বাংলা নিউজ > ছবিঘর > নিষেধাজ্ঞা রোড শো-র‌্যালিতে, জনসভায় সর্বাধিক ৫০০ জন- করোনার দাপটে আরও কড়া কমিশন

নিষেধাজ্ঞা রোড শো-র‌্যালিতে, জনসভায় সর্বাধিক ৫০০ জন- করোনার দাপটে আরও কড়া কমিশন

ভোটের মধ্যেই হুড়মুড়িয়ে পশ্চিমবঙ্গে বাড়ছে করোনাভাইরাস আক্রান্তের সংখ্যা। তাতেও দলমত নির্বিশিষে করোনা বিধি উড়িয়ে দেওয়ার প্রবণতায় রাশ টানা যাচ্ছে না। সেই পরিস্থিতিতে বাংলায় সপ্তম এবং অষ্টম দফা ভোটের আগে আরও কঠোর বিধিনিষেধ জারি করল নির্বাচন কমিশন। বৃহস্পতিবার কমিশনের তরফে উদ্বেগ প্রকাশ করে জানানো হয়েছে, অনেক রাজনৈতিক দল এবং প্রার্থীরা এখনও সুরক্ষাবিধি মেনে চলছে না। তাই কড়া বিধিনিষেধ জারি করা হচ্ছে। যা আগামিকাল (শুক্রবার) সন্ধ্যা সাতটা থেকে কার্যকর হবে।

কোনও রোড শো বা পদযাত্রা করা যাবে না। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)
1/5কোনও রোড শো বা পদযাত্রা করা যাবে না। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)
কোনও সাইকেল বা বাইক বা গাড়ির র‌্যালি হবে না। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)
2/5কোনও সাইকেল বা বাইক বা গাড়ির র‌্যালি হবে না। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)
কোনও একটি জায়গায় সর্বাধিক ৫০০ জনকে নিয়ে জনসভা করা যাবে। তবে সেক্ষেত্রে সামাজিক দূরত্ব মেনে চলার জন্য উপযুক্ত জায়গা থাকতে হবে। মেনে চলতে হবে যাবতীয় করোনাভাইরাস সংক্রান্ত সুরক্ষা বিধি। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)
3/5কোনও একটি জায়গায় সর্বাধিক ৫০০ জনকে নিয়ে জনসভা করা যাবে। তবে সেক্ষেত্রে সামাজিক দূরত্ব মেনে চলার জন্য উপযুক্ত জায়গা থাকতে হবে। মেনে চলতে হবে যাবতীয় করোনাভাইরাস সংক্রান্ত সুরক্ষা বিধি। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)
ইতিমধ্যে রোড শো, সাইকেল বা বাইক বা গাড়ির র‌্যালির অনুমতি দেওয়া হয়ে থাকে, তবে তা প্রত্যাহার করে নেওয়া হচ্ছে। আর জনসভার ক্ষেত্রে অনুমতি দেওয়া থাকলে তা পরিবর্তিত বিধি মেনে করতে হবে। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য অরবিন্দ যাদব/হিন্দুস্তান টাইমস)
4/5ইতিমধ্যে রোড শো, সাইকেল বা বাইক বা গাড়ির র‌্যালির অনুমতি দেওয়া হয়ে থাকে, তবে তা প্রত্যাহার করে নেওয়া হচ্ছে। আর জনসভার ক্ষেত্রে অনুমতি দেওয়া থাকলে তা পরিবর্তিত বিধি মেনে করতে হবে। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য অরবিন্দ যাদব/হিন্দুস্তান টাইমস)
তবে কমিশনের সেই সিদ্ধান্ত নিয়ে প্রশ্ন উঠতেও শুরু করেছে। সংশ্লিষ্ট মহলের প্রশ্ন, পরিস্থিতি যখন ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে, তখন হুঁশ ফিরল কমিশনের? এমনিতে শেষ সপ্তম এবং অষ্টম দফায় প্রচারে আর বেশিদিন সময় পড়ে নেই। এমনিতেই ৭২ ঘণ্টা আগে প্রচার শেষ হয়ে যাবে। তার ফলে আগামী ২৬ এপ্রিল সন্ধ্যা সাড়ে ছ'টার সময় অষ্টম তথা শেষ দফার প্রচারপর্ব শেষ হবে। আর সপ্তম দফার প্রচার শেষ হবে ২৩ এপ্রিল। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)
5/5তবে কমিশনের সেই সিদ্ধান্ত নিয়ে প্রশ্ন উঠতেও শুরু করেছে। সংশ্লিষ্ট মহলের প্রশ্ন, পরিস্থিতি যখন ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে, তখন হুঁশ ফিরল কমিশনের? এমনিতে শেষ সপ্তম এবং অষ্টম দফায় প্রচারে আর বেশিদিন সময় পড়ে নেই। এমনিতেই ৭২ ঘণ্টা আগে প্রচার শেষ হয়ে যাবে। তার ফলে আগামী ২৬ এপ্রিল সন্ধ্যা সাড়ে ছ'টার সময় অষ্টম তথা শেষ দফার প্রচারপর্ব শেষ হবে। আর সপ্তম দফার প্রচার শেষ হবে ২৩ এপ্রিল। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)
অন্য গ্যালারিগুলি