প্রজাতন্ত্র দিবসে বেশি মনে পড়ে দেশাত্মবোধক এইসব ছবি

  • দেশপ্রেমের জন্য কোনও নির্দিষ্ট দিন বা তারিখ হয় না। দেশপ্রেমের ভাবনা নিয়ে রূপোলি পর্দায় কম ছবি তৈরি হয়নি। সাদা কালো জমনা থেকে ২০২০- দেশাত্মবোধক ছবির তালিকাটা বলিউডে বেশ দীর্ঘ। তার মধ্যেই কিছু বাছাই করা ছবি যা আপনি দেখে নিতে পারেন ৭১তম প্রজাতন্ত্র দিবসে-
রবিবার ভারতের ৭১-তম প্রজাতন্ত্র দিবস। দেশপ্রেমের জন্য কোনও নির্দিষ্ট দিন হয় না। ৩৬৫ দিনই দেশকে ভালোবাসার দিন। সংবিধানে ভারত একটি সার্বভৌম, সমাজতান্ত্রিক, ধর্মনিরপেক্ষ গণতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্র রূপে উল্লেখিত রয়েছে, ভারতের এই অখন্ড ভাবনাকে দশকের পর দশক ধরে রূপোলি পর্দাতেও লালন করে এসেছেন পরিচালকরা। এমনই কিছু সেরা বলিউড ছবির তালিকায় চোখ বুলিয়ে নেওয়া যাক-
1/12রবিবার ভারতের ৭১-তম প্রজাতন্ত্র দিবস। দেশপ্রেমের জন্য কোনও নির্দিষ্ট দিন হয় না। ৩৬৫ দিনই দেশকে ভালোবাসার দিন। সংবিধানে ভারত একটি সার্বভৌম, সমাজতান্ত্রিক, ধর্মনিরপেক্ষ গণতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্র রূপে উল্লেখিত রয়েছে, ভারতের এই অখন্ড ভাবনাকে দশকের পর দশক ধরে রূপোলি পর্দাতেও লালন করে এসেছেন পরিচালকরা। এমনই কিছু সেরা বলিউড ছবির তালিকায় চোখ বুলিয়ে নেওয়া যাক-
পূরব অউর পশ্চিম(১৯৭০)- দেশাত্মবোধক ছবির কথা বললেই হিন্দি ছবির দুনিয়ায় প্রথম যে নাম মাথায় আসে তা হল মনোজ কুমার। এই জঁরের সিনেমার সঙ্গে ওতোপ্রোতভাবে জড়িয়ে রয়েছে তাঁর নাম,যে কারণে তিনি বলিউডের ভারত কুমার নামেও পরিচিত। মনোজ কুমার অভিনীত ও পরিচালিত পূরব অউর পশ্চিম, দশকের পর দশক ধরে দেশাত্মবোধক ছবি হিসাবে দর্শকদের অন্যতম পছন্দের ফিল্ম। এবং ছবির গান ‘হর প্রীত জাঁহান কি রীত সদা’ আজও নস্টালজিয়া হয়ে রয়ে গিয়েছে দর্শক মনে।
2/12পূরব অউর পশ্চিম(১৯৭০)- দেশাত্মবোধক ছবির কথা বললেই হিন্দি ছবির দুনিয়ায় প্রথম যে নাম মাথায় আসে তা হল মনোজ কুমার। এই জঁরের সিনেমার সঙ্গে ওতোপ্রোতভাবে জড়িয়ে রয়েছে তাঁর নাম,যে কারণে তিনি বলিউডের ভারত কুমার নামেও পরিচিত। মনোজ কুমার অভিনীত ও পরিচালিত পূরব অউর পশ্চিম, দশকের পর দশক ধরে দেশাত্মবোধক ছবি হিসাবে দর্শকদের অন্যতম পছন্দের ফিল্ম। এবং ছবির গান ‘হর প্রীত জাঁহান কি রীত সদা’ আজও নস্টালজিয়া হয়ে রয়ে গিয়েছে দর্শক মনে।
শহীদ(১৯৬৫)- মনোজ কুমারের আরও একটি দেশাত্মবোধক ছবি যা দেশপ্রেমের ভাবনা দর্শক মনে জাগিয়ে তুলেছে যুগ যুগ ধরে। ভগত সিং, সুখদেব এবং রাজগুরু আত্মত্যাগের উপর তৈরি এই ছবির লেখকও মনোজ কুমার। ছবির ক্লাইম্যাক্স দৃশ্যটি আজও দর্শকদের চোখের কোণ ভেজায়। ভগত সিংয়ের চরিত্রে মনোজ কুমারের অভিনয় এই ছবির সেরা পাওনা।
3/12শহীদ(১৯৬৫)- মনোজ কুমারের আরও একটি দেশাত্মবোধক ছবি যা দেশপ্রেমের ভাবনা দর্শক মনে জাগিয়ে তুলেছে যুগ যুগ ধরে। ভগত সিং, সুখদেব এবং রাজগুরু আত্মত্যাগের উপর তৈরি এই ছবির লেখকও মনোজ কুমার। ছবির ক্লাইম্যাক্স দৃশ্যটি আজও দর্শকদের চোখের কোণ ভেজায়। ভগত সিংয়ের চরিত্রে মনোজ কুমারের অভিনয় এই ছবির সেরা পাওনা।
বর্ডার(১৯৯৭)- প্রজাতন্ত্র দিবসে দেশাত্মবোধক ছবির তালিকায় যে ছবিটা বাদ দেওয়া যায় না, তা নিঃসন্দেহে জে পি দত্তার সবচেয়ে সফল ছবি বর্ডার। ১৯৭১-এর ভারত-পাক যু্দ্ধের প্রেক্ষাপটে তৈরি হয়েছিল সানি দেওল, সুনীল শেট্টি, জ্যাকি শ্রফ, অক্ষয় খান্না অভিনীত এই মাল্টিস্টারার ছবি। এই ছবি যে শুধু দেশবাসীর মধ্যে দেশপ্রেমে ভাবনা জাগিয়েছিল এমনটা নয়, যুদ্ধ বিরতি বার্তাও খুব সুন্দরভাবে বর্ডারে তুলে ধরেছিলেন পরিচালক।
4/12বর্ডার(১৯৯৭)- প্রজাতন্ত্র দিবসে দেশাত্মবোধক ছবির তালিকায় যে ছবিটা বাদ দেওয়া যায় না, তা নিঃসন্দেহে জে পি দত্তার সবচেয়ে সফল ছবি বর্ডার। ১৯৭১-এর ভারত-পাক যু্দ্ধের প্রেক্ষাপটে তৈরি হয়েছিল সানি দেওল, সুনীল শেট্টি, জ্যাকি শ্রফ, অক্ষয় খান্না অভিনীত এই মাল্টিস্টারার ছবি। এই ছবি যে শুধু দেশবাসীর মধ্যে দেশপ্রেমে ভাবনা জাগিয়েছিল এমনটা নয়, যুদ্ধ বিরতি বার্তাও খুব সুন্দরভাবে বর্ডারে তুলে ধরেছিলেন পরিচালক।
লগান(২০০১)-দেশাত্মবোধক ছবির তালিকায় আমির খানের এই ছবিটিও অবশ্যই জায়গা করে নেবে। ইতিহাস তৈরি করেছিল পরিচালক আশুতোষ গোয়ারিকরের লগান। অস্কারের দৌড়ে বিদেশি ভাষার ছবির বিভাগে সেরা পাঁচ জায়গা করে নিয়েছিল এই ছবি। লগনের সুবাদে সিনেমাহল ক্রিকেট স্টেডিয়ামে পরিণত হয়েছিল, ভুবনের লড়াইয়ের সঙ্গে একাত্ম হয়েছিলেন দর্শকরাও।
5/12লগান(২০০১)-দেশাত্মবোধক ছবির তালিকায় আমির খানের এই ছবিটিও অবশ্যই জায়গা করে নেবে। ইতিহাস তৈরি করেছিল পরিচালক আশুতোষ গোয়ারিকরের লগান। অস্কারের দৌড়ে বিদেশি ভাষার ছবির বিভাগে সেরা পাঁচ জায়গা করে নিয়েছিল এই ছবি। লগনের সুবাদে সিনেমাহল ক্রিকেট স্টেডিয়ামে পরিণত হয়েছিল, ভুবনের লড়াইয়ের সঙ্গে একাত্ম হয়েছিলেন দর্শকরাও।
রঙ দে বসান্তি(২০০৬)- নতুন শতাব্দীতে দেশাত্মবোধক ছবিকে নতুন দিশা দিয়েছিল রাকেশ ওম প্রকাশ মেহরার এই ছবি। আজও সমানভাবে প্রাসঙ্গিক রঙ দে বসান্তির ভাবনা। আমির খান, শর্মান যোশি,আর মাধবন, সোহা আলি খান, অতুল কুলকর্নি, সিদ্ধার্থ, কুণাল কাপুর অভিনীত এই  মাল্টিস্টারার ছবিতে ভগত সিং এবং তাঁর ভাবনাকে আজকের প্রেক্ষাপটে তুলে ধরেছিলেন মেহরা। এই ছবি নিয়ে দর্শক-সমালোচকদের বাঁধভাঙা প্রতিক্রিয়ায় চমকে দিয়েছিল পরিচালককেও।
6/12রঙ দে বসান্তি(২০০৬)- নতুন শতাব্দীতে দেশাত্মবোধক ছবিকে নতুন দিশা দিয়েছিল রাকেশ ওম প্রকাশ মেহরার এই ছবি। আজও সমানভাবে প্রাসঙ্গিক রঙ দে বসান্তির ভাবনা। আমির খান, শর্মান যোশি,আর মাধবন, সোহা আলি খান, অতুল কুলকর্নি, সিদ্ধার্থ, কুণাল কাপুর অভিনীত এই মাল্টিস্টারার ছবিতে ভগত সিং এবং তাঁর ভাবনাকে আজকের প্রেক্ষাপটে তুলে ধরেছিলেন মেহরা। এই ছবি নিয়ে দর্শক-সমালোচকদের বাঁধভাঙা প্রতিক্রিয়ায় চমকে দিয়েছিল পরিচালককেও।
দ্য লেজেন্ড অফ ভগত সিং(২০০২)- ভগত সিংয়ের জীবন নির্ভর একাধিক ছবি তৈরি হয়েছে বলিউডে। তবে মনোজ কুমারের শহীদের পাশাপাশি অজয় দেবগণের দ্য লেজেন্ড অফ ভগত সিং-আরও একটি মন ছুঁয়ে যাওয়া ছবি। রাজকুমার সন্তোষির পরিচালনায়, অভিজাত যোশির লেখা এই ছবিতে অজয় ছাড়াও মুখ্য চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন সুশান্ত সিং এবং ডি সন্তোষ। নতুন শতাব্দীর সেরা দেশাত্মবোধক ছবির তালিকায় অন্যতম এই ছবি।
7/12দ্য লেজেন্ড অফ ভগত সিং(২০০২)- ভগত সিংয়ের জীবন নির্ভর একাধিক ছবি তৈরি হয়েছে বলিউডে। তবে মনোজ কুমারের শহীদের পাশাপাশি অজয় দেবগণের দ্য লেজেন্ড অফ ভগত সিং-আরও একটি মন ছুঁয়ে যাওয়া ছবি। রাজকুমার সন্তোষির পরিচালনায়, অভিজাত যোশির লেখা এই ছবিতে অজয় ছাড়াও মুখ্য চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন সুশান্ত সিং এবং ডি সন্তোষ। নতুন শতাব্দীর সেরা দেশাত্মবোধক ছবির তালিকায় অন্যতম এই ছবি।
স্বদেশ(২০০৪)- স্বদেশ প্রেমের ভাবনা মানে বা দেশপ্রেমী হওয়া মানে ফেসবুকের ডিপিতে জাতীয় পতাকার ছবি রাখা নয়, বা প্রজাতন্ত্র দিবসে নিজের ৪০০ বন্ধুতে দেশাত্মবোধক বার্তা পাঠানো নয়, এটাই চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়েছিল শাহরুখ খানের স্বদেশ। পরিচালক আশুতোষ গোয়ারিকরের এই ছবি বলে নাসা ফেরত এক বিজ্ঞানীর গল্প। আদর্শ দেশের সংজ্ঞা থেকে অনেক দূরে থাকা ভারতে ফিরে কীভাবে তাঁর গ্রামের মানুষের নূন্যতম প্রযোজন বিদ্যুত্-এর খামতিকে পূরণ করবে এনআরআই মোহন ভারগব তাই এই ছবির মূল উপজীব্য। জাতি-ধর্ম-বর্ণভেদের বেড়াজালে আটাকানো ভারতের প্রেক্ষাপটে তৈরি তবুও এক মনছুঁয়ে যাওয়া ভালোবাসা, ভালোলাগার ছবি স্বদেশ।
8/12স্বদেশ(২০০৪)- স্বদেশ প্রেমের ভাবনা মানে বা দেশপ্রেমী হওয়া মানে ফেসবুকের ডিপিতে জাতীয় পতাকার ছবি রাখা নয়, বা প্রজাতন্ত্র দিবসে নিজের ৪০০ বন্ধুতে দেশাত্মবোধক বার্তা পাঠানো নয়, এটাই চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়েছিল শাহরুখ খানের স্বদেশ। পরিচালক আশুতোষ গোয়ারিকরের এই ছবি বলে নাসা ফেরত এক বিজ্ঞানীর গল্প। আদর্শ দেশের সংজ্ঞা থেকে অনেক দূরে থাকা ভারতে ফিরে কীভাবে তাঁর গ্রামের মানুষের নূন্যতম প্রযোজন বিদ্যুত্-এর খামতিকে পূরণ করবে এনআরআই মোহন ভারগব তাই এই ছবির মূল উপজীব্য। জাতি-ধর্ম-বর্ণভেদের বেড়াজালে আটাকানো ভারতের প্রেক্ষাপটে তৈরি তবুও এক মনছুঁয়ে যাওয়া ভালোবাসা, ভালোলাগার ছবি স্বদেশ।
চক দে ইন্ডিয়া (২০০৮)- দেশাত্মবোধক ছবির কথা হবে আর সেই তালিকায় চক দে ইন্ডিয়া থাকবে না এমনটা সম্ভব নয়। হকি কোচ কবীর খানের জীবনের গল্প বলে শাহরুখ খানের এই ছবি। কবীর খান পরিচালিত চক দে ইন্ডিয়ার গান থেকে ডায়লগ আজও সিনেপ্রেমীদের মনে গাঁথা রয়েছে। স্বদেশের পর এই ছবির হাত ধরে ফের একবার অভিনেতা শাহরুখের উত্তরণ দেখেছে দর্শক।
9/12চক দে ইন্ডিয়া (২০০৮)- দেশাত্মবোধক ছবির কথা হবে আর সেই তালিকায় চক দে ইন্ডিয়া থাকবে না এমনটা সম্ভব নয়। হকি কোচ কবীর খানের জীবনের গল্প বলে শাহরুখ খানের এই ছবি। কবীর খান পরিচালিত চক দে ইন্ডিয়ার গান থেকে ডায়লগ আজও সিনেপ্রেমীদের মনে গাঁথা রয়েছে। স্বদেশের পর এই ছবির হাত ধরে ফের একবার অভিনেতা শাহরুখের উত্তরণ দেখেছে দর্শক।
বেবি(২০১৫)- বলিউডের মর্ডান ডে ভারত কুমার অক্ষয়,এব্যাপারে কোনও দ্বিমত নেই। পরিচালক নীরজ পাণ্ডের বেবি অক্ষয় অভিনীত দেশাত্মবোধক ছবির তালিকায় একদম প্রথম সারিতে রয়েছে। ইন্টালিজেন্স অফিসার অজয় সিং রাজপুত কেমনভাবে নিজের জীবনের পরোয়া না করে সন্ত্রাসবাদ দমনে তত্পর রয়েছে সেটাই এই ছবিতে ধরা পড়েছে। অক্ষয় ছাড়াও রাণা দগ্গুবতি, অনুপম খের এবং তাপসী পান্নুর অভিনয় এই ছবির অন্যতম প্রাণভোমরা।
10/12বেবি(২০১৫)- বলিউডের মর্ডান ডে ভারত কুমার অক্ষয়,এব্যাপারে কোনও দ্বিমত নেই। পরিচালক নীরজ পাণ্ডের বেবি অক্ষয় অভিনীত দেশাত্মবোধক ছবির তালিকায় একদম প্রথম সারিতে রয়েছে। ইন্টালিজেন্স অফিসার অজয় সিং রাজপুত কেমনভাবে নিজের জীবনের পরোয়া না করে সন্ত্রাসবাদ দমনে তত্পর রয়েছে সেটাই এই ছবিতে ধরা পড়েছে। অক্ষয় ছাড়াও রাণা দগ্গুবতি, অনুপম খের এবং তাপসী পান্নুর অভিনয় এই ছবির অন্যতম প্রাণভোমরা।
রাজি(২০১৮)- গুপ্তচরকেন্দ্রিক ফিল্ম বলিউডে কম তৈরি হয়নি। তবে সব ছবির থেকে একদম অন্যমেরুতে দাঁড়িয়ে মেঘনা গুলজারের রাজি। কলিং সেহমত উপন্যাস অবলম্বনে তৈরি মেঘনার এই ছবির সবচেয়ে সেরা পাওনা হল বিপক্ষ দেশের বিরুদ্ধে কোনও ঘৃণায় ভরা ডায়লগ নেই, বরং মানবিক ভাবনাই সেখানে প্রাধান্য পেয়েছে। দেশপ্রেমের সামনে হয়ত সেহমত(আলিয়া)-এর ভালোবাসা হেরেছে কিন্তু দেশপ্রেমের ভাবনা যে এলওসি-র দুইপ্রান্তেই একদম সমান তা বুঝিয়ে দিয়েছেন মেঘনা।
11/12রাজি(২০১৮)- গুপ্তচরকেন্দ্রিক ফিল্ম বলিউডে কম তৈরি হয়নি। তবে সব ছবির থেকে একদম অন্যমেরুতে দাঁড়িয়ে মেঘনা গুলজারের রাজি। কলিং সেহমত উপন্যাস অবলম্বনে তৈরি মেঘনার এই ছবির সবচেয়ে সেরা পাওনা হল বিপক্ষ দেশের বিরুদ্ধে কোনও ঘৃণায় ভরা ডায়লগ নেই, বরং মানবিক ভাবনাই সেখানে প্রাধান্য পেয়েছে। দেশপ্রেমের সামনে হয়ত সেহমত(আলিয়া)-এর ভালোবাসা হেরেছে কিন্তু দেশপ্রেমের ভাবনা যে এলওসি-র দুইপ্রান্তেই একদম সমান তা বুঝিয়ে দিয়েছেন মেঘনা।
উরি দ্য সার্জিক্যাল স্ট্রাইক(২০১৯)-  ২০১৬-র উরি হামলার প্রেক্ষাপটে তৈরি হয়েছে ডেব্যিউটান্ট পরিচালক আদিত্য ধরে এই ছবি। এই রিয়েল লাইফ ঘটনা নির্ভর ছবিতে মেজর বিহান সিং শেরগিলের ভূমিকায় অভিনয় করেছেন ভিকি কৌশল। দেশপ্রেমের ভাবনায় ভরপুর এই ছবি সারা ফেলেছে জাতীয় পুরস্কার মঞ্চেও। এই ছবির জন্যই সেরা অভিনেতা হিসাবে জাতীয় পুরস্কার পেয়েছেন ভিকি।
12/12উরি দ্য সার্জিক্যাল স্ট্রাইক(২০১৯)- ২০১৬-র উরি হামলার প্রেক্ষাপটে তৈরি হয়েছে ডেব্যিউটান্ট পরিচালক আদিত্য ধরে এই ছবি। এই রিয়েল লাইফ ঘটনা নির্ভর ছবিতে মেজর বিহান সিং শেরগিলের ভূমিকায় অভিনয় করেছেন ভিকি কৌশল। দেশপ্রেমের ভাবনায় ভরপুর এই ছবি সারা ফেলেছে জাতীয় পুরস্কার মঞ্চেও। এই ছবির জন্যই সেরা অভিনেতা হিসাবে জাতীয় পুরস্কার পেয়েছেন ভিকি।
অন্য গ্যালারিগুলি