বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > লাদাখে অচলাবস্থা শুরু করা কম্যান্ডারকে সরিয়ে দিল চিন

শিশির গুপ্ত

লাদাখে ঝামেলা পাকিয়েছিল যে জেনারেল, তাকে সরিয়ে দিয়েছেন চিনের রাষ্ট্রপতি শি জিনপিং। পশ্চিম থিয়েটারের কম্যান্ডার জেনারেল ঝাও জঙ্গকিকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। ইতিমধ্যেই তাঁর চাকরির মেয়াদ শেষ হয়ে গিয়েছিল। তাঁর জায়গায় এসেছেন জেনারেল ঝ্যাং শুদং যিনি এর আগে ভারতীয় সীমান্তে ডিউটি পাননি। 

গত আট মাস ধরে লাদাখে সম্মুখ সমরে ভারত-চিন সেনা। লাগাতার আলোচনা চললেও সমাধানসূত্র মেলেনি। এর আগে ডোকলামেও চিনের সঙ্গে যখন দ্বন্দ্ব হয়েছিল, তখন স্থানীয় চিনা সেনার নেতৃত্বে ছিলেন ঝাও। তবে এবার তাঁর প্রস্থান হল। ফলে কিছুটা হলেও আশাবাদী নয়াদিল্লি যে পরিবর্তে যেএসেছেন তিনি হয়তো অতটা ভারত বিরোধী অবস্থান নেবেন না। 

এই প্রথমবার এমন একজন অফিসারকে ওয়েস্টার্ন থিয়েটার কম্যান্ডের দায়িত্ব দেওয়া হল যার আগে ভারতীয় সীমান্তে কাজ করার অভিজ্ঞতা নেই। নতুন যিনি এসেছেন, সেই ঝ্যাং-এর বয়স ৫৮, ঝাওয়ের তুলনায় অপেক্ষাকৃত নবীন। ভারতীয় সেনা কম্যান্ডাররা মনে করছেন যে লাদাখ অচলাবস্থা নিয়ে পরবর্তী সামরিক বৈঠকে কিছুটা হলেও নয়া নেতৃত্বের মন বোঝা যাবে। তাঁরা ফিঙ্গার ক্রস করে রাখছেন বলেই জানিয়েছেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ভারতীয় সেনা কম্যান্ডার।

চিনা বিশেষজ্ঞরা মনে করেন যে ঝ্যাংয়ের কোনও রাজনৈতিক উচ্চাকাঙ্খা নেই, তাই তিনি অবস্থা বুঝে ব্যবস্থা নেবেন। অন্যদিকে ঝাও বর্তমানে সেন্ট্রাল কমিটির সদস্য। কিন্তু এটা মনে করা হচ্ছে যে তিনি সেন্ট্রাল মিলিটারি কমিশনে আসতে চেয়েছিলেন যাতে ৭২ বছর বয়স অবধি চাকরি করতে পারেন। ২০১৬ সালে ঝাও যখন ওয়েস্ট্রার্ন থিয়েটার কম্যান্ডের দায়িত্ব নেন, তখনই তিনি এক্সটেনশনে ছিলেন। তারপর চলতি বছরই তাঁর অবসরের বয়স অর্থাৎ ৬৫ পূর্ণ হয়। তবুও তিনি পদে আসীন ছিলেন। 

ভারতের হিসেব মতো, প্রাথমিক ভাবে ঝাও যখন প্যাংগংয়ে জারিজুরি করছিলেন, তখন তাতে সেন্ট্রাল মিলিটারি কমিশনের সায় ছিল। কিন্তু তারপর যখন গালওয়ানে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ হয় ১৫ জুন, সেই নিয়ে অনেকেই চিন্তায় পড়ে যান বেজিংয়ের ক্ষমতার অলিন্দে। প্রসঙ্গত, গালওয়ানে কতজন চিনা সেনার মৃত্যু হয়েছে সেটা তারা জানায়নি। 

এরপর ভারতও কোমর বেঁধে লড়াই করে ওই অঞ্চলে বিশেষত প্যাংগংয়ের দক্ষিণ কূলে যেভাবে গুরুত্বপূর্ণ চূড়ো দখল নেয় সেনাবাহিনী, তাতে লোকসান হয় চিনের। ঝাও-এর সঙ্গে চিনের নেতৃত্বের ঠিক কি এই সময় আলোচনা হয়েছে সেই নিয়ে নিশ্চিত নয় কেউ। কিন্তু কূটনৈতিক স্তরে আলোচনা ও সামরিক স্তরে আলোচনার ক্ষেত্রে চিনের অবস্থান সমান ছিল না বলেই ভারতীয় অধিকর্তারা জানিয়েছেন। 

জেনারেল ঝ্যাংয়ের জন্ম সমুদ্র উপকূলবর্তী রাজ্যে লিয়াওনিংয়ে। এর আগে তিনি উত্তরপূর্ব চিনে শেনিয়াং সামরিক অঞ্চলে দায়িত্বে ছিলেন লাল ফৌজের ৩৯তম বাহিনীর। তার আগে মার্চ ২০১৭ থেকে জানুয়ারি ২০১৮ অবধি তিনি সেন্ট্রাল থিয়েটার কম্যান্ডের উপ প্রধানের দায়িত্ব পালন করেন। এই কম্যান্ড চিনের রাজধানী বেজিংয়ের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করে। চিনের সত্তরতম প্রতিষ্ঠা দিবসে ঝাও জয়েন্ট মিলিটারি প্যারেডে ডেপুটি কম্যান্ডার ছিলেন ও  বিশেষ প্রশংসা কুড়িয়ে নেন। বর্তমানে ওয়েস্টার্ন থিয়েটার কম্যান্ডার হিসেবে চেঙ্গডুতে বদলি হয়ে এসেছেন তিনি। দলের সেন্ট্রাল কমিটি বা কংগ্রেসের সদস্য নন তিনি। তাঁর আগমনে ভারত-চিন সম্পর্কের সমীকরণে কোনও বদল হয় কিনা, সেটাই দেখার। 

 

বন্ধ করুন