বাংলা নিউজ > ছবিঘর > ৭৮ থেকে ৫৮ কেজি, দেখে নিন অভিনেত্রী দেবলীনা কুমারের ‘রোগা হওয়ার সহজ উপায়’!

৭৮ থেকে ৫৮ কেজি, দেখে নিন অভিনেত্রী দেবলীনা কুমারের ‘রোগা হওয়ার সহজ উপায়’!

  • মারকাটারি ফিগার আর জবরদস্ত ফ্যাশন স্টাইলে সবাইকে টেক্কা দেন তিনি। যদিও এখন আর বিশ্বাসী নন, ‘পারফেক্ট ফিগার’-এর কনসেপ্টে!
‘রঙ্গবতী’ দেবলীনা কুমারের সোশ্যাল মিডিয়ায় ফ্যান আগুণতি। আর সকলেই মুগ্ধ অভিনেত্রীর মারকাটারি ফিগারে। কিন্তু জানেন কী, আজকের এই ছিপছিপে দেবলীনাই কলেজ জীবনে বেশ গোলুমোলু ছিলেন। ইনস্টাগ্রামে ছবি শেয়ার করে দেবলীনা নিজেই জানালেন সেকথা।
1/6‘রঙ্গবতী’ দেবলীনা কুমারের সোশ্যাল মিডিয়ায় ফ্যান আগুণতি। আর সকলেই মুগ্ধ অভিনেত্রীর মারকাটারি ফিগারে। কিন্তু জানেন কী, আজকের এই ছিপছিপে দেবলীনাই কলেজ জীবনে বেশ গোলুমোলু ছিলেন। ইনস্টাগ্রামে ছবি শেয়ার করে দেবলীনা নিজেই জানালেন সেকথা।
কলেজের বন্ধুদের সঙ্গে তোলা এই ছবিটি নিজের ইনস্টা স্টোরিতে শেয়ার করেছেন দেবলীনা কুমার। বাঁ দিকের সাদা টপের ওই মেয়েটাই দেবলীনা। এতক্ষণে নিশ্চয়ই চিনতে পেরেছেন। অভিনেত্রী জানিয়েছেন সেই সময় তাঁর ওজন ছিল ৭৮ কেজি। তখন থেকেই ইচ্ছে ছিল অভিনেত্রী হওয়ার। তবে মনে মনে ভাবতেন, তাঁর অতিরিক্ত ওজনের কারণে হয়তো কাজ পেতে অসুবিধে হবে। ব্যস! শুরু হল শরীরচর্চা। 
2/6কলেজের বন্ধুদের সঙ্গে তোলা এই ছবিটি নিজের ইনস্টা স্টোরিতে শেয়ার করেছেন দেবলীনা কুমার। বাঁ দিকের সাদা টপের ওই মেয়েটাই দেবলীনা। এতক্ষণে নিশ্চয়ই চিনতে পেরেছেন। অভিনেত্রী জানিয়েছেন সেই সময় তাঁর ওজন ছিল ৭৮ কেজি। তখন থেকেই ইচ্ছে ছিল অভিনেত্রী হওয়ার। তবে মনে মনে ভাবতেন, তাঁর অতিরিক্ত ওজনের কারণে হয়তো কাজ পেতে অসুবিধে হবে। ব্যস! শুরু হল শরীরচর্চা। 
আনন্দবাজার ডিজিটালকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে দেবলীনা জানিয়েছেন, তিনি খেতে খুব ভালোবাসেন। তাই খাওয়াদাওয়া কিছুদিন কন্ট্রোল করার পরই বুঝে গিয়েছিলেন সেটা তাঁর দ্বারা সম্ভব নয়। ওজন ঝরাতে গেলে তাঁকে ঘাম ঝরাতে হবে। দেবলীনা জানিয়েছেন, ‘আমি সপ্তাহে ৪-৫ দিন মাটন খাই। তবে অল্প পরিমাণে। বিকেল হলে দুধ চা খাই। আবার মাঝেমধ্যে ইচ্ছা হলে রাতে বিরিয়ানিও খেয়ে ফেলি। এ সব খাওয়ায় কোনও অসুবিধা নেই। মাপ বুঝে ক্যালোরি ঝরিয়ে ফেললেই সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে।’ 
3/6আনন্দবাজার ডিজিটালকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে দেবলীনা জানিয়েছেন, তিনি খেতে খুব ভালোবাসেন। তাই খাওয়াদাওয়া কিছুদিন কন্ট্রোল করার পরই বুঝে গিয়েছিলেন সেটা তাঁর দ্বারা সম্ভব নয়। ওজন ঝরাতে গেলে তাঁকে ঘাম ঝরাতে হবে। দেবলীনা জানিয়েছেন, ‘আমি সপ্তাহে ৪-৫ দিন মাটন খাই। তবে অল্প পরিমাণে। বিকেল হলে দুধ চা খাই। আবার মাঝেমধ্যে ইচ্ছা হলে রাতে বিরিয়ানিও খেয়ে ফেলি। এ সব খাওয়ায় কোনও অসুবিধা নেই। মাপ বুঝে ক্যালোরি ঝরিয়ে ফেললেই সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে।’ 
৭৮ কেজি থেকে ৫৮ কেজিতে নিয়ে এসেছেন নিজের ওজন। আর যার জন্য কড়া নিয়ম মেনে চলেন। বাড়িতেই কিছু মেশিন কিনে একটি ছোট জিম তৈরি করে ফেলেছেন। সেখানেই ঘাম ঝরিয়ে নিজেকে সতেজ রাখছেন অভিনেত্রী। জিম বা শরীরচর্চা করতে হবে বলে করেন না, বরং শরীরচর্চা করতে পছন্দ করেন। ফাঁকা সময় পেলে দিনে দু'বেলাও ঘাম ঝরান। 
4/6৭৮ কেজি থেকে ৫৮ কেজিতে নিয়ে এসেছেন নিজের ওজন। আর যার জন্য কড়া নিয়ম মেনে চলেন। বাড়িতেই কিছু মেশিন কিনে একটি ছোট জিম তৈরি করে ফেলেছেন। সেখানেই ঘাম ঝরিয়ে নিজেকে সতেজ রাখছেন অভিনেত্রী। জিম বা শরীরচর্চা করতে হবে বলে করেন না, বরং শরীরচর্চা করতে পছন্দ করেন। ফাঁকা সময় পেলে দিনে দু'বেলাও ঘাম ঝরান। 
২০২০-র লকডাউনে ফাঁকা সময় পেলেই বেরিয়ে পড়তেন সাইকেল নিয়ে। কখনও নিউ টাউন, কখনও বালি ব্রিজ, কখনও ভিক্টোরিয়া অবধি পৌঁছে যেতেন তিনি। নিজের সাইকেল প্রীতির কথা বরাবরই জানান দেবলীনা। 
5/6২০২০-র লকডাউনে ফাঁকা সময় পেলেই বেরিয়ে পড়তেন সাইকেল নিয়ে। কখনও নিউ টাউন, কখনও বালি ব্রিজ, কখনও ভিক্টোরিয়া অবধি পৌঁছে যেতেন তিনি। নিজের সাইকেল প্রীতির কথা বরাবরই জানান দেবলীনা। 
যদিও এবারের লকডাউনে আর সে উপায় নেই। আগত্যা বাড়ির জিমই ভরসা। অবশ্য, বাড়িতে চালানোর মতো এক ধরণের বিশেষ সাইকেল কেনার পরিকল্পনা করছেন তিনি। তাঁর কথায়, ‘আমারও গাড়ি, বাইক ভালো লাগে। কিন্তু cycle is Emotion’!
6/6যদিও এবারের লকডাউনে আর সে উপায় নেই। আগত্যা বাড়ির জিমই ভরসা। অবশ্য, বাড়িতে চালানোর মতো এক ধরণের বিশেষ সাইকেল কেনার পরিকল্পনা করছেন তিনি। তাঁর কথায়, ‘আমারও গাড়ি, বাইক ভালো লাগে। কিন্তু cycle is Emotion’!
অন্য গ্যালারিগুলি