বাংলা নিউজ > ছবিঘর > করোনাকালে মোবাইল ব্যবহারে বাড়ছে শিশুর চোখের সমস্যা, কীভাবে ছাড়াবেন এই নেশা?

করোনাকালে মোবাইল ব্যবহারে বাড়ছে শিশুর চোখের সমস্যা, কীভাবে ছাড়াবেন এই নেশা?

  • কাজের মধ্যে থেকেই সময় বের করুন আপনার খুদের জন্য। আপনিই হয়ে যান ওর বেস্ট ফ্রেন্ড!
শিশুদের জগৎটাও আজ চার দেওয়ালের মধ্যে সীমাবদ্ধ হয়ে গিয়েছে করোনার ভয়ে। বাড়ির বাইরে খেলতে যাওয়া বন্ধ, স্কুল চলছে অনলাইনে। বাড়িতে বাবা-মাও হয়তো ওয়ার্ক ফ্রম হোমের চক্করে ঠিক করে তাঁকে সময় দিতে পারছে না। আর যার ফলে একাকিত্ব পেয়ে বসছে তাঁদের। ফলে মোবাইলের প্রতি আসক্তিও বাড়ছে। সম্প্রতি এক গবেষণায় দেখা গিয়েছে ২০১৯ সালের তুলনায় ২০২১ সালে চোখের সমস্যায় ভুগছে ১২ শতাংশ বেশি খুদে। চোখে ব্যথা, চোখ থেকে জল পড়া, মাথাব্যথা, চোখের পাওয়ার বেড়ে যাওয়ার মতো নানা সমস্যা দেখা দিচ্ছে। 
1/6শিশুদের জগৎটাও আজ চার দেওয়ালের মধ্যে সীমাবদ্ধ হয়ে গিয়েছে করোনার ভয়ে। বাড়ির বাইরে খেলতে যাওয়া বন্ধ, স্কুল চলছে অনলাইনে। বাড়িতে বাবা-মাও হয়তো ওয়ার্ক ফ্রম হোমের চক্করে ঠিক করে তাঁকে সময় দিতে পারছে না। আর যার ফলে একাকিত্ব পেয়ে বসছে তাঁদের। ফলে মোবাইলের প্রতি আসক্তিও বাড়ছে। সম্প্রতি এক গবেষণায় দেখা গিয়েছে ২০১৯ সালের তুলনায় ২০২১ সালে চোখের সমস্যায় ভুগছে ১২ শতাংশ বেশি খুদে। চোখে ব্যথা, চোখ থেকে জল পড়া, মাথাব্যথা, চোখের পাওয়ার বেড়ে যাওয়ার মতো নানা সমস্যা দেখা দিচ্ছে। 
অনলাইন ক্লাস চলার ফলে বর্তমানে ল্যাপটপ বা মোবাইল তাঁদের হাতের আওতায়। আর সেগুলো থেকে তাঁদের পুরোপুরি সরিয়ে ফেলাও একেবারেই সম্ভব নয়। বরং, এতে জেদ বাড়বে বলেই মনে করছেন মনোবিদরা। মোবাইল নিয়ে সময় কাটানোর ফলে শিশুদের মধ্যে মায়োপিয়ার পরিমাণ বাড়ছে। এই সমস্যায় যারা আক্রান্ত হন, তারা নির্দিষ্ট দূরত্বে থাকা সব কিছু ঝাপসা দেখেন। এর থেকে বাঁচার সবথেকে বড় উপায় আপনার সন্তানকে নতুন নতুন খেলা, অ্যাক্টিভিটির প্রতি আকৃষ্ট করা। 
2/6অনলাইন ক্লাস চলার ফলে বর্তমানে ল্যাপটপ বা মোবাইল তাঁদের হাতের আওতায়। আর সেগুলো থেকে তাঁদের পুরোপুরি সরিয়ে ফেলাও একেবারেই সম্ভব নয়। বরং, এতে জেদ বাড়বে বলেই মনে করছেন মনোবিদরা। মোবাইল নিয়ে সময় কাটানোর ফলে শিশুদের মধ্যে মায়োপিয়ার পরিমাণ বাড়ছে। এই সমস্যায় যারা আক্রান্ত হন, তারা নির্দিষ্ট দূরত্বে থাকা সব কিছু ঝাপসা দেখেন। এর থেকে বাঁচার সবথেকে বড় উপায় আপনার সন্তানকে নতুন নতুন খেলা, অ্যাক্টিভিটির প্রতি আকৃষ্ট করা। 
বাচ্চা খাওয়ার সময় যতই বায়না করুক, তার মন ভোলাতে হাতে মোবাইল তুলে দেবেন না। বরং, তাঁর সঙ্গে গল্প করুন। গল্প বলেও শোনাতে পারেন। পছন্দের খাবার তৈরি করে দিন ঘরেই। সুন্দর করে সাজিয়ে তা পরিবেশন করুন। সবথেকে ভালো হয় বাড়ির সকলে মিলে খেতে বসতে পারলে। এতে সবার সঙ্গে গল্প করে খেতে খেতেই সে থালার সব খাবার শেষ করে ফেলবে। 
3/6বাচ্চা খাওয়ার সময় যতই বায়না করুক, তার মন ভোলাতে হাতে মোবাইল তুলে দেবেন না। বরং, তাঁর সঙ্গে গল্প করুন। গল্প বলেও শোনাতে পারেন। পছন্দের খাবার তৈরি করে দিন ঘরেই। সুন্দর করে সাজিয়ে তা পরিবেশন করুন। সবথেকে ভালো হয় বাড়ির সকলে মিলে খেতে বসতে পারলে। এতে সবার সঙ্গে গল্প করে খেতে খেতেই সে থালার সব খাবার শেষ করে ফেলবে। 
আজকাল বাড়ির আশেপাশের বাচ্চাদের সঙ্গে সেভাবে মিশতে দেই না আমরা নিজের সন্তানদের। কিন্তু আপনি নিজে মাঝেমধ্যে তাঁদের বাড়ির সামনের কোনও পার্ক বা ফাঁকা জায়গায় নিয়ে যান। নিজেও ওদের সঙ্গে খেলা করুন। কাজের ফাঁকে যতটা সম্ভব সময় বের করুন আপনার সন্তানকে বড় করে তুলতে। 
4/6আজকাল বাড়ির আশেপাশের বাচ্চাদের সঙ্গে সেভাবে মিশতে দেই না আমরা নিজের সন্তানদের। কিন্তু আপনি নিজে মাঝেমধ্যে তাঁদের বাড়ির সামনের কোনও পার্ক বা ফাঁকা জায়গায় নিয়ে যান। নিজেও ওদের সঙ্গে খেলা করুন। কাজের ফাঁকে যতটা সম্ভব সময় বের করুন আপনার সন্তানকে বড় করে তুলতে। 
ব্লক গেমস জাতীয় খেলায় রং-বেরঙের খেলনা থাকায় ছোটরা খুব আগ্রহ পায়। সেগুলো ওদের কিনে দিন। এতে ওদের শিশু মন আরও বিকশিত হওয়ার সুযোগ পাবে। আপনিও খেলতে বসে পড়ুন। আপনাকে দেখলে হয়তো দ্বিগুণ মজা নিয়ে সে নিজের ক্রিয়েটিভিটি দেখাবে!
5/6ব্লক গেমস জাতীয় খেলায় রং-বেরঙের খেলনা থাকায় ছোটরা খুব আগ্রহ পায়। সেগুলো ওদের কিনে দিন। এতে ওদের শিশু মন আরও বিকশিত হওয়ার সুযোগ পাবে। আপনিও খেলতে বসে পড়ুন। আপনাকে দেখলে হয়তো দ্বিগুণ মজা নিয়ে সে নিজের ক্রিয়েটিভিটি দেখাবে!
পেইন্টিং, হ্যান্ড ক্রাফটিংয়ের মতো অ্যাক্টিভিটিও করুন একসঙ্গে। রং, পেন, পেনসিল, ড্রইং বুক নিয়ে বসে যান সপরিবারে। কাটিয়ে নিন কোয়ালিটি টাইম। 
6/6পেইন্টিং, হ্যান্ড ক্রাফটিংয়ের মতো অ্যাক্টিভিটিও করুন একসঙ্গে। রং, পেন, পেনসিল, ড্রইং বুক নিয়ে বসে যান সপরিবারে। কাটিয়ে নিন কোয়ালিটি টাইম। 
অন্য গ্যালারিগুলি