বাংলা নিউজ > ছবিঘর > প্রায় ১১০ বছর ধরে ছুটছে ভারতীয় রেলের এই ট্রেনটি! দেখে নিন সেই ট্রেনের ছবি?

প্রায় ১১০ বছর ধরে ছুটছে ভারতীয় রেলের এই ট্রেনটি! দেখে নিন সেই ট্রেনের ছবি?

এর মাঝে পালটেছে রেল লাইন, ট্রেনের প্রযুক্তি। আরও অ... more

মঙ্গলবার ১১০ তম বছরে পদার্পণ করল পাঞ্জাব মেল। এটিই ভারতীয় রেলের সবচেয়ে পুরনো প্যাসেঞ্জার ট্রেন সার্ভিস। ছবি : ফেসবুক (Facebook)
1/7মঙ্গলবার ১১০ তম বছরে পদার্পণ করল পাঞ্জাব মেল। এটিই ভারতীয় রেলের সবচেয়ে পুরনো প্যাসেঞ্জার ট্রেন সার্ভিস। ছবি : ফেসবুক (Facebook)
বম্বে থেকে পেশোয়ার পাঞ্জাব মেল ঠিক কবে চালু হল, তার স্পষ্ট হদিশ পাওয়া যায় না। তবে, ১৯১১-১২ সালের রেলের কিছু নথি থেকে আন্দাজ করা হয়, ১৯১২ সালের ১ জুন চলতে শুরু করেছিল এই ট্রেন। ছবি : টুইটার (Twitter)
2/7বম্বে থেকে পেশোয়ার পাঞ্জাব মেল ঠিক কবে চালু হল, তার স্পষ্ট হদিশ পাওয়া যায় না। তবে, ১৯১১-১২ সালের রেলের কিছু নথি থেকে আন্দাজ করা হয়, ১৯১২ সালের ১ জুন চলতে শুরু করেছিল এই ট্রেন। ছবি : টুইটার (Twitter)
ইংরেজ আমলে সাহেবসুবোদের অবশ্য পছন্দের ছিল বিলাসবহুল ফ্রন্টিয়ার মেল। তবে, তার থেকেও প্রায় ১৬ বছর আগেই ছুটতে শুরু করে পাঞ্জাব মেল। ছবি : ফেসবুক (Facebook)
3/7ইংরেজ আমলে সাহেবসুবোদের অবশ্য পছন্দের ছিল বিলাসবহুল ফ্রন্টিয়ার মেল। তবে, তার থেকেও প্রায় ১৬ বছর আগেই ছুটতে শুরু করে পাঞ্জাব মেল। ছবি : ফেসবুক (Facebook)
সেই সময়ে পি অ্যান্ড ও(পেনিনসুলার অ্যান্ড ওরিয়েন্টাল স্টিম নেভিগেশন কোম্পানি)-র স্টিমারে করে ইংল্যান্ড থেকে ভারতে আসতেন ব্রিটিশ সরকারের অধীনস্থ কর্মচারীরা। সাউদ্যাম্পটন থেকে বম্বে আসতে সময় লাগত ১৩ দিন। সেই স্টিমারেই আসত চিঠিপত্র, কুরিয়ার, আমদানির দ্রব্যাদি। ছবি : উইকিপিডিয়া (Wikipedia)
4/7সেই সময়ে পি অ্যান্ড ও(পেনিনসুলার অ্যান্ড ওরিয়েন্টাল স্টিম নেভিগেশন কোম্পানি)-র স্টিমারে করে ইংল্যান্ড থেকে ভারতে আসতেন ব্রিটিশ সরকারের অধীনস্থ কর্মচারীরা। সাউদ্যাম্পটন থেকে বম্বে আসতে সময় লাগত ১৩ দিন। সেই স্টিমারেই আসত চিঠিপত্র, কুরিয়ার, আমদানির দ্রব্যাদি। ছবি : উইকিপিডিয়া (Wikipedia)
ব্রিটিশ রাজ-এর কর্মীরা ইংল্যান্ড থেকে একসঙ্গে দুটি টিকিট নিয়ে আসতেন। এক হচ্ছে সমুদ্রপথে যাত্রার, আর দুই ভারতে এসে ট্রেনে নির্দিষ্ট গন্তব্যে যাওয়া। বম্বে স্টেশন থেকে ট্রেন ধরে পৌঁছে যেতেন কলকাতা, দিল্লি কিংবা মাদ্রাজ। বম্বের 'ব্যালার্ড পিয়ার মোল' স্টেশন থেকে পেশোয়ারের দীর্ঘ পথ পাড়ি দিত পাঞ্জাব মেইল। মোট ২,৪৯৬ কিলোমিটারের পথ। সময় লাগত প্রায় ৪৮ ঘণ্টা। এই একটি ট্রেনই আগ্রা, দিল্লি, লাহোরের মতো গুরুত্বপূর্ণ স্টেশন হয়ে পেশোয়ার যেত। ছবি : টুইটার (Twitter)
5/7ব্রিটিশ রাজ-এর কর্মীরা ইংল্যান্ড থেকে একসঙ্গে দুটি টিকিট নিয়ে আসতেন। এক হচ্ছে সমুদ্রপথে যাত্রার, আর দুই ভারতে এসে ট্রেনে নির্দিষ্ট গন্তব্যে যাওয়া। বম্বে স্টেশন থেকে ট্রেন ধরে পৌঁছে যেতেন কলকাতা, দিল্লি কিংবা মাদ্রাজ। বম্বের 'ব্যালার্ড পিয়ার মোল' স্টেশন থেকে পেশোয়ারের দীর্ঘ পথ পাড়ি দিত পাঞ্জাব মেইল। মোট ২,৪৯৬ কিলোমিটারের পথ। সময় লাগত প্রায় ৪৮ ঘণ্টা। এই একটি ট্রেনই আগ্রা, দিল্লি, লাহোরের মতো গুরুত্বপূর্ণ স্টেশন হয়ে পেশোয়ার যেত। ছবি : টুইটার (Twitter)
ট্রেনে মোট ৬টি বগি থাকত। তিনটি থাকত যাত্রীদের জন্য। তিনটিতে ঠাসা থাকত চিঠি ও মালপত্র। এই তিনটি বগিতে মাত্র ৯৬ জন যাত্রী ধরত।তার মধ্যেও ছিল ফার্স্ট ক্লাস, ডুয়াল বার্থ কম্পার্টমেন্ট। ব্রিটিশ সরকারের কর্মচারীদের জন্য ছিল পরিচ্ছন্ন গাড়ি, টয়লেট, বাথরুম, লাগেজ কম্বার্টমেন্ট এমনকি চাকরদের আলাদা বসার জায়গাও। এছাড়া খাওয়া-দাওয়ার ব্যবস্থার জন্যও ছিল একটি কামরা। ছবি : টুইটার (Twitter)
6/7ট্রেনে মোট ৬টি বগি থাকত। তিনটি থাকত যাত্রীদের জন্য। তিনটিতে ঠাসা থাকত চিঠি ও মালপত্র। এই তিনটি বগিতে মাত্র ৯৬ জন যাত্রী ধরত।তার মধ্যেও ছিল ফার্স্ট ক্লাস, ডুয়াল বার্থ কম্পার্টমেন্ট। ব্রিটিশ সরকারের কর্মচারীদের জন্য ছিল পরিচ্ছন্ন গাড়ি, টয়লেট, বাথরুম, লাগেজ কম্বার্টমেন্ট এমনকি চাকরদের আলাদা বসার জায়গাও। এছাড়া খাওয়া-দাওয়ার ব্যবস্থার জন্যও ছিল একটি কামরা। ছবি : টুইটার (Twitter)
সেই সময়ে এটিই ছিল দেশের দ্রুততম ট্রেন। ১৯১৪ সাল থেকে বম্বে ভিটি(বর্তমানে ছত্রপতি শিবাজী টার্মিনাস) থেকে নিয়মিত চলতে শুরু করে পাঞ্জাব মেল। এর মাঝে পালটেছে রেল লাইন, ট্রেনের প্রযুক্তি। আরও অনেক দ্রুত হয়েছে ট্রেন। বেড়েছে নিরাপত্তা, যাত্রী স্বাচ্ছন্দ্য। ১১০ বছর ধরে ইতিহাসের সেই চেনা রাস্তা ধরেই ছুটে চলেছে পাঞ্জাব মেল। ছবি : টুইটার (Twitter)
7/7সেই সময়ে এটিই ছিল দেশের দ্রুততম ট্রেন। ১৯১৪ সাল থেকে বম্বে ভিটি(বর্তমানে ছত্রপতি শিবাজী টার্মিনাস) থেকে নিয়মিত চলতে শুরু করে পাঞ্জাব মেল। এর মাঝে পালটেছে রেল লাইন, ট্রেনের প্রযুক্তি। আরও অনেক দ্রুত হয়েছে ট্রেন। বেড়েছে নিরাপত্তা, যাত্রী স্বাচ্ছন্দ্য। ১১০ বছর ধরে ইতিহাসের সেই চেনা রাস্তা ধরেই ছুটে চলেছে পাঞ্জাব মেল। ছবি : টুইটার (Twitter)
অন্য গ্যালারিগুলি