বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > World Environment Day 2022: বাংলাদেশ: দেখে গা গুলিয়ে ওঠে! বুড়িগঙ্গার এমন পাঁক জলে কেন বহু মানুষ স্নান করছেন
বুড়িগঙ্গার এই জলেই স্নানে নামছেন বহু বাংলাদেশি মানুষ। 

World Environment Day 2022: বাংলাদেশ: দেখে গা গুলিয়ে ওঠে! বুড়িগঙ্গার এমন পাঁক জলে কেন বহু মানুষ স্নান করছেন

  • নদীকে দূষণ মুক্ত করতে প্রতিবাদে নেমেছেন বহু মানুষ। নদীর দূষিত জলেই স্নান করছেন তাঁরা। বিশ্ব পরিবেশ দিবস উপলক্ষে এই উদ্যোগ। 

বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার অনেক কিছুর নির্ভরশীল বুড়িগঙ্গা নদীর উপর। বর্তমানে এই নদী ভয়াবহ দূষণের শিকার। এই দূষণের হাত থেকে বুড়িগঙ্গাকে বাঁচানোর উদ্দেশ্যে ৫ জুন রবিবার গণ-স্নানের কর্মসূচি গ্রহণ করেছে বাংলাদেশের বেশ কিছু পরিবেশরক্ষা সংগঠন।

বিশ্ব পরিবেশ দিবসে এই কর্মসূচির আয়োজন করেছে, বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা), ওয়াটারকিপার্স বাংলাদেশ, জেসিআই ঢাকা নর্থ ও রিভার অ্যান্ড ডেল্টা রিসার্চ সেন্টার। বুড়িগঙ্গার জলকে ব্যাবহারের উপযোগী করা, দূষণমুক্ত পরিবেশ তৈরি এবং দূষণের শিকার ব্যক্তিদের পাশে দাঁড়ানোর জন্য এই উদ্যোগ বলে জানিয়েছেন আয়োজকেরা।

সকাল ১০টায় এই কর্মসূচি শুরু হওয়াক কথা। শুরুতেই থাকবে নদীর পারে বসবাসরারী মানুষের সঙ্গে সংলাপ ও সচেতনতা কর্মসূচি। এরপর গণ-স্নানে অংশ নেবেন অংশগ্রহণকারীরা; যেখানে নদীরক্ষা বিষয়ক বার্তা তুলে ধরবেন তারা। শেষে থাকছে সংক্ষিপ্ত এক আলোচনা সভা।

বুড়িগঙ্গা নদী কেবলমাত্র অর্থনৈতিকভাবেই গুরুত্বপূর্ণ নয়। এই নদী ঢাকা শহরের রক্ষাকর্তাও। নদীটির তীরে ৫২ লাখেরও বেশি মানুষ বাস করে। আজ এই নদী সামগ্রিকভাবে দূষণে জর্জরিত। কল-কারখানার রাসায়নিক বর্জ্য, গৃহস্থালির বর্জ্য, চিকিৎসা বর্জ্য, মৃত প্রাণী, প্লাস্টিক ও তেল বুড়িগঙ্গাকে প্রতিনিয়তই দূষণ করে যাচ্ছে, নষ্ট হচ্ছে বাস্তুতন্ত্রের ভারসাম্য। যার ফলে প্রাণ হারাচ্ছে এই নদী।

বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা)-এর সাধারণ সম্পাদক শরীফ জামিলের মতে,বুড়িগঙ্গা কার্যত প্রাণহীন হয়ে পড়েছে। ঢাকা শহরের জীবন ও পরিবেশ বাঁচাতে গেলে বুড়িগঙ্গাকে বাঁচাতেই হবে।

এই কর্মসূচির অন্যতম প্রধান উদ্যোক্তা শরিফুল ইসলাম সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, মানুষের জীবন, সম্পদ, সর্বোপরি ঢাকা শহরকে বাঁচাতে হলে বুড়িগঙ্গা ও এর বৈচিত্র্যকে বাঁচাতেই হবে। এই ব্যতিক্রমী উদ্যেগের লক্ষ বুড়িগঙ্গাকে স্নানের উপযোগী করে তোলা।

বন্ধ করুন