Cornavirus latest update in India: কলকাতাতেও এবার করোনার থাবা, জেনে নিন কীভাবে রক্ষা পাবেন

  • এবার কলকাতায় এক তরুণের শরীরে মিলল করোনাভাইরাসের অস্তিত্ব। তাঁর রিপোর্ট পজিটিভ হওয়ার পর দুশ্চিন্তাগ্রস্ত হয়ে পড়েছেন রাজ্যের মানুষ। তবে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, কেন্দ্র ও রাজ্য ইতিমধ্যে অযথা আতঙ্কিত না হওয়ার পরামর্শ দিয়েছে। করোনার প্রকোপ থেকে রক্ষা পেতে শুধুমাত্র কয়েকটি বিষয় গুরুত্ব সহকারে পালন করতে হবে। দেখে নিন সেই বিষয়গুলি কী কী -
একটি বড় পরিবারভুক্ত ভাইরাস হল করোনাভাইরাস। এই ভাইরাসের ফলে অসুস্থ হয়ে পড়ে মানুষ। মারণ এই ভাইরাসের ফলে মানবদেহে শ্বাসকষ্টজনিত সংক্রমণ, সাধারণ সর্দি-কাশি থেকে শুরু করে মিডল-ইস্ট রেসপিরেটরি সিনড্রোম (মার্স) ও সিভিয়ার অ্যাকিউট রেসপিরেটরি সিনড্রোম (সার্স) হতে পারে। সদ্য যে করোনাভাইরাসের খোঁজ পাওয়া গিয়েছে, তার ফলে COVID-19 হয়। (ছবি সৌজন্য রয়টার্স)
1/10একটি বড় পরিবারভুক্ত ভাইরাস হল করোনাভাইরাস। এই ভাইরাসের ফলে অসুস্থ হয়ে পড়ে মানুষ। মারণ এই ভাইরাসের ফলে মানবদেহে শ্বাসকষ্টজনিত সংক্রমণ, সাধারণ সর্দি-কাশি থেকে শুরু করে মিডল-ইস্ট রেসপিরেটরি সিনড্রোম (মার্স) ও সিভিয়ার অ্যাকিউট রেসপিরেটরি সিনড্রোম (সার্স) হতে পারে। সদ্য যে করোনাভাইরাসের খোঁজ পাওয়া গিয়েছে, তার ফলে COVID-19 হয়। (ছবি সৌজন্য রয়টার্স)
COVID-19 কী ? সদ্য যে করোনাভাইরাসের খোঁজ পাওয়া গিয়েছে, তার ফলে যে সংক্রামক রোগ হয়, সেটি হল COVID-19। গত বছর ডিসেম্বরে চিনের উহানের আগে এই ভাইরাস বা রোগ অজানা ছিল। (ছবি সৌজন্য রয়টার্স)
2/10COVID-19 কী ? সদ্য যে করোনাভাইরাসের খোঁজ পাওয়া গিয়েছে, তার ফলে যে সংক্রামক রোগ হয়, সেটি হল COVID-19। গত বছর ডিসেম্বরে চিনের উহানের আগে এই ভাইরাস বা রোগ অজানা ছিল। (ছবি সৌজন্য রয়টার্স)
উপসর্গ : COVID-19-এর সাধারণ উপসর্গ হল জ্বর, শুকনো কাশি ও ক্লান্তি। কারোর কারোর ব্যথা-যন্ত্রণা, নাকবদ্ধ, নাক থেকে জ্বল পড়া, ডায়েরিয়া বা গলা ব্যথা হতে পারে। এগুলি প্রথমে সাধারণত কম থাকে ও ধীরে ধীরে তা বাড়ে। অনেকক্ষেত্রে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হলেও কোনও উপসর্গ দেখা যায় না। (ছবি সৌজন্য পিটিআই)
3/10উপসর্গ : COVID-19-এর সাধারণ উপসর্গ হল জ্বর, শুকনো কাশি ও ক্লান্তি। কারোর কারোর ব্যথা-যন্ত্রণা, নাকবদ্ধ, নাক থেকে জ্বল পড়া, ডায়েরিয়া বা গলা ব্যথা হতে পারে। এগুলি প্রথমে সাধারণত কম থাকে ও ধীরে ধীরে তা বাড়ে। অনেকক্ষেত্রে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হলেও কোনও উপসর্গ দেখা যায় না। (ছবি সৌজন্য পিটিআই)
৮০ শতাংশ ক্ষেত্রে সাধারণ চিকিৎসাতেই সেরে ওঠেন রোগী। তবে প্রতি ছজনের মধ্যে একজন গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন। শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যা শুরু হয়। বয়স্ক ও যাঁদের উচ্চ রক্তচাপ, হৃদপিণ্ডের সমস্যা বা ডায়েবেটিসের মতো সমস্যা আছে, তাঁদের গুরুতর অসুস্থতা হয়ে পড়ার সম্ভাবনা বেশি। বয়স্কদেরও সেই সম্ভাবনা রয়েছে। করোনাভাইরাসের আক্রান্তের মধ্যে ২ শতাংশের মতো মানুষের মৃত্যু হয়েছে।
4/10৮০ শতাংশ ক্ষেত্রে সাধারণ চিকিৎসাতেই সেরে ওঠেন রোগী। তবে প্রতি ছজনের মধ্যে একজন গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন। শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যা শুরু হয়। বয়স্ক ও যাঁদের উচ্চ রক্তচাপ, হৃদপিণ্ডের সমস্যা বা ডায়েবেটিসের মতো সমস্যা আছে, তাঁদের গুরুতর অসুস্থতা হয়ে পড়ার সম্ভাবনা বেশি। বয়স্কদেরও সেই সম্ভাবনা রয়েছে। করোনাভাইরাসের আক্রান্তের মধ্যে ২ শতাংশের মতো মানুষের মৃত্যু হয়েছে।
সুরক্ষিত থাকার জন্য বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বিভিন্ন সুপারিশ করেছে। ১) অ্যালকোহল-জাতীয় হ্যান্ড রাব দিয়ে ভালোভাবে হাত ধুয়ে নিন বা জল ও সাবান দিয়ে হাত ধুয়ে নিন। ২) সামনে কেউ হাঁচলে বা কাশলে তাঁর সঙ্গে কমপক্ষে তিন ফুট দূরত্ব বজায় রাখুন। (ছবি সৌজন্য এএফপি)
5/10সুরক্ষিত থাকার জন্য বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বিভিন্ন সুপারিশ করেছে। ১) অ্যালকোহল-জাতীয় হ্যান্ড রাব দিয়ে ভালোভাবে হাত ধুয়ে নিন বা জল ও সাবান দিয়ে হাত ধুয়ে নিন। ২) সামনে কেউ হাঁচলে বা কাশলে তাঁর সঙ্গে কমপক্ষে তিন ফুট দূরত্ব বজায় রাখুন। (ছবি সৌজন্য এএফপি)
৩) নিজের চোখ, নাক ও মুখ ছোঁয়া এড়িয়ে চলুন। ৪) নিজে হাইজিন মেনে চলুন ও আশপাশের লোকেরাও যেন তা মেনে চলেন, সেদিকে নজর রাখুন। হাঁচি-কাশির সময় হাত, টিস্যু দিয়ে মুখ-নাক চাপা দিয়ে রাখুন। ৫) শরীর ভালো না লাগলে বাড়িতে থাকুন। চিকিৎসকের কাছে যান। (ছবি সৌজন্য রয়টার্স)
6/10৩) নিজের চোখ, নাক ও মুখ ছোঁয়া এড়িয়ে চলুন। ৪) নিজে হাইজিন মেনে চলুন ও আশপাশের লোকেরাও যেন তা মেনে চলেন, সেদিকে নজর রাখুন। হাঁচি-কাশির সময় হাত, টিস্যু দিয়ে মুখ-নাক চাপা দিয়ে রাখুন। ৫) শরীর ভালো না লাগলে বাড়িতে থাকুন। চিকিৎসকের কাছে যান। (ছবি সৌজন্য রয়টার্স)
মাস্ক পরতে হবে কি? কাশি-সহ অন্যান্য শ্বাসজনিত কোনও সমস্যা না থাকলে মেডিক্যাল মাস্ক পরার প্রয়োজেন নেই। যে ব্যক্তিদের COVID-19-এর উপসর্গ দেখা দিয়েছে ও তাঁদের কাছে যারা আছেন, তাঁদের মাস্ক পরতে হবে। (ছবি সৌজন্য ব্লুমবার্গ)
7/10মাস্ক পরতে হবে কি? কাশি-সহ অন্যান্য শ্বাসজনিত কোনও সমস্যা না থাকলে মেডিক্যাল মাস্ক পরার প্রয়োজেন নেই। যে ব্যক্তিদের COVID-19-এর উপসর্গ দেখা দিয়েছে ও তাঁদের কাছে যারা আছেন, তাঁদের মাস্ক পরতে হবে। (ছবি সৌজন্য ব্লুমবার্গ)
কী করবেন না? ১) ধূমপান করবেন না। ২) আয়ুর্বেদিক ওষুধ নেবেন না। ৩) একাধিক মাস্ক পরবেন না। ৪) নিজেই ওষুধ খাবেন না। অ্যান্টিবায়োটিকের কাজ করে না।(ছবি সৌজন্য পিটিআই)
8/10কী করবেন না? ১) ধূমপান করবেন না। ২) আয়ুর্বেদিক ওষুধ নেবেন না। ৩) একাধিক মাস্ক পরবেন না। ৪) নিজেই ওষুধ খাবেন না। অ্যান্টিবায়োটিকের কাজ করে না।(ছবি সৌজন্য পিটিআই)
 কেন্দ্রের তরফে নির্দেশিকায় বলা হয়েছে - ১) মাঝেমধ্যেই হাত ধুয়ে নিন। ২) সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখুন। ৩) নিজের চোখ, নাক ও মুখ ছোঁয়া এড়িয়ে চলুন। ৪) হাত দিয়ে নিজের মুখ ও নাক চাপা দিন। ৫) আপনার জ্বর, সর্দি থাকে ও নিঃশ্বাস নিতে সমস্যা হয়, তাহলে দ্রুত চিকিৎসকের কাছে যান।৬) সচেতন থাকুন ও চিকিৎসকের পরামর্শ মেনে চলুন। (ছবি সৌজন্য টুইটার @narendramodi )
9/10 কেন্দ্রের তরফে নির্দেশিকায় বলা হয়েছে - ১) মাঝেমধ্যেই হাত ধুয়ে নিন। ২) সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখুন। ৩) নিজের চোখ, নাক ও মুখ ছোঁয়া এড়িয়ে চলুন। ৪) হাত দিয়ে নিজের মুখ ও নাক চাপা দিন। ৫) আপনার জ্বর, সর্দি থাকে ও নিঃশ্বাস নিতে সমস্যা হয়, তাহলে দ্রুত চিকিৎসকের কাছে যান।৬) সচেতন থাকুন ও চিকিৎসকের পরামর্শ মেনে চলুন। (ছবি সৌজন্য টুইটার @narendramodi )
পাশাপাশি কেন্দ্রের তরফে অযথা আতঙ্কিত না হওয়ার আর্জি জানানো হয়েছে। রাজ্যের তরফেও সতর্কতামূলক ব্যবস্থা জারি করা হয়েছে। (ছবি সৌজন্য পিটিআই)
10/10পাশাপাশি কেন্দ্রের তরফে অযথা আতঙ্কিত না হওয়ার আর্জি জানানো হয়েছে। রাজ্যের তরফেও সতর্কতামূলক ব্যবস্থা জারি করা হয়েছে। (ছবি সৌজন্য পিটিআই)
অন্য গ্যালারিগুলি