বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > ‘বিপজ্জনক’ বজরং দল কেন নিষিদ্ধ নয়, সংসদীয় প্যানেলের তোপের মুখে ফেসবুক
বজরং দলকে ‘বিপজ্জনক’ সংগঠন হিসেবে চিহ্নিত করা সত্ত্বেও তাকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করতে ফেসবুক কর্তৃপক্ষের অনীহার সমালোচনা করল সংসদীয় প্যানেল।
বজরং দলকে ‘বিপজ্জনক’ সংগঠন হিসেবে চিহ্নিত করা সত্ত্বেও তাকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করতে ফেসবুক কর্তৃপক্ষের অনীহার সমালোচনা করল সংসদীয় প্যানেল।

‘বিপজ্জনক’ বজরং দল কেন নিষিদ্ধ নয়, সংসদীয় প্যানেলের তোপের মুখে ফেসবুক

  • বজরং দলকে নিষিদ্ধ ঘোষণায় অনীহার জেরে ফেসবুক ইন্ডিয়া প্রধান অজিত মোহনকে ভর্ৎসনা করল সংসদীয় প্যানেল।

অন্তর্বর্তী গোয়েন্দা রিপোর্টে বজরং দলকে ‘বিপজ্জনক’ সংগঠন হিসেবে চিহ্নিত করা সত্ত্বেও তাকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করতে ফেসবুক কর্তৃপক্ষের অনীহার জেরে সংস্থার ভারতীয় প্রধান অজিত মোহনকে ভর্ৎসনা করল তথ্য প্রযুক্তি বিষয়ক সংসদীয় প্যানেল। গত ৫ মাসে এই নিয়ে দ্বিতীয় বার ফেসবুকের বিরুদ্ধে অভিযোগ জানাল প্যানেল। 

সূত্রে খবর, প্যানেলের বৈঠকে ফেসবুকের আচরণবিধি নিয়ে আপত্তি তোলেন কংগ্রেস সাংসদ শশী থারুর, কার্তি চিদম্বরম ও নাসির হুসেন। থারুরের নেতৃত্বাধীন প্যানেল ইতিমধ্যে ফেসবুক প্রতিনিধিদের সঙ্গে আলোচনায় নাগরিক অধিকার সুরক্ষা, অনলাইন সংবাদমাধ্যমের অপব্যবহার এবং ডিজিটাল জগতে নারী নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করার নীতি নিয়ে প্রশ্ন তোলে। অন্তর্বর্তী রিপোর্টে বজরং দলকে বিপজ্জনক সংগঠন হিসেবে উল্লেখ করা হলেও কী কারণে তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি, তাই নিয়ে ফেসবুক আধিকারিকদের ব্যাখ্যাজানতে চাওয়া হয়। 

প্যানেলের তরফে অভিযোগ করা হয়, বিপজ্জনক সংগঠনের তরফে ঘৃণা ও বৈষম্যমূলক পোস্ট করার পরে যে তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়, পোস্ট মুছে ফেললেও তার মারাত্মক প্রভাব রয়ে যায়। উদাহরণ হিসেবে বলা হয়, মহারাষ্ট্রে গণপিটুনিতে দুই সাধুর মৃত্যুর ঘটনা। 

এর আগে ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল এক নিবন্ধে প্রকাশ করেছিল যে, ফেসবুকের অন্তর্বর্তী তদন্ত রিপোর্টে বজরং দলকে বিপজ্জনক হিসেবে চিহ্নিত করা সত্ত্বেও আর্থিক মুনাফা ও ভারতে তাদের কর্মীদের নিরাপত্তার স্বার্থে ওই সংগঠনকে নিষিদ্ধ করা থেকে বিরত রয়েছে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ। 

নিবন্ধের তোলা অভিযোগ অস্বীকার করেন ফেসবুকের মুখপাত্র অ্যান্ডি স্টোন। তাঁর বক্তব্য, নিষেধাজ্ঞা আরোপের বিষয়ে তাঁর সংস্থা সতর্ক, কড়া ও বিভিন্ন বিষয়ক পদক্ষেপে বিশ্বাসী। রাজনৈতিক বা অন্যান্য চাপের মুখে কোনও ব্যক্তি বা সংগঠনের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপের বিষয়ে দ্বিধা করে না ফেসবুক, দাবি স্টোনের। 

অন্য দিকে, ফেসবুক প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠকে সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মে পোস্ট করা সংবাদের সত্যতা যাচাই বিষয়ক নীতি নিয়েও প্রশ্ন তোলে সংসদীয় প্যানেল। এই বিষয়ে ফেসবুক কর্তৃপক্ষের দায়বদ্ধতা সম্পর্কেও তাঁদের স্মরণ করিয়ে দেওয়া হয়। এমনকি, জনমানসে প্রতিক্রিয়া তৈরির বিষয়ে ফেসবুক পোস্টের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিয়েও কথা হয় দুই পক্ষের। পাশাপাশি, ফেসবুক ইন্ডিয়ায় কর্মরত ২৬৮ জন কর্মী সম্পর্কে সবিস্তারে তথ্যও চা প্যানেল। 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সূত্র জানিয়েছে, তথ্যসূত্রে ফেসবুক আর্থিক মুনাফা করে কি না, তা জানতে চান প্যানেলের সদস্য তৃণমূল সাংসদ মহুয়া মৈত্র। তবে এই প্রশ্ন এড়িয়ে গিয়েছেন ফেসবুক কর্তৃপক্ষ।

বন্ধ করুন