বাংলা নিউজ > ছবিঘর > বাড়ল মহিলা-সংরক্ষিত প্রার্থী, কমল মুসলিম প্রার্থী - সংখ্যায় তৃণমূলের তালিকা

বাড়ল মহিলা-সংরক্ষিত প্রার্থী, কমল মুসলিম প্রার্থী - সংখ্যায় তৃণমূলের তালিকা

  • ‘বাংলার মেয়েকেই চাই’ - দলের নয়া স্লোগানের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে এবার বেশি সংখ্যক মহিলাকে টিকিট দিল তৃণমূল কংগ্রেস। এমনিতেই ঘাসফুল শিবিরের তরফে দাবি করা হয়, ভারতের কোনও দলেই তৃণমূলের মতো মহিলা প্রতিনিধি নেই। সেই রেশ ধরেই ২০১১ সাল থেকে লাগাতার বিধানসভা ভোটে মহিলা প্রার্থীর সংখ্যা বাড়িয়ে আসছে তৃণমূল। সেই সঙ্গে তফসিলি জাতি ও উপজাতি ভোটারদের সংখ্যাও বেড়েছে। অসংরক্ষিত আসনেও তাঁদের প্রার্থী করা হয়েছে। তবে মুসলিম প্রার্থীর সংখ্যা কমেছে। টিকিট পাননি একাধিক বিদায়ী মন্ত্রীও। একনজরে দেখে নিন তৃণমূলের প্রার্থী তালিকা সংক্রান্ত বিভিন্ন পরিসংখ্যান -
এবার তৃণমূলের স্লোগান ‘বাংলার মেয়েকেই চাই।’ আর সেই স্লোগানের সঙ্গে খাপ খাইয়ে তৃণমূলের প্রার্থী তালিকায় মহিলা প্রার্থী সংখ্যা বাড়ল। গত বছর বিধানসভা নির্বাচনে ২৯৪ টি আসনে তৃণমূলের মহিলা প্রার্থী ছিলেন ৪৫ জন। এবার ২৯১ টি আসনে ৫০ জন মহিলাকে প্রার্থী করেছে তৃণমূল। যা শতাংশের বিচারে অবশ্য মাত্র ১৭.১৮। ২০১১ সালে ৩১ জন মহিলা প্রার্থী ছিলেন। (ফাইল ছবি, সৌজন্য ফেসবুক)
1/5এবার তৃণমূলের স্লোগান ‘বাংলার মেয়েকেই চাই।’ আর সেই স্লোগানের সঙ্গে খাপ খাইয়ে তৃণমূলের প্রার্থী তালিকায় মহিলা প্রার্থী সংখ্যা বাড়ল। গত বছর বিধানসভা নির্বাচনে ২৯৪ টি আসনে তৃণমূলের মহিলা প্রার্থী ছিলেন ৪৫ জন। এবার ২৯১ টি আসনে ৫০ জন মহিলাকে প্রার্থী করেছে তৃণমূল। যা শতাংশের বিচারে অবশ্য মাত্র ১৭.১৮। ২০১১ সালে ৩১ জন মহিলা প্রার্থী ছিলেন। (ফাইল ছবি, সৌজন্য ফেসবুক)
এবার তৃণমূলের সংখ্যালঘু প্রার্থীর সংখ্যা একধাক্কায় অনেকটা কমেছে। গত বিধানসভা নির্বাচনে তৃণমূলের সংখ্যালঘু প্রার্থীর সংখ্যা ছিল ৫৭। ২০১১ সালে ৩৮ জন সংখ্যলঘু প্রার্থী তৃণমূলের টিকিটে দাঁড়িয়েছিলেন। এবার ৪৭ জনকে টিকিট দিয়েছে তৃণমূল। (ছবি সৌজন্য এএনআই)
2/5এবার তৃণমূলের সংখ্যালঘু প্রার্থীর সংখ্যা একধাক্কায় অনেকটা কমেছে। গত বিধানসভা নির্বাচনে তৃণমূলের সংখ্যালঘু প্রার্থীর সংখ্যা ছিল ৫৭। ২০১১ সালে ৩৮ জন সংখ্যলঘু প্রার্থী তৃণমূলের টিকিটে দাঁড়িয়েছিলেন। এবার ৪৭ জনকে টিকিট দিয়েছে তৃণমূল। (ছবি সৌজন্য এএনআই)
এবার তৃণমূলের প্রার্থী তালিকা থেকে বাদ পড়েছেন পাঁচ মন্ত্রী। অসুস্থতার কারণে বিদায়ী অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্রকে টিকিট দেওয়া হয়নি। বয়সের কারণে বাদ পড়ছেন খাদ্যপ্রক্রিয়াকরণ এবং উদ্যানপালনমন্ত্রী আবদুক রেজ্জাক মোল্লা। টিকিট পাননি কারিগরি শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ মন্ত্রী পূর্ণেন্দু বসু। ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প দফতরের প্রতিমন্ত্রী রত্না ঘোষ কর এবং উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন প্রতিমন্ত্রী বাচ্চু হাঁসদাও তৃণমূলের প্রার্থী তালিকায় ঠাঁই পাননি। (ফাইল ছবি, সৌজন্য ফেসবুক)
3/5এবার তৃণমূলের প্রার্থী তালিকা থেকে বাদ পড়েছেন পাঁচ মন্ত্রী। অসুস্থতার কারণে বিদায়ী অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্রকে টিকিট দেওয়া হয়নি। বয়সের কারণে বাদ পড়ছেন খাদ্যপ্রক্রিয়াকরণ এবং উদ্যানপালনমন্ত্রী আবদুক রেজ্জাক মোল্লা। টিকিট পাননি কারিগরি শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ মন্ত্রী পূর্ণেন্দু বসু। ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প দফতরের প্রতিমন্ত্রী রত্না ঘোষ কর এবং উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন প্রতিমন্ত্রী বাচ্চু হাঁসদাও তৃণমূলের প্রার্থী তালিকায় ঠাঁই পাননি। (ফাইল ছবি, সৌজন্য ফেসবুক)
বাংলায় ২৯৪ টি আসনের মধ্যে ৬৮ টি আসন সংরক্ষিত তফসিলি জাতির শ্রেণিভুক্ত প্রার্থীদের জন্য। এবার একাধিক অসংরক্ষিত আসনেও তফসিলি জাতির শ্রেণিভুক্ত প্রার্থীদের টিকিট দিয়েছে তৃণমূল। সবমিলিয়ে তফসিলি জাতির ৭৯ জন তৃণমূলের টিকিট পেয়েছেন। আর তফসিলি উপজাতিদের জন্য সংরক্ষিত আসন ১৬ টি। আর তৃণমূল ১৭ জন তফসিলি উপজাতিশ্রেণিভুক্ত প্রার্থীদের টিকিট দিয়েছে। (ছবি সৌজন্য টুইটার)
4/5বাংলায় ২৯৪ টি আসনের মধ্যে ৬৮ টি আসন সংরক্ষিত তফসিলি জাতির শ্রেণিভুক্ত প্রার্থীদের জন্য। এবার একাধিক অসংরক্ষিত আসনেও তফসিলি জাতির শ্রেণিভুক্ত প্রার্থীদের টিকিট দিয়েছে তৃণমূল। সবমিলিয়ে তফসিলি জাতির ৭৯ জন তৃণমূলের টিকিট পেয়েছেন। আর তফসিলি উপজাতিদের জন্য সংরক্ষিত আসন ১৬ টি। আর তৃণমূল ১৭ জন তফসিলি উপজাতিশ্রেণিভুক্ত প্রার্থীদের টিকিট দিয়েছে। (ছবি সৌজন্য টুইটার)
এবার ২৯১ টি আসনের প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করেছে তৃণমূল। কার্শিয়াং, দার্জিলিং এবং কালিম্পং আসন ‘বন্ধুদের’ জন্য ছেড়ে রেখেছেন মমতা। (ছবি সৌজন্য পিটিআই)
5/5এবার ২৯১ টি আসনের প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করেছে তৃণমূল। কার্শিয়াং, দার্জিলিং এবং কালিম্পং আসন ‘বন্ধুদের’ জন্য ছেড়ে রেখেছেন মমতা। (ছবি সৌজন্য পিটিআই)
অন্য গ্যালারিগুলি