাটেল তার প্রথম মেয়াদ শেষ হওয়ার পরে  ১৯২৭ সালের ২০ শে জানুয়ারি সর্বসম্মতিক্রমে এই পদে পুনরায় নির্বাচিত হন। প্যাটেল অবশ্য মহাত্মা গান্ধীর আইন অমান্য করার আহ্বানের পরে ১৯৩০ সালের ২৮ এপ্রিল এই পদ ত্যাগ করেন। ১৯৩০ সালের ৯ জুলাই স্পিকার নির্বাচনে নন্দ লালের (২২ ভোট) বিরুদ্ধে স্যার মুহাম্মদ ইয়াকুব (৭৮ ভোট) জয়ী হন। চতুর্থ বিধানসভায়, স্যার ইব্রাহিম রহিমতুলা (৭৬ ভোট) স্পিকার নির্বাচনে হরি সিং গৌড়কে পরাজিত করে জয়ী হন, যিনি ৩৬ ভোট পেয়েছিলেন। রহিমতুলা ১৯৩৩ সালের ৭ মার্চ স্বাস্থ্যগত কারণে পদত্যাগ করেন। ১৯৩৩ সালের ১৪ মার্চ সর্বসম্মত পছন্দ হিসেবে শন্মুখম চেট্টি তাঁর স্থলাভিষিক্ত হন।

১৯৩৫ সালের ২৪ জানুয়ারি স্যার আবদুর রহিম পঞ্চম গণপরিষদের স্পিকার নির্বাচিত হন। রহিম টি একে শেরওয়ানির বিরুদ্ধে ৭০ ভোট পেয়েছিলেন, যিনি ৬২ জন সদস্যের ভোট পেয়েছিলেন। সাংবিধানিক পরিবর্তন এবং দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের কারণে পঞ্চম আইনসভার মেয়াদ সময়ে বাড়ানো হওয়ায় রহিম ১০ বছরেরও বেশি সময় ধরে এই পদে অধিষ্ঠিত ছিলেন।

 স্পিকার পদের জন্য শেষ প্রতিদ্বন্দ্বিতা ১৯৪৬ সালের ২৪ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হয়েছিল, যখন কংগ্রেস নেতা জিভি মাভলঙ্কার কাওয়াসজি জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে মাত্র তিন ভোটের ব্যবধানে জয়ী হয়েছিলেন। মাভালঙ্কার ৬৬ ভোট পেয়েছিলেন এবং জাহাঙ্গীর ৬৩ ভোট পেয়েছিলেন। প্রথম সাধারণ নির্বাচনের পরে লোকসভা ও রাজ্যসভা গঠিত হওয়ার পরে ১৯৫২ সালের ১৭ এপ্রিল পর্যন্ত মাভলঙ্কার অস্থায়ী সংসদের অধ্যক্ষ ছিলেন।

স্বাধীনতার পর থেকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় স্পিকার

লোকসভার অধ্যক্ষ নির্বাচিত হয়েছেন ক্ষমতাসীন ও বিরোধী উভয় দলের মধ্যে ঐকমত্যের ভিত্তিতে। পরবর্তী লোকসভায় স্পিকার পদে পুনর্নির্বাচিত হয়েছেন কেবল এম এ আয়েঙ্গার, জিএস ধিলোঁ, বলরাম জাখর এবং জিএমসি বালাযোগী।

১৯৫৬ সালে, মাভলঙ্কারের মৃত্যুর পরে লোকসভার প্রথম ডেপুটি স্পিকার আয়েঙ্গার স্পিকার হিসাবে নির্বাচিত হন। তিনি ১৯৫৭ সালের সাধারণ নির্বাচনে জয়ী হন এবং দ্বিতীয় লোকসভার স্পিকার হিসাবেও নির্বাচিত হন।

১৯৬৯ সালে এন সঞ্জীব রেড্ডির পদত্যাগের পরে ধিলন চতুর্থ লোকসভার অধ্যক্ষ হিসাবে নির্বাচিত হন। ধিলন ১৯৭১ সালেও পঞ্চম লোকসভার স্পিকার হয়েছিলেন এবং ১৯৭৫ সালের ১ ডিসেম্বর পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেছিলেন, যখন তিনি জরুরি অবস্থার সময় পদত্যাগ করেছিলেন।জাখর সপ্তম ও অষ্টম লোকসভার অধ্যক্ষ ছিলেন এবং দুটি পূর্ণ মেয়াদ সম্পন্ন করার একমাত্র প্রিসাইডিং অফিসার হওয়ার গৌরব অর্জন করেছিলেন।

দ্বাদশ লোকসভার অধ্যক্ষ হিসাবে বালাযোগীকে বেছে নেওয়া হয়েছিল, যার মেয়াদ ছিল ১৯ মাস। ১৯৯৯ সালের ২২ অক্টোবর তিনি ত্রয়োদশ লোকসভার অধ্যক্ষ হিসাবে নির্বাচিত হন, ২০০২ সালের ৩ মার্চ হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় তাঁর মৃত্যুর আগে পর্যন্ত তিনি দায়িত্ব সামলেছিলেন। 

এখন দেখার বিষয় আগামী সপ্তাহে ইতিহাস রচিত হবে নাকি ইতিহাসের পুনরাবৃত্তি হবে। যেভাবে ইন্ডিয়া জোট প্রথম থেকেই রণহুঙ্কার দিচ্ছে, সেখানে স্পিকার পদে ভোট হওয়ার সম্ভাবনা একেবারে উড়িয়ে দেওয়া যায় না। 

ঘরে বাইরে খবর

Latest News

কুম্ভ রাশির আজকের দিন কেমন যাবে? জানুন ২৪ জুলাইয়ের রাশিফল মকর রাশির আজকের দিন কেমন যাবে? জানুন ২৪ জুলাইয়ের রাশিফল ২৪ বছরের চাকরি জীবন, সেখান থেকে অপমান করে বরখাস্ত করা হল সূর্যের ছোটবেলার কোচকে ধনু রাশির আজকের দিন কেমন যাবে? জানুন ২৪ জুলাইয়ের রাশিফল বাজেটে তুলে নেওয়া হল 'অ্যাঞ্জেল ট্যাক্স', সরকারের এই পদক্ষেপে প্রশংসায় বিরোধীরাও বৃশ্চিক রাশির আজকের দিন কেমন যাবে? জানুন ২৪ জুলাইয়ের রাশিফল তুলা রাশির আজকের দিন কেমন যাবে? জানুন ২৪ জুলাইয়ের রাশিফল কন্যা রাশির আজকের দিন কেমন যাবে? জানুন ২৪ জুলাইয়ের রাশিফল সিংহ রাশির আজকের দিন কেমন যাবে? জানুন ২৪ জুলাইয়ের রাশিফল কর্কট রাশির আজকের দিন কেমন যাবে? জানুন ২৪ জুলাইয়ের রাশিফল

Copyright © 2024 HT Digital Streams Limited. All RightsReserved.